ইউরোপ

যুদ্ধে ইউক্রেনের জিডিপি অর্ধেক কমে যাওয়ার শঙ্কা

কিয়েভ, ১১ এপ্রিল – রুশ সামরিক অভিযান ও এর ফলে সৃষ্ট মানবিক সংকটের প্রভাবে ইউক্রেনের অর্থনীতির পরিধি এ বছর অর্ধেকে সংকুচিত হওয়ার পথে বলে জানিয়েছে বিশ্বব্যাংক।

এক প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, ইউক্রেনের দক্ষিণে কৃষ্ণসাগর বন্দর অবরোধ এবং পূর্বে সামরিক অভিযানের ফলে শিল্প-কারখানাগুলোতে বিপর্যয় দেখা দিয়েছে। ফলে যুদ্ধবিধ্বস্ত দেশটির জিডিপি এ বছর ৪৫ শতাংশ কমে যেতে পারে।

ইউক্রেনের অর্থনীতিতে কৃষির বড় ধরনের অবদান আছে। বিশ্বের অনেক দেশেই গম রপ্তানি করে ইউক্রেন। কিন্তু দেশটির বন্দরগুলোতে জাহাজের আনাগোনা ৭৫ শতাংশ কমে গেছে। রাশিয়া যদি কৃষ্ণসাগর ইউক্রেনের জন্য বন্ধ করে দেয়। তবে দেশটির অর্থনৈতিক সংকট আরও বাড়বে।

এমন পরিস্থিতিতে রাশিয়াসহ পার্শ্ববর্তী দেশগুলোকেও অর্থনৈতিক বিপর্যয় মোকাবিলা করতে হবে বলে জানিয়েছে ওয়াশিংটনভিত্তিক একটি উন্নয়ন সংস্থা।

এক পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, যুদ্ধের প্রভাবে এ বছর রুশ অর্থনীতি ১১ দশমিক ৭ শতাংশ সংকুচিত হবে। রাশিয়ার মিত্রদেশ বেলারুশের অর্থনীতিও ৩০ দশমিক ৭ শতাংশ সংকুচিত হবে।

রোববার পূর্বাভাসে বিশ্বব্যাংক বলেছে, ‘যুদ্ধ মানবজীবনে ধ্বংসাত্মক প্রভাব ফেলছে এবং ইউক্রেন ও রাশিয়া উভয় দেশেই অর্থনৈতিক ধ্বংসের কারণ হয়ে দাঁড়াচ্ছে। এছাড়া পুরো বিশ্বেই উল্লেখযোগ্য অর্থনৈতিক ক্ষতি দেখা দেবে।’

বিশ্বব্যাংকের প্রেসিডেন্ট ডেভিড ম্যালপাস ও আইএমএফের প্রধান ক্রিস্টালিনা জর্জিয়েভার পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, তারা যুদ্ধের ফলে ক্ষতিগ্রস্ত দেশগুলোকে অতিরিক্ত আর্থিক সহায়তা দেয়ার পরিকল্পনা করছেন।

তবে গত মাসে ক্রিস্টালিনা বলেছিলেন, ইউক্রেন যুদ্ধে বিশ্বব্যাপী আর্থিক সংকট সৃষ্টির সম্ভাবনা কম। তবে একই সঙ্গে সংঘাতের কাছাকাছি অনেক দেশকেই গুরুতর অর্থনৈতিক মন্দার বিষয়ে সতর্ক করেছিলেন তিনি।

সূত্র : জাগো নিউজ
এম এস, ১১ এপ্রিল

Back to top button