ইউরোপ

বুচায় গুলি করে ৩২০ বেসামরিক নাগরিক হত্যা

কিয়েভ, ০৬ এপ্রিল – ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভের পার্শ্ববর্তী বুচা শহর দখল নেয়ার সময় রুশ সেনারা ৩২০ জন বেসামরিক নাগরিককে গুলি করে হত্যা করেছে বলে জানিয়েছে শহরটির মেয়র আনাতোলি ফেদোরুক।

ওয়ার্ড টুনাইটকে দেয়া মেয়র আনাতোলি ফেদোরুকের এক সাক্ষাৎকারের বরাত দিয়ে করা ব্রিটিশ গণমাধ্যম বিবিসির এক প্রতিবেদনে জানা যায় এসব তথ্য।

তার চোখের সামনেই অনেক কিছু হয়েছে উল্লেখ করে সাক্ষাৎকারে বুচা শহরের মেয়র বলেন, রুশ বাহিনীর হাতে বহু মানুষের হত্যাকাণ্ডের ঘটনার সাক্ষী তিনি নিজেই।

তিনি আরও বলেন, বুচা শহর থেকে তিনটি বেসামরিক গাড়িতে করে লোকজন কিয়েভের দিকে যাওয়ার চেষ্টা করছিল, সেখানেই তাদের নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করা হয়।

শহর দখলের সময় রুশ বাহিনী স্থানীয় রাজনীতিবিদদেরও নিস্তার দেয়নি বলে অভিযোগ করেন আনাতোলি ফেদোরুক।

এদিকে রাশিয়া বরাবরই বুচাতে গণহত্যার কথা অস্বীকার করে আসছে। ক্রেম্লিন্র পক্ষ থেকে জানানো হয়, গণহত্যার বিষয়টি ইউক্রেন ও পশ্চিমা বিশ্বের সাজানো নাটক ছাড়া অ্যা কিছুই না।

রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই ল্যাভরভও বুচা শহরে যুদ্ধাপরাধের বিষয়টি অস্বীকার করেছেন। এর জবাবে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে বুচা শহরে এসে সেখানকার পরিস্থিতি, নিহতদের পরিবার-পরিজন কেমন আছেন, অসহায় মানুষজন কিভাবে দিনানিপাত করছে তার সবকিছু স্বচক্ষে পর্যবেক্ষণ করতে আমন্ত্রণ জানিয়েছেন বুচা শহরের মেয়র আনাতোলি ফেদোরুক।

তবে ওই শহরে যুদ্ধাপরাধের কথা অস্বীকার করেছেন রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে আহ্বান জানিয়েছেন তিনি যেন বুচা শহরে এসে সেখানকার পরিস্থিতি দেখেন। যারা নিহত হয়েছেন তাদের পরিবার, বাবা-মা, স্বামী-স্ত্রী বা সন্তান যারা এতিম হয়েছে তারা কেমন আছে তা রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে নিজের চোখে দেখার আহ্বান জানান ফেদোরুক।

এদিকে বুচা শহরে গণহত্যার তদন্ত করা হবে বলে জানিয়েছে জাতিসংঘ। রোববার (৩ এপ্রিল) বিশ্ব সংস্থাটির মহাসচিব অ্যান্তোনিও গুতেরেস সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে ঘোষণা দেন, ইউক্রেনের বুচা শহরে বেসামরিক মানুষের ওপর চালানো গণহত্যার যেসব চিত্র প্রকাশিত হয়েছে, তাতে আমি হতবাক। এই গণহত্যার স্বাধীন ও নিরপেক্ষ তদন্ত হওয়া এখন সময়ের দাবি মাত্র। দোষীদের অবশ্যই আইনের আওতায় আনা জরুরী।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এম এস, ০৬ এপ্রিল

Back to top button