ইউরোপ

ইউক্রেনে রুশপন্থী রাজনীতিক গ্রেপ্তার

কিয়েভ, ১৩ এপ্রিল – ইউক্রেনে পলাতক রুশপন্থী রাজনীতিক ভিক্টর মেদভেদচুককে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। মেদভেদচুককে মনে করা হয়, ইউক্রেনে রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সবচেয়ে ঘনিষ্ঠ সহযোগী হিসেবে। নিরাপত্তা সংস্থা এসবিইউর পোস্ট করা ছবিতে দেখা যায়, সামরিক উর্দি ও হাতকড়া পরে মেদভেদচুক দাঁড়িয়ে আছেন।

এক প্রতিবেদনে এ তথ্য জানা গেছে।

এদিকে গত মঙ্গলবার রাতে জাতির উদ্দেশে দেয়া ভাষণে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কি প্রস্তাব দেন, রুশ বাহিনীর হাতে বন্দি ইউক্রেনের তরুণ ও তরুণীদের বিনিময়ে মেদভেদচুককে ছেড়ে দিতে রাজি তিনি। এর আগে ফেসবুকে তিনি জানান, এসবিইউর এক বিশেষ অভিযানে মেদভেদচুক গ্রেপ্তার হয়েছেন।

প্রতিবেদনে বলা হচ্ছে, ভিক্টর মেদভেদচুক সন্দেহভাজন একজন রাষ্ট্রদ্রোহী হিসেবে ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভে গৃহবন্দী ছিলেন। তবে ২৪ ফেব্রুয়ারি রাশিয়া ইউক্রেনে হামলা শুরু করার পরপরই তিনি পালিয়ে যান।

তবে, ইউক্রেনের তোলা রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ অস্বীকার করে আসছেন ৬৭ বছর বয়সী মেদভেদচুক।

এদিকে মেদভেদচুকের গ্রেপ্তারের বিষয়ে পুতিনের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকভ বলেন, ইউক্রেন থেকে এখন অসংখ্য ভুয়া সংবাদ আসছে। তাই সেখান থেকে আসা সব তথ্যই এখন যাচাই করে দেখা প্রয়োজন।

ভ্লাদিমির পুতিন তাঁর মেয়েদের কাছে একজন গডফাদার বলে দাবি করা ভিক্টর মেদভেদচুক ইউক্রেনের একজন ধনাঢ্য ব্যবসায়ী। ইউক্রেনের রাশিয়াপন্থী বিরোধী পক্ষের ফর লাইফ পার্টির নেতৃত্ব দেন তিনি। তবে ইউক্রেনের সরকার ও সামরিক বাহিনীর অভিযোগকে তিনি ‘রাজনৈতিক দমন-পীড়ন’ বলেই বর্ণনা করে থাকেন।

ক্রেমলিনের সঙ্গে যোগাযোগ করার জন্য মেদভেদচুককে একটি গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম মনে করা হতো ইউক্রেনে। ২০২১ সালের মে মাসে তার বিরুদ্ধে রাষ্ট্রদ্রোহের অভিযোগ তোলা হয়।

সূত্র : বিবিসি
এম এস, ১৩ এপ্রিল

Back to top button