ক্রিকেট

সাদমান রানের খাতাই খুলতে পারলেন না

ডারবান, ০৩ এপ্রিল – ডারবান টেস্টের প্রথম ইনিংসে ৯ রান করা ওপেনার সাদমান ইসলাম এবার রানের খাতাই খুলতে পারলেন না। ২৭৪ রানের টার্গেটে নেমে বাংলাদেশ ৪ রানে হারাল প্রথম উইকেট। সাদমানকে সিমন হার্মার প্রথম ওভারেই স্লিপে কিগান পিটারসেনের ক্যাচ বানান।

বাংলাদেশ: দ্বিতীয় ইনিংস- ৪/১ (১.২ ওভার)

দক্ষিণ আফ্রিকা: দ্বিতীয় ইনিংস- ২০৪/১০ (৭৪ ওভার)

দক্ষিণ আফ্রিকা: প্রথম ইনিংস- ৩৬৭/১০ (১২১ ওভার)

বাংলাদেশ: প্রথম ইনিংস- ২৯৮/১০ (১১৫.৫ ওভার)

ডারবান টেস্ট জিততে বাংলাদেশের প্রয়োজন ২৭৪ রান

২০৪ রানে অলআউট দক্ষিণ আফ্রিকা। প্রোটিয়াদের লিড ২৭৩ রানের। দ্বিতীয় ইনিংসে বাংলাদেশের সামনে লক্ষ্য দাঁড়াল ২৭৪ রান।

৬৯ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাটিং করতে নামে দক্ষিণ আফ্রিকা। দ্বিতীয় ইনিংসে তারা অলআউট হয় ২০৪ রানে। সর্বোচ্চ ৬৪ রান করেন প্রোটিয়া অধিনায়ক ডিন এলগার। এ ছাড়া কিগান পিটারসেন ৩৬ রান করেন। রায়ান রিকেলটন ৩৯ রানে অপরাজিত ছিলেন। ২ রানের ব্যবধানে শেষ ৩ উইকেট হারায় দক্ষিণ আফ্রিকা।

বাংলাদেশের হয়ে সর্বোচ্চ ৩ উইকেট করে নেন ইবাদত হোসেন ও মেহেদী হাসান মিরাজ। তাসকিন আহমেদ নেন ২ উইকেট।

রান আউটে টানা দুই উইকেট হারালো দক্ষিণ আফ্রিকা

১১ রানে হার্মার রানআউট হয়েছেন নুরুল হাসানের সরাসরি থ্রোতে। এরপর লিজাড উইলিয়ামসও ফেরেন রানআউট হয়ে। উইলিয়ামস রানের খাতাই খুলতে পারেননি।

দক্ষিণ আফ্রিকার ২০০, রানআউট হার্মার

দক্ষিণ আফ্রিকার দলীয় সংগ্রহ দুইশ স্পর্শ করার পরেই রানআউট হয়ে সাজঘরে ফেরেন হার্মার। ২ রান নিতে গিয়ে ডিপ কাভার থেকে বদলি ফিল্ডার নুরুল হাসান সোহানের সরাসরি থ্রোতে আউট হন তিনি। ২৫ বলে ১১ রান করেন রিকেলটন। ইতিমধ্যে দক্ষিণ আফ্রিকার লিড দাঁড়িয়েছে ২৬৯ রান।

মিরাজের পর তাসকিনের আঘাত

মিরাজের পরের ওভারেই আঘাত হানলেন তাসকিন। এলবিডব্লিউ করে ফেরান কেশব মহারাজকে। ৫ বলে ৫ রান করেন তিনি। তাসকিনের ফুল বল মহারাজের ব্যাট মিস করে লাগে সামনের পায়ে। জোরালো আবেদনের সঙ্গে সঙ্গে সাড়া দেন আম্পায়ার। বাংলাদেশের আর প্রয়োজন ৩ উইকেট।

মিরাজের ঘূর্ণিতে পরাস্ত মুল্ডার

মেহেদি হাসান মিরাজের করা ৬৫তম ওভারের প্রথম বল। ড্রাইভ কর‍তে চেয়েছিলেন ভিয়ান মুল্ডার। ব্যাটে-বলে ঠিকমতো সংযোগ হয়নি। বল ব্যাটের কানায় লেগে চলে যায় স্লিপে। বল তালুবন্দি করেন ইয়াসির। ৪২ বলে ১১ রান করেন মুল্ডার।

