নাটক

ফারিয়া-মনোজের পালানোর গল্প

ঢাকা, ২২ এপ্রিল – বিশ্ববিদ্যালয় থেকে একজন শিক্ষকের তত্ত্বাবধানে সাতজনের একটি দল শিক্ষা সফরে যায় কক্সবাজার। শিক্ষকের নিয়ম-কানুন এতটাই কঠিন যে, পুরো সফরে কেউ কোনো মজা করতে পারে না। যেমন: ছেলে-মেয়ের একসঙ্গে ঘোরা যাবে না। মেয়েদের তাকে ‘ভাইয়া’ বলে ডাকতে হবে; আর ছেলেরা ‘স্যার’ বলে সম্বোধন করবে।

কেউ যদি এই নিয়ম ভঙ্গ করে তা হলে পরীক্ষার ফলাফলে তাদের নম্বর কমিয়ে দেওয়া হবে। এজন্য সবাই কিছুটা ভয়েও থাকে। কিন্তু নিয়ম ভাঙে মাহিন। সে অন্যদের জাগ্রত করে তোলার চেষ্টা চালালেও তেমন সাড়া মেলে না। মাহিন আগে থেকেই ভালোবাসতো সেজুতিকে। অগ্যতা তারা সুযোগ বুঝে দল থেকে পালায়। এতে বেকায়দায় পড়ে যায় গাইড কাম শিক্ষক।

এদিকে সেজুতির বাবা ফোন করে সেজুতি কেমন আছে জানতে চায়। কিন্তু শিক্ষক তেমন কোনো সদুত্তর দিতে পারে না। পুরো দলই ওদের খুঁজতে থাকে। তাদের মুঠোফোনও বন্ধ। সেজুতির বাবা অসুস্থ হয়ে পড়ে। বিষয়টি বেশ জটিল রূপ নেয়। সেজুতি তার মুঠোফোন অন করার পর জানতে পারে তার বাবা স্ট্রোক করেছে। এরপর সেজুতি ফিরে আসে দলের কাছে। তারপর গল্প মোড় নেয় ভিন্ন দিকে।

এমন গল্প নিয়ে নির্মিত হয়েছে একক নাটক ‘লাভ জার্নি’। এটি রচনা করেন সেজান নূর। পরিচালনা করেছেন দীপু হাজরা। এতে সেজুতি ও মাহিন চরিত্রে অভিনয় করেছেন শবনম ফারিয়া ও মনোজ প্রামাণিক। তা ছাড়াও অভিনয় করেছেন—সাইফ খান, নওশীন মেঘলা, অর্নব চৌধুরী, ঊর্মিলা তালুকদার, আবিসা জাহান প্রমুখ। ঈদুল ফিতরের দ্বিতীয় দিন রাত ৮টায় একুশে টেলিভিশনে প্রচার হবে নাটকটি।

এম এস, ২২ এপ্রিল

Back to top button