শিক্ষা

এক বিষয়ে পরীক্ষা না দিয়েই পেলেন ঢাবির সনদ!

ঢাকা, ২৯ মার্চ – পূর্ণ পরীক্ষা না দিয়েই স্নাতকোত্তর পাসের সনদ পেয়েছেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় অধিভুক্ত ঢাকা কলেজের এক শিক্ষার্থী। খোদ ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তাকে এই সনদ দেওয়া হয়েছে।

ঢাকা কলেজের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের স্নাতকোত্তর (সেশন ২০১৬-১৭) শ্রেণির ছাত্র সানাউল্লাহ। ২০২১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে মাস্টার্স ফাইনাল পরীক্ষায় অংশ নেন তিনি। পরীক্ষা চলাকালীন গত বছরের (২০২১ সালের) ২৯ জানুয়ারি সানাউল্লাহর মা মারা যান। এসময় তিনি তার গ্রামের বাড়িতে ছিলেন। ফলে ৩০ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত ‘ভূরাজনীতি ও বাংলাদেশ’ বিষয়ের পরীক্ষায় অংশ নিতে পারেননি তিনি। পরে ঢাকায় ফিরে বাকী পরীক্ষায় অংশ নেন সানাউল্লাহ।

ঢাকা কলেজের এই শিক্ষার্থী নিশ্চিত ছিলেন যে পরের বছর পরীক্ষা দিয়ে তাকে পাস করতে হবে। তবে ঘটনা ঘটলো উল্টো৷ ফলাফল প্রকাশের পর দেখা যায় সানাউল্লাহ পরীক্ষায় পাস করেছেন। ফলাফল প্রকাশের পর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তার নামে মূল একাডেমিক ট্রান্সক্রিপ্ট এবং সাময়িক সনদপত্র ঢাকা কলেজে পৌঁছেছে।

এরপর সানাউল্লাহ যোগাযোগ করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অফিসে৷ সেখান থেকে বলা হয় পরের বছর বিশেষ পরীক্ষায় অংশ নিয়ে পাস করতে হবে তাকে।

সানাউল্লাহ বলেন, আমি তো একটি বিষয়ের পরীক্ষায় অংশই নেইনি। পরে দেখি আমি পাস করেছি৷ আমার সন্দেহ হয়, এরপর আমি ঢাবিতে যোগাযোগ করি৷ সেখান থেকে বলা হয় বিশেষ পরীক্ষায় অংশ নিতে৷ কিছুদিন আগে আমি ওই বিষয়ের পরীক্ষায় অংশ নিয়েছি৷ এখনও ফালাফল প্রকাশ হয়নি।

গত ২০ মার্চ ওই বিষয়ে বিশেষ মানোন্নয়ন পরীক্ষায় অংশ নেন সানাউলাহ৷ যদিও তার পাসের সনদ ঢাকা কলেজে!

এই পরীক্ষা কমিটির সভাপতি ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. স ম আলী রেজা। তিনি একই সঙ্গে এ পরীক্ষার টেবুলেটর ছিলেন। তার সঙ্গে ছিলেন একই বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক মোহাম্মদ আইনুল ইসলাম।

পরীক্ষা কমিটির সভাপতি বলেন, ওটা একটু ভুল হয়ে গেছে৷ হাজার হাজার পরীক্ষার্থীর মধ্যে তো এরকম ভুল মাঝে মধ্যে হয়৷ আমরা এটা সংশোধন করি। কন্ট্রোলার অফিস অসতর্কতাবশত মার্কসিট প্রোভাইড করে ফেলেছে৷ একটা ভুল হয়েছে, ওটা এখন উইথড্র করতে হবে৷

ওই শিক্ষার্থীর কজগপত্র ঘেঁটে দেখা যায়, স্নাতকোত্তর পরীক্ষায় অংশ নেওয়ার প্রবেশপত্রে মোট ৯টি বিষয়ের নাম উল্লেখ আছে। এদিকে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পাঠানো মূল গ্রেড সার্টিফিকেটে মোট ৮টি বিষয়ের নাম উল্লেখ করা আছে৷ সানাউলাহ যে বিষয়ের পরীক্ষায় অংশ নেননি সেই বিষয়ের নাম উল্লেখ নেই। বাকী আটটি বিষয় উল্লেখ করেই ফলাফল পাস আর জিপিএ ২.৭০ দেখানো হয়েছে৷ আর ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনিক ভবন থেকে সাময়িক সনদপত্রটি ৫ সেপ্টেম্বর ২০২১ তারিখে ইস্যু হয়েছে।

এই ঘটনার দায় কার?- এমন প্রশ্নের জবাবে ওই পরীক্ষা কমিটির টেবুলেটর ও বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহাম্মদ আইনুল ইসলাম বলেন, একটু ভুল তো হয়েছেই ডেফিনেটলি৷ এরকমটা আসলে বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টে বা আমাদেরও রেগুলার যেগুলো আছে এগুলোতে টুকটাক হয়ে থাকে। পরে আমরা সংশোধন করে দেই৷ একটা ভুল হতেই পারে৷ সেটা আমরা সংশোধন করে দিয়েছি৷

এ বিষয়ে জানতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক বাহালুল হক চৌধুরীকে একাধিকবার ফোন দিলেও তিনি রিসিভ করেননি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত সরকারি কলেজের প্রধান সমন্বয়কারী ও ঢাবির উপ উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. এ এস এম মাকসুদ কামাল বলেন, বিষয়টা আমরা পর্যবেক্ষণ করে দেখছি৷ ভুল কোথায়? যাদের মাধ্যমে ভুল হয়েছে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত নিয়ম অনুযায়ী আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, এ ধরনের ভুল হওয়া কোনোভাবেই কাম্য নয়৷ কারা ফলাফল তৈরি করলো, সংশ্লিষ্ট কে কে আছেন, এগুলো দেখার সুযোগ আছে৷ তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র :জাগো নিউজ
এন এইচ, ২৯ মার্চ

Back to top button