ক্রিকেট

পন্টিংয়ের যে প্রথা মনে ধরেছে মোস্তাফিজের

মুম্বাই, ১২ এপ্রিল – ২ কোটি রুপি ভিত্তিমূল্যে এবার নতুন দল পেয়েছেন মোস্তাফিজুর রহমান। ঋষভ পান্তের দিল্লি ক্যাপিটালস তাকে দলে নেয়। বাংলাদেশি বোলারের জন্য আইপিএলে এটি চতুর্থ দল। নতুন ঠিকানায় গেলেও মোস্তাফিজ বেশ ভালোভাবে পরিবেশের সঙ্গে মানিয়ে নিয়েছেন। সতীর্থরা সহজে তাকে বরণ করেছেন। বিশেষ করে নিজের প্রথম ম্যাচে পারফরম্যান্স দিয়ে কোচ রিকি পন্টিংয়ের নজর কেড়ে পুরস্কৃত হওয়ায় রোমাঞ্চিত তিনি।

দিল্লির শেয়ার করা একটি ভিডিও পোস্টে মোস্তাফিজ তার অভিজ্ঞতা, সম্ভাবনা নিয়ে কথা বলেছেন। দল নতুন হলেও মুখগুলো অনেকটাই চেনা। বিশেষ করে ডেভিড ওয়ার্নার ও চেতন সাকারিয়ার সঙ্গে খেলার অভিজ্ঞতা আগেই হয়েছিল। মোস্তাফিজ বললেন, ‘আমি এই দলের অনেকের সঙ্গে আগেও কমবেশি খেলেছি, কারো সঙ্গে আবার কারো বিপক্ষ দলে। গত মৌসুমে চেতন সাকারিয়ার সঙ্গে ছিলাম, ডেভিড ওয়ার্নারের সঙ্গে দুই মৌসুম একই দলে ছিলাম। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত দিল্লি ক্যাপিটালসের সঙ্গে ভালো অভিজ্ঞতা।’

দলের সম্ভাবনা নিয়ে বাঁহাতি পেসার বলেছেন, ‘এখন পর্যন্ত আমরা দুটি জিতেছি ও দুটি হেরেছি। এটা খুবই ভারসাম্যপূর্ণ একটি দল। ব্যাটিং বলেন কিংবা বোলিং, আমাদের দলে ভালো ভালো খেলোয়াড়রা আছে।’

বেঙ্গালুরুতে গত ফেব্রুয়ারিতে অনুষ্ঠিত নিলামের সময় বিপিএল খেলছিলেন মোস্তাফিজ। দল পাওয়ার সঙ্গে সঙ্গে তার প্রতিক্রিয়া কেমন ছিল জানালেন তিনি, ‘নিলামের সময় আমি তা দেখিনি। ওইসময় বিপিএল খেলছিলাম। দল ব্যাটিংয়ে থাকায় আমি ডাগআউটে ছিলাম, পরে একজন এসে বলল আমাকে দিল্লি নিয়েছে। এর আগে তিনটি দলের সঙ্গে খেলেছি, এবার একটি নতুন দলের অংশ হওয়ায় ভালো লেগেছে।

এই আসরে মোস্তাফিজ তিন ম্যাচ খেলেছেন। ৩ উইকেট নিয়ে আইপিএল শুরু করলেও শেষ দুটি ম্যাচে প্রাপ্তি ছিল শূন্য। কিন্তু কলকাতা নাইট রাইডার্সের বিপক্ষে তার নিয়ন্ত্রিত বোলিং জয়ের ভিত গড়ে দিয়েছিল। নিজের পারফরম্যান্স নিয়ে মোস্তাফিজ বলেছেন, ‘ভালোর তো কোনো শেষ নেই। আমি খেলতে নামলে সবসময় চেষ্টা করি মাঠে আমার সেরাটা দেওয়ার।’

গুজরাটের বিপক্ষে নিজের প্রথম ম্যাচে ৪ ওভারে ২৩ রান দিয়ে ৩ উইকেট নেন মোস্তাফিজ। দিল্লির হেরে যাওয়া ম্যাচে সেরা খেলোয়াড় হন গুজরাটের লকি ফার্গুসন। তবে দল ১৪ রানে হারলেও ড্রেসিংরুমে মোস্তাফিজকে বিশেষ পুরস্কার দেন কোচ রিকি পন্টিং। তার চোখে ওই দিন ম্যাচসেরা ছিলেন বাংলাদেশি কাটার মাস্টার। তাকে একটি বিশেষ পিন তুলে দেন অস্ট্রেলিয়ার সাবেক অধিনায়ক, ‘এটা (পিন) শুধু আমার জন্য না, প্রত্যেক খেলোয়াড়ের জন্য প্রেরণাদায়ক। ম্যাচ হারি বা জিতি, পারফরম্যান্সের জন্য পুরো দলের সামনে কোচের কাছ থেকে উৎসাহ পাওয়া আপনার জন্য খুবই দারুণ ব্যাপার। আমার মনে হয় এটা আমাদের কোচের খুবই ভালো একটা প্রথা।’

বাংলাদেশি ভক্তদের নিজের পারফরম্যান্স দিয়ে আরো উচ্ছ্বসিত করতে চান মোস্তাফিজ, ‘আমার জন্য দোয়া করবেন যেন দিল্লি ও আমি আপনাদের আরো ভালো ভালো পারফরম্যান্স উপহার দিতে পারি। দিল্লি টিমের সঙ্গে থাকুন ও আমাদের অনুসরণ করুন। আমাদের উৎসাহ দিন।’

সূত্র : রাইজিংবিডি
এম এস, ১২ এপ্রিল

Back to top button