জাতীয়

ফ্লাইওভারেই পড়ে ছিলেন মিম, পাশেই ছিল তার স্কুটি

ঢাকা, ০১ এপ্রিল – করোনার কারণে দীর্ঘদিন পর বিশ্ববিদ্যালয় খোলায় বেশ উৎসাহের সঙ্গেই ছুটির দিন ক্যাম্পাসে যাচ্ছিলেন বিভাগের একটি অনুষ্ঠানে অংশ নিতে। উত্তরা থেকে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের অল্প দূরত্বও আর পাড়ি দেওয়া হলো না মায়শা মমতাজ মিমের (২২)। শুক্রবার সকাল ৭টার দিকে রাজধানীর কুড়িল ফ্লাইওভারে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত মিম রক্তাক্ত অবস্থায় ফ্লাইওভারেই পড়ে ছিলেন। পাশেই পড়ে ছিল তার স্কুটি।

খিলক্ষেত থানার এসআই মিজানুর রহমান গণমাধ্যমকে জানান, নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থী মিম স্কুটি চালিয়ে উত্তরার বাসা থেকে রওনা হয়েছিলেন। কুড়িল ফ্লাইওভারে ওঠার পর মাঝামাঝি জায়গায় দুর্ঘটনাটি ঘটে।

বাসের ধাক্কায় না অন্য কোনোভাবে তার মৃত্যু হয়েছে সে বিষয়ে এখনও নিশ্চিত হওয়া যায়নি বলেও জানান তিনি।৯৯৯ এ একটি ফোনে পুলিশ দুর্ঘটনার খবর পায়।

রক্তাক্ত অবস্থায় মিমকে কুর্মিটোলা জেনারেল হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে মৃত ঘোষণা করেন চিকিৎসক। পরে ময়নাতদন্তের জন্য মরদেহ নেওয়া হয় সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।

মিমের মামা হাবিবুর রহমান চুন্নু জানান, ক্যাম্পাসে যাওয়ার জন্যই সকালে বাসা থেকে বের হয়েছিল মেয়েটা। কীভাবে দুর্ঘটনায় পড়ল, এখনও জানতে পারেননি বলেও জানান তিনি।

মৌচাক আইডিয়াল পাবলিক স্কুল অ্যান্ড কলেজের অধ্যক্ষ নূর মোহাম্মদ মামুনের দুই মেয়ের মধ্যে বড় মিম। উত্তরা ৬ নম্বর সেক্টরে তাদের বাসা। গ্রামের বাড়ি কিশোরগঞ্জের পাকুন্দিয়ায়।

সূত্র : নতুন সময়
এম এস, ০১ এপ্রিল

Back to top button