উত্তর আমেরিকাদক্ষিণ এশিয়া

রাশিয়া থেকে তেল কেনায় মোদীকে সতর্ক করলেন বাইডেন

ওয়াশিংটন, ১২ এপ্রিল – রাশিয়া থেকে আরও তেল কেনায় ভারতের স্বার্থরক্ষা হবে না বলে সতর্ক করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীকে তিনি আরও জানিয়েছেন, নয়াদিল্লির এ ধরনের পদক্ষেপে ইউক্রেন যুদ্ধের প্রতিক্রিয়ায় যুক্তরাষ্ট্রের উদ্যোগ ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। সোমবার (১১ এপ্রিল) ওয়াশিংটনে ভারত-যুক্তরাষ্ট্র উচ্চপর্যায়ের বৈঠকে এ সতর্কবার্তা দিয়েছেন বাইডেন। যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তাদের বরাতে এ তথ্য জানিয়েছে বার্তা সংস্থা রয়টার্স।

এদিনের বৈঠকে সরাসরি উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট, পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী এবং ভারতের পক্ষে ছিলেন দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও প্রতিরক্ষামন্ত্রী। ভার্চুয়ালি এতে যোগ দেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রীও। প্রায় ঘণ্টাব্যাপী ওই বৈঠককে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা ‘উষ্ণ’ ও ‘অকপট’ বললেও রাশিয়া ইস্যুতে ভারতের সঙ্গে তাদের সাম্প্রতিক মতবিরোধ আরও স্পষ্ট বোঝা গেছে।

মার্কিন কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, বৈঠকে বাইডেন মোদীকে বলেছেন, রুশ জ্বালানির ওপর নির্ভরতা বাড়ানো বিশ্ব দরবারে ভারতের অবস্থান সুসংহত করবে না। হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র জেন সাকির কথায়, প্রেসিডেন্ট স্পষ্টভাবে বলেছেন, এটি (রুশ জ্বালানি আমদানি) বাড়ানো তাদের (ভারতের) স্বার্থের পরিপন্থি।

তবে ভারতের পররাষ্ট্রমন্ত্রী এস জয়শংকর পরে এক সংবাদ সম্মেলনে বলেছেন, রাশিয়া থেকে জ্বালানি কেনা ইস্যুতে নজর ভারতের ওপর নয়, ইউরোপের দিকে থাকা উচিত। তিনি বলেন, আমরা সম্ভবত এক মাসে যা কিনি, তা এক বিকেলেই কেনে ইউরোপ।

ইউক্রেনে আগ্রাসনের নিন্দা ও রাশিয়ার ওপর অর্থনৈতিক চাপ বাড়াতে ভারতের কাছ থেকে আরও সমর্থন দাবি করে আসছে যুক্তরাষ্ট্র। যদিও এ বিষয়ে শুরু থেকেই তথাকথিত ‘নিরপেক্ষ’ অবস্থান বজায় রেখেছে ভারত। তবে তাতে সন্তুষ্ট নয় বাইডেন প্রশাসন। মার্কিন প্রেসিডেন্ট ভারতের এ ধরনের অবস্থানকে সম্প্রতি ‘নড়বড়ে’ বলে মন্তব্য করেছেন।

তবে বিশ্বের বৃহত্তম দুই গণতান্ত্রিক দেশের শীর্ষনেতাদের মধ্যকার বৈঠকে ইউক্রেনে বেসামরিক নাগরিক হতাহতের ঘটনায় গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী। বুচা শহরে হত্যাকাণ্ড প্রসঙ্গে তিনি বলেন, আমরা এর নিন্দা জানাই এবং তাৎক্ষণিকভাবে একটি স্বাধীন তদন্ত দাবি করি।

রয়টার্সের খবর অনুসারে, রাশিয়ার কাছ থেকে বিশাল মূল্যছাড় পেয়ে গত ২৪ ফেব্রুয়ারির (ইউক্রেন রুশ আগ্রাসন শুরুর দিন) পর থেকে অন্তত ১ কোটি ৩০ লাখ ব্যারেল অপরিশোধিত তেল কিনেছে ভারত। অথচ গত বছরজুড়ে তাদের রুশ তেল আমদানির পরিমাণ ছিল ১ কোটি ৬০ লাখ ব্যারেল।

রাশিয়ার বদলে ভারত যুক্তরাষ্ট্র থেকে জ্বালানি কিনতে কোনো প্রতিশ্রুতি দিয়েছে কি না সে বিষয়ে কোনো মন্তব্য করতে রাজি হননি হোয়াইট হাউজের মুখপাত্র। তবে তিনি জানিয়েছেন, ভারতের জ্বালানি উৎসে বৈচিত্র্য আনতে সব ধরনের সহায়তা করতে প্রস্তুত ওয়াশিংটন।

সূত্র: জাগো নিউজ
এম ইউ/১২ এপ্রিল ২০২২

Back to top button