ক্রিকেট

ইতিহাস বলছে ডারবানে জেতা সম্ভব, পারবে তো বাংলাদেশ?

ডারবান, ০৩ এপ্রিল – এশিয়ার সবগুলো দলের ডারবানের কিংসমিডে জয় আছে। ভারত, পাকিস্তান, শ্রীলঙ্কা প্রত্যেকে হারিয়েছে স্বাগতিকদের। বাংলাদেশের জন্য সেই সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। ডারবান টেস্ট জিততে বাংলাদেশের প্রয়োজন ২৭৪ রান।

তবে কাজটা মোটেও সহজ হবে না। ৬ রান তুলতেই অতিথিরা হারিয়েছে ৩ উইকেট। সাদমানের পর সাজঘরের পথ ধরেছেন প্রথম ইনিংসের সেঞ্চুরিয়ান মাহমুদুল হাসান জয়। মুমিনুলও টিকতে পারেননি। ক্রিজে ব্যাটিংয়ে আছেন শান্ত ও মুশফিক। বল প্রত্যাশার চেয়ে বেশি ঘুরছে। আছে অসমান বাউন্স। আলো স্বল্পতায় পেস বোলার ব্যবহার করতে পারবে না দক্ষিণ আফ্রিকা। কিন্তু দুই স্পিনার হার্মার ও মহারাজ বাংলাদেশকে এলোমেলো করে দিচ্ছেন।

আলোর স্বল্পতায় খেলা বন্ধ হওয়ার আগে বাংলাদেশের স্কোর ৩ উইকেটে ১১। ২৬৩ রানে পিছিয়ে থাকা বাংলাদেশের জন্য পঞ্চম দিনে কঠিন সময় অপেক্ষা করছে বলার অপেক্ষা রাখে না।

ইতিহাস বাংলাদেশকে আত্মবিশ্বাসী করতে পারে। এ মাঠে চতুর্থ ইনিংসে জয় আছে ১১টি, ড্র আছে ৬টি। হারের রেকর্ডও খারাপ নয়, ১১টি। তবে জয়ের রেকর্ড আত্মবিশ্বাস বাড়াচ্ছে বাংলাদেশকে। দক্ষিণ আফ্রিকা অস্ট্রেলিয়ার বিপক্ষে ৩৪০ রান করে জিতেছিল। অস্ট্রেলিয়া সেই ১৯৫০ রানে ৩৩৬ রানে জিতেছিল। শ্রীলঙ্কা ২০১৯ সালে ৩০৪ রানে জিতেছিল, সেই স্মৃতি তো আজও তরতাজা ক্রিকেটপ্রেমীদের হৃদয়ে। তিনশর বেশি রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড এই তিনটিই।

দুইশর ঘরে রয়েছে ড্রয়ের রেকর্ড। বাকিগুলো সব দুইশর নিচে। মাত্র চারটি দলই এই মাঠে চতুর্থ ইনিংসে জয় পেয়েছে। দক্ষিণ আফ্রিকা ৭টি, অস্ট্রেলিয়া ২টি এবং ইংল্যান্ড ও শ্রীলঙ্কা ১টি করে ম্যাচ জিতেছে। বাংলাদেশের সামনে ইতিহাস গড়ার হাতছানি। পারবে কি মুমিনুলের দল?

বাংলাদেশের নিজেদের রেকর্ড অবশ্য খুব ভালো নয়। চতুর্থ ইনিংসে ৩৩ ম্যাচে জিতেছে মাত্র ৪টিতে। হেরেছে ২৪ ম্যাচ। ড্র করেছে ৫টি। ২০০৯ সালে সর্বোচ্চ ২১৭ রান করে জিতেছিল ওয়েস্ট ইন্ডিজে বিপক্ষে। কলম্বোতে শততম টেস্ট ম্যাচ জিতেছিল ১৯১ রান তাড়া করে। এছাড়া জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে ১০১ রান এবং নিউ জিল্যান্ডের মাটিতে ৪২ রান করে জিতেছিল। এবারের লক্ষ্যটা পাহাড়সম। নিউ জিল্যান্ডের পর দক্ষিণ আফ্রিকাতেও কি টেস্ট জিততে পারবে বাংলাদেশ?

সূত্র : রাইজিংবিডি
এম এস, ০৩ এপ্রিল

Back to top button