সচেতনতা

যেসব লক্ষণে বুঝবেন কিডনিতে সমস্যা হয়েছে

কিডনি আমাদের শরীরের অতি গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গগুলোর মধ্যে অন্যতম। এর কোনো সমস্যা হলে তার প্রভাব পড়ে সমস্ত শরীরে জুড়ে। প্রবল ভাবে মৃত্যুঝুঁকিও রয়েছে এই সমস্যায়।

মানুষের শরীরে শারীরিক বিপাকের ফলে যে বর্জ্য তৈরি হয়, তা শরীর থেকে ফিল্টার করে বের করে দেওয়ার কাজটি করে কিডনি। যখন শারীরিক বিভিন্ন সমস্যা যেমন- উচ্চ রক্তচাপ বা ডায়াবেটিসের কারণে কিডনি ঠিকমতো কাজ করে না তখন শরীরে টক্সিন জমা হয়। কিডনি ড্যামেজের লক্ষণগুলো এত সূক্ষ্ম যে প্রাথমিকভাবে তা বোঝাই যায় না। কিডনি ড্যামেজকে বলা হয় ‘নীরব ঘাতক’।

১০ মার্চ ‘বিশ্ব কিডনি দিবস’। বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও বিভিন্ন কর্মসূচিতে বিশ্ব কিডনি দিবস পালিত হচ্ছে। প্রতি বছর মার্চের দ্বিতীয় বৃহস্পতিবার এই দিবসটি পালিত হয়।

কিডনির কোনো ধরনের সমস্যাকেই অবহেলা করা যাবে না। কিডনির সমস্যার প্রাথমিক লক্ষণ প্রকাশ পায় প্রস্রাবে। এছাড়া অন্যান্য উপসর্গগুলো বেশ মৃদু হয়। ফলে রোগী টেরই পান না যে তিনি কিডনির রোগে ভুগছেন।

বিশেষজ্ঞদের থেকে পাওয়া তথ্যে জানা যায়, ২০২১ সালে বাংলাদেশ শিশু হাসপাতাল ও ইনস্টিটিউটিতে ১ হাজার ৪৫৯ জন শিশু কিডনি রোগ নিয়ে ভর্তি হয়। তার মধ্যে ৯ শতাংশ শিশুর কিডনির ধীর কর্মক্ষমতা ধরা পরে। তাদের মধ্যে ২ শতাংশ শিশু এই রোগে মৃত্যু ঘটে। বাকিরা নিয়মিত চিকিৎসা নিয়ে সুস্থ রয়েছে।

এবার দেখে নেওয়া যাক কিডনি রোগের প্রাথমিক লক্ষনগুলো কেমন হয়-
কিডনি শরীর থেকে বর্জ্য এবং অতিরিক্ত সোডিয়াম ফিল্টার করতে সাহায্য করে। যখন কিডনি তার কাজ ঠিকভাবে করতে পারে না তখন শরীর সোডিয়াম ধরে রাখতে শুরু করে। এতে করে পায়ের গোড়ালি ফুলে যায়। এ ছাড়া চোখের ও মুখের অন্যান্য অংশে ফোলাভাব দেখা দেয়।

ক্লান্ত বা দুর্বল বোধ করা সাধারণত লিভার সমস্যার প্রাথমিক লক্ষণ। কিডনির ব্যাধি গুরুতর হওয়ার সঙ্গে সঙ্গে ব্যক্তি আরো বেশি দুর্বল এবং ক্লান্ত বোধ করতে শুরু করে। এমনকি ঘরের কাজ করা বা হাঁটাহাঁটি করা তার জন্য কষ্টের মনে হতে পারে। রক্তে টক্সিন জমা হওয়ার কারণে এ সমস্যা হয়।

শরীরে বিষাক্ত পদার্থ এবং বর্জ্য জমা হওয়ার ফলে ক্ষুধা কমে যেতে পারে, অবশেষে ওজন কমতে পারে। ক্ষুধা কম হওয়ার আরেকটি কারণ হতে পারে বমি বমি ভাব এবং বমি হওয়া। সব সময় পেট ভরা ভাব থাকবে আর খাওয়ার প্রতি কোনো আগ্রহ থাকবে না।

