দক্ষিণ এশিয়া

পাকিস্তানে শ্রীলঙ্কান নাগরিককে হত্যায় ৬ জনের ফাঁসি

ইসলামাবাদ, ১৯ এপ্রিল – ধর্ম অবমাননার অভিযোগে শ্রীলঙ্কার এক নাগরিককে হত্যার দায়ে ৬ জনকে মৃত্যুদণ্ড দিয়েছে পাকিস্তানের আদালত। এছাড়া আরও ৯ জনকে যবজ্জীবন কারাদণ্ড দেয়া হয়েছে।

ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম এক প্রতিবেদনে জানা যায়, শ্রীলঙ্কান নাগরিক হত্যার বিচারে সোমবার (১৮ এপ্রিল) অভিযুক্ত ৮৮ জনের মধ্যে ৬ জনের মৃত্যুদণ্ড, ৯ জনকে যাবজ্জীবন কারাদণ্ড ও অন্য আসামিদের দুই থেকে পাঁচ বছর মেয়াদে কারাদণ্ড দিয়েছে পাক আদালত।

বিগত ডিসেম্বরে পাকিস্তানের শিয়ালকোট শহরে ৪৮ বছর বয়সী কারখানা ব্যবস্থাপক প্রিয়ানথা দিয়াওয়াদানাগেকে পিটিয়ে হত্যার পর তার মরদেহ পুড়িয়ে দেয়া হয়। তার এই হত্যায় প্রায় শতাধিক লোক অংশ নেই।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে হত্যার ভিডিও ছড়িয়ে পড়লে দেখা যায়, উন্মত্ত জনতা দিয়াওয়াদানাগেকে তার কর্মস্থল থেকে টেনে হিঁচড়ে বের করে আনে, সেখানে পিটিয়েই মেরে ফেলা হয় তাকে। এরপর তারা মরদেহ পুড়িয়ে দেয়।

প্রিয়ানথা দিয়াওয়াদানাগে মহানবী (স.) নাম সম্বলিত পোস্টার ছিড়ে ফেলেছেন, এমন গুজবের জেরেই মূলত সহিংসতার শুরু। সেখান থেকেই দিয়াওয়াদানাগের প্রাণহানি।

এদিকে দিয়াওয়াদানাগেকে রক্ষা করতে যাওয়া সহকর্মীরা জানিয়েছেন, কারখানার পরিচ্ছন্নতা কার্যক্রম করার আগে প্রিয়ানথা দিয়াওয়াদানাগে শুধু সেখান থেকে পোস্টারগুলো সরিয়ে নিয়েছিলেন।

প্রিয়ানথা দিয়াওয়াদানাগের স্ত্রী নিলুশি দিশানায়েকে ভিডিওটি দেখার পর বলেন, এটা খুবই অমানবিক একটা দৃশ্য ছিলো।

শ্রীলঙ্কান নাগরিক হত্যার ওই ঘটনা গোটা পাকিস্তানে আলোড়ন তোলে এবং তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান দিনটিকে পাকিস্তানের ইতিহাসে ‘লজ্জাজনক দিন’ বলে আখ্যা দেন।

সূত্র : জাগো নিউজ
এম এস, ১৯ এপ্রিল

Back to top button