দক্ষিণ এশিয়া

যেসব কারণে শ্রীলংকার অর্থনীতি বিপর্যস্ত

কলম্বো, ২৭ মার্চ – দক্ষিণ এশিয়ার দ্বীপরাষ্ট্র শ্রীলংকা চরম এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। বৈদেশিক মুদ্রার তীব্র সংকটে বেসামাল দেশটির অর্থনীতি। চারদিকে শুধুই হাহাকার। জিনিসপত্রের দাম আকাশছোঁয়া। জ্বালানি তেল ও খাদ্য সংকট তীব্র। বৈদেশিক ঋণের ভারে জর্জরিত দেশটি। পরিস্থিতি এমন অবস্থায় ঠেকেছে যে তারা নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের আমদানি ব্যয় মেটাতে পারছে না। কাগজের অভাবে দেশটির স্কুল পর্যায়ের পরীক্ষা বাতিল করতে বাধ্য হয়েছে কর্তৃপক্ষ। কারণ, কাগজ আমদানি করার মতো বৈদেশিক মুদ্রা তাদের কাছে নেই। ১৯৪৮ সালে স্বাধীনতা লাভের পর থেকে কখনও এতটা দূরবস্থায় পড়েনি দেশটি। খবর বিবিসির

শ্রীলংকার অর্র্থনীতিতে এ চরম সংকটের পেছনে মোটাদাগে ছয়টি কারণ রয়েছে বলে জানিয়েছেন বিশ্লেষকরা। এগুলো হচ্ছে- অপ্রয়োজনীয় মেগা প্রকল্প গ্রহণ, বৈদেশিক ঋণের ভারে জর্জরিত, ঋণ পরিশোধে বেহাল অবস্থা, কর কমানো, পর্যটন ও প্রবাসী আয়ে টান ও অর্গানিক চাষে বিপর্যয়।

গত ১৫ বছরে শ্রীলংকা বেশকিছু মেগা প্রকল্প হাতে নিয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে সমুদ্রবন্দর, বিমানবন্দর, রাস্তা এবং আরও নানা ধরনের প্রকল্প। দেশটির বিশ্লেষকরা বলছেন, এসব প্রকল্প বাস্তবায়নের জন্য বিভিন্ন উৎস থেকে ঋণ নিয়েছে। বিপুল অর্থ খরচ করা হলেও অনেক প্রকল্প অর্থনৈতিকভাবে লাভজনক হয়নি। কলম্বো বিশ্ববিদ্যালয়ের অর্থনীতির অধ্যাপক শ্রিমাল আবিরত্নে বলেন, কিছু বড় বড় প্রকল্প শ্রীলংকার জন্য ‘শ্বেতহস্তীতে’ রূপান্তরিত হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে হাম্বানটোটা সমুদ্রবন্দর ও বিমানবন্দর। তিনি বলেন, গত ১৫ বছর ধরে শ্রীলংকায় সরাসরি বিদেশি বিনিয়োগ তেমন একটি হয়নি। বিদেশি বিনিয়োগের পরিবর্তে বিভিন্ন সরকার ঋণ করার প্রতি মনোযোগী হয়েছে।

সূত্র : যুগান্তর
এম এস, ২৭ মার্চ

Back to top button