একজন স্বাভাবিক সুস্থ মানুষ দিনে ৬ থেকে ১০ বার প্রস্রাব করে। এর চেয়ে বেশি কিডনির ক্ষতির ইঙ্গিত হতে পারে। কিডনির সমস্যার ক্ষেত্রে, একজন ব্যক্তি হয় খুব কম বা খুব ঘন ঘন প্রসাব করতে থাকে। দুটি অবস্থায় কিডনির ক্ষতি করে। কিডনি নষ্ট হতে শুরু করলে প্রস্রাবের সঙ্গে রক্ত বের হয়ে যেতে শুরু করে।

কিডনি ক্ষতির অন্য লক্ষণগুলোর মধ্যে আছে শুষ্ক ত্বক ও চুলকানির সমস্যা। যখন শরীর থেকে বিষাক্ত পদার্থ বের হতে পারে না তখন এই সমস্যা দেখা দেয়। রক্তে টক্সিন জমা হতে হতে চুলকানি, শুষ্কতা এবং দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়। কিডনি সমস্যা থেকে হতে পারে হাড়ের রোগ।

এছাড়া কিডনি’র অন্যতম একটি রোগের নাম ‘কিডনি-তে পাথর’। এ বিষয়ে সাম্প্রতিক ধারণা থেকে জানা যায় যে, প্রস্রাবে দ্রব অত্যধিক ঘন হলে পাথরের কণা বা ক্রিস্টাল তৈরি হয়। এ অবস্থা সৃষ্টি হয় যদি শরীর থেকে প্রতিনিয়ত পানি কমে যায়। আর যার ফলে তৈরি হয় ডিহাইড্রেশন।

কিডনিতে পাথর হলে যে লক্ষন গুলো দেখা দেয়-
অনেক ক্ষেত্রেই কিডনিতে পাথরের কোনো লক্ষণ না–ও থাকতে পারে। মেরুদণ্ডে ব্যথার জন্য নিয়মিত চেকআপের সময় অনেক ক্ষেত্রে ধরা পড়ে। কিডনির পাথরের জন্য ব্যথা হলে ওপরের পেটের অথবা নিচের পিঠের ডানে বা বাঁয়ে মাঝে মৃদু ব্যথা হতে পারে।

লাল প্রস্রাব বা প্রস্রাবে হালকা রক্ত যাওয়া আরেকটি লক্ষণ। পাথর যদি প্রস্রাবের নালিতে নেমে আসে তাহলে ওপরের পেট-পিঠ থেকে কুঁচকির দিকে প্রচণ্ড ব্যথা হয় এবং সঙ্গে বমি, জ্বর ইত্যাদি থাকে। পাথর মূত্রনালি বা ইউরেটারে আটকে গেলে কিডনি ফুলে যায়। অনেক সময় ইউরোসেপসিস বা মারাত্মক সংক্রমণ হয়ে জীবনের ঝুঁকি দেখা দিতে পারে। এসব ক্ষেত্রে জরুরিভাবে ইউরোলজিস্টের পরামর্শ নিয়ে পাথর বের করতে হবে, শিরার মাধ্যমে অ্যান্টিবায়োটিক নিতে হবে।

প্রাথমিক পর্যায়ে ব্যবস্থা গ্রহণের মাধ্যমে কিডনি রোগ প্রতিরোধ করা যেতে পারে, যা শুধু সময়মতো উপসর্গ নির্ণয় করা গেলেই সম্ভব। যারা উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস এবং কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধির সমস্যায় ভুগছেন তাদের কিডনি রোগ হওয়ার ঝুঁকি বেশি। এই ব্যক্তিদের কিছুদিন পর পর স্বাস্থ্য পরীক্ষা করা উচিত। মেডিক্যাল চেক-আপ প্রাথমিক পর্যায়ে সমস্যা শনাক্ত করতে পারে, সেই সঙ্গে দ্রুত চিকিৎসা শুরু করতে সাহায্য করে।

এম এস, ১০ মার্চ

Back to top button