ইউরোপ

রাশিয়ার অনুরোধে জরুরি বৈঠকে বসছে নিরাপত্তা পরিষদ

মস্কো, ১১ মার্চ – রাশিয়ার অনুরোধে জরুরি বৈঠকে বসতে যাচ্ছে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদ। নিউইয়র্কের স্থানীয় সময় শুক্রবার এ বৈঠক হওয়ার কথা রয়েছে।

ইউক্রেনে জীবাণু অস্ত্র কর্মসূচি পরিচালনায় ওই অস্ত্রের উন্নয়ন গবেষণায় যুক্তরাষ্ট্র অর্থায়ন করছে- এমন অভিযোগে জাতিসংঘের নিরাপত্তা পরিষদের এ বৈঠকের অনুরোধ করে রাশিয়া।

ওয়াশিংটন ইউক্রেনে এ ধরনের কোনো কর্মসূচিতে অংশ নেয়ার বিষয়টি বরাবরই অস্বীকার করে আসছে। আর কিয়েভ বলছে, ওই স্থাপনায় কেবল বেসামরিক লোকজনের উন্নয়ন নিয়ে গবেষণা পরিচালিত হচ্ছে।

মার্কিন বার্তাসংস্থ এপি ও রুশ সংবাদমাধ্যম আরটি শুক্রবার এ খবর জানিয়েছে।

জাতিসংঘে মস্কোর উপ-রাষ্ট্রদূত দিমিত্রি পলিয়ানস্কি জানান, ইউক্রেনে যে ‘সামরিক জৈব কর্মসূচি’ গ্রহণ করেছে যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো জোট, তা নিয়ে জাতিসংঘে রাশিয়ার মিশনের পক্ষ থেকে নিরাপত্তা কাউন্সিলের একটি বৈঠক আহ্বান করা হয়েছে।

এর আগে ইউক্রেনে রাসায়নিক ও জীবাণু অস্ত্রের ব্যবহার নিয়ে যুক্তরাষ্ট্র ও রাশিয়া পাল্টাপাল্টি দোষারোপ করে। যুক্তরাষ্ট্রের দাবি, রাশিয়া ইউক্রেনে রাসায়নিক ও জীবাণু অস্ত্রের হামলা চালাতে পারে।

অন্যদিকে রাশিয়া বলছে, ইউক্রেনে জীবাণু অস্ত্র কর্মসূচি পরিচালনায় ওই অস্ত্রের উন্নয়ন গবেষণায় যুক্তরাষ্ট্র অর্থায়ন করছে। বৃহস্পতিবার মস্কোর পক্ষ থেকে ওয়াশিংটনের বিরুদ্ধে এ অভিযোগ আনা হয়।

তবে রাশিয়ার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে উল্টো যুক্তরাষ্ট্র বলেছে, মস্কোর অভিযোগ এটা ইঙ্গিত দেয় যে রাশিয়া সম্ভবত ইউক্রেনে রাসায়নিক ও জীবাণু অস্ত্রের হামলার পরিকল্পনা করছে।

যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তরের মুখপাত্র নেড প্রাইস এক বিবৃতিতে বলেছেন, ক্রেমলিন ইচ্ছাকৃতভাবে মিথ্যা প্রচার করছে। রাশিয়া ইউক্রেনে তাদের ভয়ঙ্কর কর্মকাণ্ডকে ন্যায্যতা দিতে মিথ্যা অজুহাত দিচ্ছে। বিষয়টি নিয়ে কথা বলেছেন হোয়াইট হাউসের প্রেস সেক্রেটারি জেন সাকিও।

তিনি বলেন, যুক্তরাষ্ট্রের জীবাণু অস্ত্র গবেষণাগার এবং ইউক্রেনে রাসায়নিক অস্ত্র তৈরি নিয়ে রাশিয়ার দাবি অযৌক্তিক।

নেড প্রাইস বলেন, ‘রাশিয়া এখন এসব মিথ্যা দাবি করছে এবং মস্কোর এসব প্রচারণায় সমর্থন দিচ্ছে চীন।’

গত বুধবার রাশিয়ার প্রতিরক্ষা মন্ত্রণালয় জানায়, ইউক্রেনে সেনারা প্রায় ৮০ টন অ্যামোনিয়া দেশটির খারকিভ শহরের জোলোচিভে স্থানান্তর করেছে।

গত ৬ মার্চ রাশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় টুইট করে জানায়, মার্কিন অর্থায়নে পরিচালিত জীবাণু অস্ত্রের চিহ্ন মুছে ফেলার চেষ্টা চালাচ্ছিল কিয়েভ। রাশিয়ার সেনারা তার প্রমাণ পেয়েছে।

নেড প্রাইস অবশ্য বলেন, রাশিয়ার ছড়ানো জীবাণু অস্ত্রের বিষয়টি ভিত্তিহীন। নিজেদের করা অপরাধ ঢাকতে পশ্চিমাদের অভিযুক্ত করার প্রয়াস আগেও করেছে ক্রেমলিন।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/১১ মার্চ ২০২২

Back to top button