দ্বিতীয় সেশনে চার উইকেট নিয়ে ম্যাচে ফিরল বাংলাদেশ

ক্যাচ মিস আর রিভিউ না নেওয়ার আক্ষেপে প্রথম সেশন কেটেছে হতাশায়। দ্বিতীয় সেশনে ইয়াসির-সাদমানের দুর্দান্ত ক্যাচে কিছুটা আক্ষেপও মিটেছে। এই সেশনেও দুটি কঠিন ক্যাচ নিতে পারলে বাংলাদেশ আরও সুবিধাজনক অবস্থায় থাকতো। লিটন দাস আর খালেদ চেষ্টাও করেছিলেন, তবে পারেননি। সব মিলিয়ে এই সেশনে চার উইকেট নিয়ে ম্যাচে ফিরেছে বাংলাদেশ। তবে লিড বাড়ছে দক্ষিণ আফ্রিকার। দক্ষিণ আফ্রিকার সংগ্রহ ৫ উইকেট হারিয়ে ১৫৭ রান। ক্রিজে আছেন রিকেলটন-মুল্ডার। লিড ২২৬ রানের।

সাদমানের দুর্দান্ত ক্যাচে আউট ভেরিয়েন্নে

মিরাজের করা ৫২তম ওভারের প্রথম বল। রিভার্স সুইপ করতে চেয়েছিলেন কাইল ভেরিয়েন্নে। বল ব্যাট থেকে পায়ে লেগে উঠে যায় উপরে। সিলি পয়েন্টে দাঁড়ানো সাদমান ঝাঁপিয়ে পড়ে এক হাতে বল তালুবন্দি করেন। ১৮ বলে ১ চারে ৬ রান করেন ভেরিয়েন্নে।

২০০ ছাড়াল দক্ষিণ আফ্রিকার লিড

দ্রুত ৩ উইকেট নিয়ে বাংলাদেশ লড়াই চালিয়ে গেলেও ২০০ ছাড়িয়ে গেছে দক্ষিণ আফ্রিকার লিড। এই প্রতিবেন লেখা পর্যন্ত দলীয় সংগ্রহ ৪৮ ওভারে ৪ উইকেটে ১৪০ রান। ৬৯ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংসে তারা ব্যাটিংয়ে নেমেছিল। চলমান দ্বিতীয় সেশনে ডিন এলগারের পর কিগান পিটারসেন-টেম্বা বাভুমাও ফেরেন দ্রুত। এরপর খেলার হাল ধরেন কাইল ভেরিয়েন্নে-রায়ান রিকেলটন। লিড যত বেশি হত বেশি বিপদ বাংলাদেশের জন্য।

ইয়াসিরের দুর্দান্ত ক্যাচে বাভুমার বিদায়

ইয়াসির আলী রাব্বির দুর্দান্ত ক্যাচে বাংলাদেশ পেল দক্ষিণ আফ্রিকার চতুর্থ উইকেট। স্লিপে বাঁ দিকে ঝাঁপিয়ে টেম্বা বাভুমাকে এক হাতের চোখ ধাঁধানো ক্যাচে ফেরান বাংলাদেশি ফিল্ডার। অথচ ম্যাচে কয়েকটি ক্যাচ ছেড়েছেন ইয়াসির, যার মধ্যে ডিন এলগারও ছিলেন। ৪ রানে বাভুমা শিকার হলেন ইবাদত হোসেনের। সাত বলের ব্যবধানে শূন্য রানে দুই উইকেট হারাল স্বাগতিকরা।

মিরাজ ফেরালেন পিটারসেনকে

শর্ট লেগে কিগান পিটারসেনকে মাহমুদুল হাসান জয়ের ক্যাচ বানালেন মেহেদী হাসান মিরাজ। দক্ষিণ আফ্রিকান ব্যাটসম্যান ৩৬ রান করে আউট। দ্বিতীয় ইনিংসে দলীয় ১২৬ রানে ৩ উইকেট হারাল প্রোটিয়ারা।

অবশেষে এলগারকে ফেরালেন তাসকিন

তাসকিনের করা ৩৮তম ওভারের তৃতীয় বল। এলগারের পায়ে লাগলেও জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। বাংলাদেশ রিভিউ নেয়, রিপ্লেতে দেখা যায় সরাসরি মাঝের স্ট্যাম্পে আঘাত করে বল। ১০২ বলে ৭ চারে ৬৪ রান করেন এলগার। এর আগে তিনি দুবার জীবন পেয়েছিলেন। দিনের শুরুতে আম্পায়ার্স কলে বেঁচে গিয়েছিলেন। অবশেষে এলগার পরাস্ত হলেন। ক্রিজে পিটারসেনের সঙ্গী বাভুমা।

