জাতীয়

প্রকল্পের মেয়াদ বেড়েছে ৩ বছর, ব্যয় দ্বিগুণ; সংসদীয় কমিটির ক্ষোভ

ঢাকা, ২০ এপ্রিল – স্থানীয় সরকার বিভাগের বেশিরভাগ প্রকল্প ধীরগতিতে চলায় ক্ষোভ প্রকাশ করেছে জাতীয় সংসদের অনুমিত হিসাব কমিটি। বুধবার (২০ এপ্রিল) জাতীয় সংসদ ভবনে কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়।

জানা গেছে, স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের আওতাধীন পল্লী সড়কে গুরুত্বপূর্ণ সেতু নির্মাণে ২০১৭ সালে নেওয়া সাড়ে চার বছরের প্রকল্পের মেয়াদ সাড়ে সাত বছর করা হয়েছে। এসময়ে প্রকল্পের ব্যয় ৩ হাজার ৯০০ কোটি টাকা থেকে দ্বিগুণ বেড়ে ৬ হাজার ৪০০ কোটি টাকা করা হয়। চার বছরের বেশি সময় পার হলেও কাজ হয়েছে মাত্র ১৮ শতাংশ। এই প্রকল্পটির মতো স্থানীয় সরকার বিভাগের চলমান বেশির ভাগ প্রকল্প চলছে ধীরগতিতে।

এতে ক্ষোভ ও অসন্তোষ প্রকাশ করেছে অনুমিত হিসাব কমিটি। কমিটি প্রকল্প বাস্তবায়নে ধীরগতির কারণ অনুসন্ধান করে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়কে একটি প্রতিবেদন দিতে বলেছে।

বৈঠক সূত্র জানায়, বৈঠকে স্থানীয় সরকার বিভাগের চলমান প্রকল্পগুলো নিয়ে আলোচনা হয়। কমিটি বেশ কিছুদিন আগেই প্রকল্পগুলোর তথ্য চেয়েছিল। কিন্তু মন্ত্রণালয় বৈঠকের আগের রাতে এসব তথ্য কমিটিকে সরবরাহ করেছে।

কমিটি বলেছে, বেশিরভাগ প্রকল্প বারবার সংশোধন করা হচ্ছে। শুরুতে কেন সবকিছু যথাযথভাবে পর্যালোচনা করা হয় না। সময় ও ব্যয় বৃদ্ধির বিষয়ে প্রকল্প পরিচালকদের দায়িত্ব নিতে হবে, প্রয়োজনে তাদের বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

কমিটির পক্ষ থেকে বলা হয়, স্থানীয় সরকারের বেশিরভাগ প্রকল্প তৃণমূলের মানুষের সঙ্গে সম্পৃক্ত। জনগণের প্রতি জনপ্রতিনিধিদের বিভিন্ন অঙ্গীকার থাকে। জাতীয় নির্বাচনের বাকি আছে দেড় থেকে দুই বছর। অনেক প্রকল্প চলছে ধীরগতিতে। ছোট কিন্তু গুরুত্বপূর্ণ যেসব প্রকল্প শেষ পর্যায়ে আছে, সেগুলো জাতীয় নির্বাচনের আগেই শেষ করার তাগিদ দেয় কমিটি।

এ সময় সংসদ সদস্যদের জন্য ২০ কোটি টাকা করে বরাদ্দের বিষয়েও আলোচনা হয়। এ অর্থ অনেকে পাচ্ছেন না, এমন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে স্থানীয় সরকার বিভাগ জানায়, অনেকের অনুকূলে কিছু টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। কিন্তু অনেক এমপি প্রকল্প প্রস্তাব জমা দিচ্ছেন না। এ সময় কমিটির এক সদস্য বলেন, তিনি ২০ কোটি টাকার প্রকল্প প্রস্তাব জমা দিলেও এখনো বরাদ্দ পাননি। পরে কমিটি এ বরাদ্দের বিষয়ে জরুরি পদক্ষেপ নেওয়ার সুপারিশ করে।

সূত্র: আরটিভি
এম ইউ/২০ এপ্রিল ২০২২

Back to top button