জাতীয়

মেগা প্রজেক্টের চেয়ে এ মুহূর্তে মানুষ বাঁচানো জরুরি : জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান

ঢাকা, ০৯ মার্চ – মেগা প্রজেক্টের চেয়ে এ মুহূর্তে মানুষের জীবন বাঁচানো জরুরি বলে মন্তব্য করেছেন জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান গোলাম মোহাম্মদ কাদের।

তিনি বলেন, প্রয়োজনে মেগা প্রজেক্টগুলো বন্ধ করে ভর্তুকি প্রদানের মাধ্যমে মানুষের জীবন বাঁচানো জরুরি। ক্রয় ক্ষমতা তৈরি করা সম্ভব না হলে বাজারে পণ্য থাকলেও মানুষ তা কিনতে পারবে না। তাই আয় বৈষম্য কমিয়ে সাধারণ মানুষের সক্ষমতা বৃদ্ধি করতে হবে।

মঙ্গলবার (০৮ মার্চ) বিকালে এফডিসিতে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণে সরকারের সদিচ্ছা নিয়ে এক ছায়া সংসদে প্রধান অতিথির বক্তব্যে জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান এসব কথা বলেন। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ডিবেট ফর ডেমোক্রেসি’র চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ।

তিনি বলেন, বাজার নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে সবচেয়ে বড় বাধা দুর্নীতি। দুর্নীতি এখন সর্বত্র ছেয়ে গেছে। মধ্যস্বত্বভোগীরা সব সময়ই সিন্ডিকেটের মাধ্যমে জনগণকে প্রতারিত করে থাকে। একে প্রতিরোধে শক্তিশালী বাজার মনিটরিং টিম গঠন ও বাস্তবায়ন করা জরুরি। সরকারকে বুঝতে হবে, টিসিবির পণ্য বিক্রয়ের মাধ্যমে বাজার নিয়ন্ত্রণ সম্ভব নয়। বরং রেশনিং কার্ড প্রবর্তন করে জনগণের মাঝে পণ্য পৌছে দিলে তা আরও বেশি সহায়ক হবে। মানুষের উপলব্ধি সরকার বুঝতে পারছে না। মানুষ মনে করে সরকার এ মুহূর্তে দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রণ করতে পারছে না।

তিনি আরও বলেন, জিডিপির সত্যিকার সুফল জনগণ পাচ্ছে না। ধনীরা ক্রমাগত ধনী হচ্ছে, গরিবরা ক্রমাগত গরিব হচ্ছে। বাজার নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রে সরকারি বিভিন্ন সংস্থার সুষ্ঠু পরিকল্পনার অভাব রয়েছে, যার ফলে নিত্যপণ্যের মূল্য স্থিতিশীল থাকছে না। বর্তমান বিশ্বের অস্থিরতা ও যুদ্ধ পরিস্থিতিতে প্রয়োজনে ভর্তুকি দিয়ে হলেও দ্রব্যমূল্য জনগণের ক্রয় ক্ষমতার মধ্যে রাখতে হবে। বর্তমান পরিস্থিতি চলতে থাকলে দুর্ভিক্ষ সৃষ্টি হওয়া অস্বাভাবিক নয়। বলা যায় এখন নীরব দুর্ভিক্ষ চলছে।

সভাপতির বক্তব্যে ডিবেট ফর ডেমোক্রেসির চেয়ারম্যান হাসান আহমেদ চৌধুরী কিরণ বলেন, জ্বালানি তেলের দাম বাড়া ও রাশিয়া-ইউক্রেন পরিস্থিতির কারণে ভোগ্য পণ্যের দাম কিছুটা বাড়তে পারে। কিন্তু কি কারণে ভোজ্যতেল, শাকসবজি, মাছ-মাংসসহ নিত্যপ্রয়োজনীয় প্রত্যেকটি পণ্যের দাম প্রায় ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ বেড়ে গেল।

প্রতিযোগিতায় এশিয়ান ইউনিভার্সিটি অব বাংলাদেশকে হারিয়ে প্রাইমএশিয়া ইউনিভার্সিটির বিতার্কিকরা বিজয়ী হয়। ইউসিবি পাবলিক পার্লামেন্ট শিরোনামে প্রতিযোগিতায় বিচারক ছিলেন অধ্যাপক আবু মোহাম্মদ রইস, সাংবাদিক রিজভী নেওয়াজ, সাংবাদিক কাবেরী মৈত্রেয় ও সাংবাদিক ইসরাত জাহান উর্মি। প্রতিযোগিতা শেষে অংশগ্রহণকারী দলের মাঝে ট্রফি ও সনদপত্র প্রদান করা হয়।

সূত্র : বার্তা২৪
এন এইচ, ০৯ মার্চ

Back to top button