ইউরোপ

আবেগঘন খোলা চিঠিতে যা বললেন ইউক্রেনের ফার্স্ট লেডি

কিয়েভ, ০৯ মার্চ – ইউক্রেনের ফার্স্ট লেডি ওলেনা জেলেনস্কা রুশ আগ্রাসন নিয়ে একটি আবেগঘন চিঠি প্রকাশ করেছেন। চিঠিতে তিনি ইউক্রেনে রুশ হামলায় বেসামরিক মানুষ হত্যার নিন্দা জানান।

চিঠিতে রুশ হামলায় হতাহত হওয়া শিশুদের প্রসঙ্গ জোর দিয়ে তুলে ধরেন প্রেসিডেন্ট ভলোদিমির জেলেনস্কির স্ত্রী। তিনি এ রকম তিন শিশুর নামও উল্লেখ করেন, রুশ বোমা হামলায় যাদের প্রাণ গেছে।

তিনি বলেন, ইউক্রেন শান্তি চেয়েছিল। কিন্তু এখন তারা তাদের সীমান্ত ও পরিচয় রক্ষা করবেন।

এর আগে ৪৪ বছরের ওলেনা জেলেনস্কাকে কখনো এসব বিষয়ে কথা বলতে দেখা যায়নি। তার স্বামী জেলেনস্কির দাবি, রুশ বাহিনী তার পরিবারকে লক্ষ্যে পরিণত করছে।

ইউক্রেনের ফার্স্ট লেডি ওলেনার এ খোলা চিঠি মঙ্গলবার আন্তর্জাতিক নারী দিবসে ইংরেজি ভাষায় দেশটির প্রেসিডেন্সিয়াল ওয়েবসাইটে প্রকাশিত হয়েছে।

ওলেনা জানান, ইন্টারভিউ দেয়ার জন্য তার কাছে বেশ কিছু অনুরোধ এসেছিল। এসব অনুরোধের জবাব পাওয়া যাবে তার এ খোলা চিঠিতে।

চিঠিতে তিনি লিখেন, ‘এ আগ্রাসন বিশ্বাস করাটা ছিল কষ্টের। আমাদের দেশ ছিল শান্তিপূর্ণ; আমাদের শহর-নগর ও গ্রাম ছিলো প্রাণোচ্ছল।’

তিনি লিখেছেন, ‘রাশিয়া এটাকে বিশেষ অভিযান হিসেবে দেখানোর চেষ্টা করছে। কার্যত এটি ইউক্রেনের বেসামরিক লোকজনের গণহারে হত্যাকাণ্ড।’

ফার্স্ট লেডি ওলেনা লিখেছেন, ‘সম্ভবত এ আগ্রাসনের সবচেয়ে ভয়ানক ও বিধ্বংসী দিক হলো শিশুহত্যা।’ এর পরই তিনি তিন শিশুর পরিচয় তুলে ধরেন।

তিনি লিখেন, আট বছরের এলাইস ওখতিরকার রাস্তায় নিহত হয়েছে; তার দাদা তাকে বাঁচানোর চেষ্টা করছিলেন। আর পোলিনা কিয়েভে তার পিতা-মাতার সঙ্গে গোলায় নিহত হয়েছে।

তিনি লিখেছেন, ১৪ বছরের আরসেনিয়ার মাথায় পড়ে গিয়েছিল ধ্বংসাবশেষ। সময় মতো অ্যাম্বুলেন্স তাকে হাসপাতালে নিয়ে যেতে পারেনি। এ কারণে তার মৃত্যু হয়েছে।

চিঠিতে মূলত রাশিয়ার আগ্রাসনের জেরে ইউক্রেনের মানুষের দুর্ভোগের চিত্র উঠে এসেছে। এর আগে ইউক্রেনের ফার্স্ট লেডিকে কখনো যুদ্ধ নিয়ে এভাবে কথা বলতে দেখা যায়নি।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে সামরিক আগ্রাসন শুরু করে রাশিয়া। ইউক্রেনের রাজধানী কিয়েভসহ বিভিন্ন শহরে ক্ষেপণাস্ত্র হামলাও শুরু করে রুশ বাহিনী।

যুদ্ধে দুই পক্ষেরই ব্যাপক প্রাণহানীর খবর পাওয়া যাচ্ছে। ইতোমধ্যে যুদ্ধের কারণে ইউক্রেন ছেড়েছেন ২০ লাখের বেশি মানুষ। তারা প্রতিবেশি দেশগুলোতে আশ্রয় নিয়েছেন।

সূত্র জানায়, রুশ সীমান্তবর্তী ইউক্রেনের শহরগুলো ঘিরে রেখেছে রাশিয়ার সেনা বাহিনী; হামলা চলছে ইউক্রেনের দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর খারকিভেও।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এন এইচ, ০৯ মার্চ

Back to top button