সাজ-সজ্জা

ঈদে কিভাবে সাজাবেন অন্দর

ঘর কে সবসময় একটু নিজের মতন করে সাজিয়ে রাখতে আমরা সবাই পছন্দ করি। তবে দৈনন্দিন কর্মব্যস্ততার মাঝে প্রতিদিন ঘরের দিকে খুব একটা মনোযোগ দেয়া হয়ে উঠে না। কিন্তু কয়েকদিন পরেই ঈদ। আর ঈদ মানেই অবশ্যই বাসায় বন্ধু-বান্ধব, আত্মীয়-স্বজনের আগমন। তাই উৎসবের এই আমেজকে আরও ফুটিয়ে তোলার জন্য এখন থেকেই অনেকেই শুরু করে দিচ্ছেনবে ঘর সাজানো গোছানোর কাজ। আর সুন্দর, রুচিসম্মতভাবে নিজের ঘরটিকে সাজানোর মাধ্যমেই তুলে ধরতে পারেন আপনার মননশীলতা।

কিভাবে ঈদে ঘর সাজানো যায়, চলুন জেনে নেয়া যাক কিছু কৌশল-

মেহমান এলেই আমরা প্রথমেই তাদের ড্রয়িং রুমে বসতে দিয়ে থাকি। তাই এবারের ঈদে আপনার ড্রয়িং রুমটি সুন্দর করে সাজিয়ে ফেলতে পারেন।

ঘরের পর্দা এবং সোফার কুশন কাভার পাল্টে ফেলুন। বাড়ির দেয়ালের রঙ যদি হালকা হয়, তাহলে পর্দা একটু রঙিন রাখার চেষ্টা করুন। পর্দার সাথে ম্যাচিং করতে পারেন সোফার কাভারও। এতে করে ঘর সুন্দর হয়ে উঠবে এবং একঘেয়েমি দূর হবে।

ঘরকে আরও আকর্ষণীয় করে তোলার জন্য ঘরের দেয়ালের এক কোণায় নিজেদের ফ্যামিলি ছবির ফ্রেম দিয়ে ছবির গ্যালারি তৈরি করে নিতে পারেন। ছবি সিলেকশনে প্রাধান্য দিতে পারেন আপনার সুন্দর কোনো মেমরি অথবা ভ্রমণের ছবি।

আপনার ঘরের দেয়ালটি যদি একেবারেই সাদামাটা হয়ে থাকে তাহলে দেয়াল রঙিন করে তুলুন। সেজন্য আপনি দেয়ালে সাজাতে পারেন সুন্দর দেয়াল ঘড়ি, আয়না অথবা থ্রিডি ওয়াল স্টিকার। এর মাধ্যমেই আপনার ঘরে আসবে ঈদের আমেজ। রঙিন দেয়াল দেখলে গরমে ক্লান্ত শরীর ও মন এমন মুহূর্তেই ভালো হয়ে যাবে।

যথা সম্ভব চেষ্টা করবেন বসার ঘরের ফার্নিচার কম রাখার জন্য। এতে করে দেখতে খুবই মনোরম লাগবে। ঘরের পরিবেশ ঠাণ্ডা ও স্বাস্থ্যসম্মত রাখার জন্য ইনডোর প্ল্যান্ট করতে পারেন। তাই ঈদের আগেই কয়েকটি গাছ এনে রাখুন আপনার ঘরে। দেখবেন সারাদিন পর সবুজের দিকে তাকালে শরীরের ক্লান্তি অনেকখানি কমে যাচ্ছে।

ঘরের মেঝেতে একটি রঙিন কার্পেট বিছিয়ে দিতে পারেন। এতে করে ঘর কে আরও পরিপাটি লাগবে। ঘরের বিভিন্ন স্থানে আলোকসজ্জা রাখতে পারেন। এতে ঘরের সৌন্দর্য বহুগুণে বেড়ে যায়। ল্যাম্প শেড, তারা বা মরিচ বাতিগুলো রাখতে পারেন।

আপনার ঘরের বারান্দায় একটি দোলনাও ঝুলিয়ে দিতে পারেন। এছাড়াও বারান্দায় বেশ কিছু গাছ ও মেঝেতে আর্টিফিশিয়াল ঘাস কার্পেট ব্যবহার করতে পারেন।

এম এস, ২২ এপ্রিল

Back to top button