ইউরোপ

‘তেলের ওপর পূর্ণাঙ্গ নিষেধাজ্ঞা যুদ্ধ বন্ধ করতে পারে’

মস্কো, ১০ এপ্রিল – পশ্চিমা দেশগুলো কর্তৃক রাশিয়ান জ্বালানির ওপর একটি ‘সত্যিকারের নিষেধাজ্ঞা’ ইউক্রেনে হওয়া যুদ্ধ বন্ধ করতে পারে। রাশিয়ার প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের সাবেক প্রধান অর্থনৈতিক উপদেষ্টা ড. আন্দ্রেই ইলারিয়নভ এমনটাই দাবি করেছেন।

ইলারিয়নভ বলেছেন, রাশিয়ান জ্বালানির ব্যবহার কমানোর অন্য দেশগুলোর হুমকিকে রাশিয়া গুরুত্বের সঙ্গে নেয়নি। রোববার এই খবর প্রকাশ করেছে ব্রিটিশ সংবাদমাধ্যম বিবিসি অনলাইন।

ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযানকে কেন্দ্র করে রাশিয়ান জ্বালানির ব্যবহার কমানো বা একেবারে বন্ধের তোড়জোড় করলেও আদতে ইউরোপ এখনো রাশিয়ান তেল ও গ্যাস কিনছে।

গত বছর মূল্যের ঊর্ধ্বগতির মানে হলো রাশিয়া সরকারি ব্যয়ের ৩৬ শতাংশ ছিল তেল ও গ্যাসের আয়। আর এই আয়ের বেশিরভাগই আসে ইউরোপীয়ান ইউনিয়ন (ইইউ) থেকে। ইইউ নিজেদের প্রয়োজনীয় গ্যাসের প্রায় ৪০ শতাংশ এবং তেলের প্রায় ২৭ শতাংশ রাশিয়া থেকে আমদানি করে।

চলতি সপ্তাহে ইইউর শীর্ষ কূটনীতিক জোসেফ বোরেল বলেছেন, জ্বালানি সরবরাহের জন্য আমরা পুতিনকে প্রতিদিন এক বিলিয়ন ইউরো করে পরিশোধ করছি।

এদিকে আন্দ্রেই ইলারিয়নভ বলেন, পশ্চিমা দেশগুলো যদি রাশিয়া থেকে তেল এবং গ্যাস আমদানির ওপর সত্যিকারের নিষেধাজ্ঞা কার্যকর করার চেষ্টা করে… আমি বাজি ধরতে পারি সম্ভবত এক বা দুই মাসের মধ্যে ইউক্রেনে রাশিয়ার সামরিক অভিযান স্থগিত হতে পারে, শেষ হবে। এটি এখনো পশ্চিমাদের দখলে থাকা খুবই কার্যকরী একটি যন্ত্র।

সূত্র: সমকাল
এম ইউ/১০ এপ্রিল ২০২২

Back to top button