দুই ক্যাচ মিস ও রিভিউ না নেওয়ার আক্ষেপে পুড়ছে বাংলাদেশ

চতুর্থ দিনের প্রথম সেশন ভালো কাটেনি বাংলাদেশের। ক্যাচ মিস, রিভিউ না নেওয়াসহ সবকিছু মিলে কেটেছে হতাশায়। এদিকে দক্ষিণ আফ্রিকার লিড বেড়েই যাচ্ছে। প্রথম সেশনে তারা মাত্র ১ উইকেট হারিয়ে ৯৯ রান করে। গতকালের ৭৫ রানসহ মোট লিড দাঁড়ায় ১৭৪। ক্রিজে আছেন ডিন এলগার ৬২ ও পিটারসেন ২১ রানে। এলগার ৩৪ ও ৪৩ রানে শান্ত-ইয়াসিরের হাতে জীবন পেয়েছিলেন। আর পিটারসেন ১৪ রানে বেঁচে যান রিভিউ না নেওয়াতে। ইতিমধ্যে দুজনের জুটি পঞ্চাশ ছাড়িয়ে গেছে। বাংলাদেশের হয়ে এই সেশনে একটি মাত্র উইকেট নেন ইবাদত হোসেন।

এলগার-পিটারসেন জুটির ফিফটি, দ. আফ্রিকার ১০০

বেশ কয়েকবার সুযোগ পেয়েও এলগারকে সাজঘরে পাঠাতে পারেনি বাংলাদেশ। পিটারসেনকেও আউটের সুযোগ হাতছাড়া করেছে রিভিউ না নিয়ে। এই জুটি থিতু হয়ে ইতিমধ্যে ৫০ অতিক্রম করেছে। সঙ্গে পূর্ণ হয়েছে দলীয় শতরানও।

রিভিউ না নিয়ে সুযোগ হাতছাড়া

কিগান পিটারসেনকে আউটের সুযোগ পেয়েও হাতছাড়া করল বাংলাদেশ। ইনিংসের ২৬তম ওভারের তৃতীয় বল। খালেদের লেন্থ বল কাট করতে চেয়েছিলেন পিটারসেন। কিন্তু বল ব্যাট মিস করে লাগে পায়ে। জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। রিভিউ নেয়নি বাংলাদেশ। পরে দেখা যায় বল মিডল স্ট্যাম্পে আঘাত হানে। ১৪ রানে বেঁচে যান পিটারসেন।

শান্ত-ইয়াসিরের হাতে জীবন পাওয়া এলগারের হাফ সেঞ্চুরি

৩৪ রানে থাকা এলগার জীবন পেয়েছিলেন নাজমুল হোসেন শান্তর হাতে। মিরাজের বলে ড্রাইভ দিলেই ধরতে পারতেন ক্যাচ। এই আক্ষেপ না মিটতেই ইয়াসির স্লিপে ক্যাচ মিস করলেন। ইবাদতের বলে দ্বিতীয় স্লিপে থাকা ইয়াসিরের হাত ফসকে যায় ক্যাচ। ৪৩ রানে জীবন পেয়ে ফিফটি তুলে নেন প্রোটয়া অধিনায়ক। ৬ চারে ৭৩ বলে ফিফটি করেন তিনি। এর আগে প্রথম ইনিংসেও তার ব্যাট থেকে ফিফটি আসে। এর মধ্য দিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার লিড দেড়শ ছড়ালো।

অবশেষে স্বস্তি এনে দিলেন ইবাদত

সারেল আরউইকে ফিরিয়ে স্বস্তি এনে দিলেন ইবাদত হোসেন। ৫১ বলে ৮ রান করেন এই ওপেনার। ইবাদতের বল আরউইর ব্যাট মিস করে পায়ে লাগে। জোরালো আবেদনেও সাড়া দেননি অনফিল্ড আম্পায়ার। রিভিউ নেয় বাংলাদেশ। এতেই সাফল্যের দেখা পায় বাংলাদেশ শিবির। দিনের শুরু থেকেই এলগার-আরউই জুটি চাপে রেখেছিল সফরকারীদের। দলীয় ৪৮ রানে আরউইয়ের আউটে সেই চাপ কিছুটা হলেও কমবে।

