ইউরোপ

যুদ্ধ বন্ধে ফের বৈঠক

কিয়েভ, ২৯ মার্চ – ইউক্রেন-রাশিয়া যুদ্ধের এক মাসের বেশি সময় পেড়িয়ে গেলেও যুদ্ধ বন্ধে তেমন অগ্রগতি নেই। রাশিয়ার পক্ষ থেকে চলমান যুদ্ধের ‘প্রথম ধাপ’ শেষ বলা হলেও রুশ হামলার আশঙ্কা কমেনি। বরং গতকাল সোমবারও কয়েকটি শহর থেকে বেসামরিক লোকদের সরিয়ে নেওয়ার উদ্যোগ নেওয়া হলেও সম্ভাব্য রুশ হামলায় তা ভেস্তে গেছে। তবে যুদ্ধ বন্ধে তুরস্কে আবারও দুপক্ষ মুখোমুখি আলোচনায় বসছে আজ মঙ্গলবার। ইতোমধ্যে আলোচনার ফল নিয়ে রুশ কর্তৃপক্ষ আশাবাদ জানিয়েছেন।

রুশ প্রেসিডেন্ট কার্যালয়ের মুখপাত্র দিমিত্রি পেসকোভ জানিয়েছেন, আলোচনা মঙ্গলবার থেকে শুরু হবে। তিনি আরও জানান, তুরস্কের উদ্দেশে রুশ প্রতিনিধিরা ইতোমধ্যে মস্কো ত্যাগ করেছেন। পেসকোভ বলেন, মুখোমুখি বৈঠকে অর্থপূর্ণ আলোচনা হওয়ার সুযোগ থাকে তবে দুঃখের সঙ্গে বলতে হচ্ছে এখন পর্যন্ত উল্লেখযোগ অগ্রগতি হয়নি। এর আগে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও ইউক্রেনের পররাষ্ট্রমন্ত্রী পর্যায়ের বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল। তবে সেই বৈঠকে তেমন ফল হয়নি। এ ছাড়া ইউক্রেন-বেলারুশ সীমান্তেও কয়েক দফা বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়েছিল। সেখানেও কোনো অগ্রগতি হয়নি। তবে আজকের আলোচনা নিয়ে রুশ পররাষ্ট্রমন্ত্রী সের্গেই লাভরভ আশা প্রকাশ করেছেন।

এদিকে ইউক্রেনের প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা বলেছেন, ইউক্রেন তার কোনো অঞ্চলকেই কাউকে দিয়ে দেবে না। এমন মনোভাব নিয়ে আলোচনা কতটা অগ্রসর হবে তা নিয়ে উদ্বেগ রয়েছে। কেননা রুশ কর্তৃপক্ষ ইতোমধ্যে জানিয়েছে, তাদের প্রথম ধাপের যুদ্ধ শেষে এখন দনবাস এলাকায় বেশি নজর দেবে। অর্থাৎ মস্কো ঘোষিত নতুন ‘স্বাধীন রাষ্ট্র’ দনেৎস্ক ও লুহানস্কে লড়াই করবে রুশ সেনারা।

যুদ্ধে ক্ষয়ক্ষতি ৫৬৪.৯ বিলিয়ন

ইউক্রেনের অর্থ মন্ত্রণালয় জানিয়েছে, চলমান যুদ্ধে এখন পর্যন্ত ৫৬৪.৯ বিলিয়ন ডলার ক্ষতি হয়েছে। এর মধ্যে অবকাঠামো, অর্থনীতিক প্রবৃদ্ধি ও অন্যান্য খাতের ক্ষয়ক্ষতি হিসাব করা হয়েছে। এ যুদ্ধে ৮ কিমি রাস্তা ধ্বংস হয়েছে এবং ১০ মিলিয়ন বর্গ মিটার ঘর-বাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে ফেসবুক পোস্টে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

সূত্র : আমাদের সময়
এন এইচ, ২৯ মার্চ

Back to top button