১০০ পেরোলো দক্ষিণ আফ্রিকার লিড

১৩তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ইবাদত হোসেনকে চার মেরে দক্ষিণ আফ্রিকার লিড ১০০ পার করেন ডিন এলগার। দিনের শুরু থেকেই প্রোটিয়া অধিনায়ক হাত খুলে খেলার চেষ্টা করছেন। অন্য ওপেনার সারেল আরউই খেলছেন দেখেশুনে। সঙ্গ দিয়ে যাচ্ছেন এলগারকে।

আম্পায়ার্স কলে বেঁচে যান এলগার

আম্পায়ার্স কলে দিনের দ্বিতীয় ওভারে বেঁচে গেলেন ডিন এলগার। মিরাজের বল এলগারের ব্যাট মিস করে প্যাডে লাগে। জোরালো আবেদনে সাড়া দেননি আম্পায়ার। রিভিউ নেন মুমিনুল হক। রিপ্লেতে দেখা যায় বল লাগতো অফ স্ট্যাম্পের বাইরের দিকে। ৭ রানে জীবন পান এলগার।

স্বাগতিকদের দ্রুত অলআউটের লক্ষ্যে মাঠে বাংলাদেশ

রোববার (৩ এপ্রিল) ডারবান টেস্টের চতুর্থ দিন মাঠে নেমেছে দক্ষিণ আফ্রিকা-বাংলাদেশ। বৃষ্টি আর আলোক স্বল্পতার কারণে তৃতীয় দিনের খেলা আগেই শেষ হয়। দ্বিতীয় ইনিংসে কোনো উইকেট না হারিয়ে ৭৫ রানে এগিয়ে থেকে চতুর্থ দিন শুরু করেছে দক্ষিণ আফ্রিকা। বাংলাদেশের লক্ষ্য স্বাগতিকদের কম রানে আটকে দিয়ে লিডটা কম রাখা। ক্রিজে আছেন সারেল আরউই ও ডিন এলগার।

২৫০ রান তাড়াও কঠিন

বাংলাদেশ ব্যাটিং কোচ জেমি সিডন্স বলেছেন এই মাঠে দ্বিতীয় ইনিংসে আড়াইশ লক্ষ্য অনেক কঠিন। তাই তার আগেই দক্ষিণ আফ্রিকাকে থামাতে হবে। সিডন্স বলেন, ‘২৫০ রান তাড়া করাও অনেক কঠিন হবে। ইতোমধ্যে টার্ন করা শুরু করেছে। শান্ত আমাদের সেরা স্পিনারদের কেউ নয়, সেও আজ স্পিন করছিল। গতকাল ও আজ স্পিনাররা ভালো করেছে। আমরা তাড়া করতে নামলে মহারাজকে মোকাবেলা করা খুব কঠিন হবে। ফাস্ট বোলারদের বল আজ থেকে নিচু হয়ে আসছিল। আমরা ৬৯ রান পিছিয়ে না থাকলে এখন জয়ের কথা ভাবতে পারতাম।’

তৃতীয় দিন শেষে এগিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকা

বৃষ্টির পর আলোক স্বল্পতার কারণে আগেই শেষ হয়েছে তৃতীয় দিনের খেলা। দক্ষিণ আফ্রিকার লিড ৭৫ রান। ৬৯ রানে এগিয়ে থেকে দ্বিতীয় ইনিংস শুরু করে দক্ষিণ আফ্রিকা। কোনো উইকেট না হারিয়ে তাদের সংগ্রহ ৬ রান।

৯৮ রানে তৃতীয় দিন শুরু করে বাংলাদেশ অলআউট হয় ২৯৮ রানে। দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে এবং তাদের মাটিতে প্রথম বাংলাদেশি হিসেবে সেঞ্চুরি করেন মাহমুদুল হাসান জয়। ৩২৬ বলে ১৩৭ রানের ইনিংস খেলে শেষ ব্যাটসম্যান হিসেবে তিনি আউট হন। এ ছাড়া ৪১ রান করেন লিটন। দক্ষিণ আফ্রিকার হয়ে একাই ৫ উইকেট নেন সিমন হার্মার। প্রথম ইনিংসে দক্ষিণ আফ্রিকা করেছে ৩৬৭ রান।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এম এস, ০৩ এপ্রিল

Back to top button