উত্তর আমেরিকা

তেলের জন্য ইরান ও ভেনেজুয়েলার কাছে ধরনা যুক্তরাষ্ট্রের!

ওয়াশিংটন, ০৮ মার্চ – তেলের জন্য দীর্ঘদিনের শত্রু ইরান ও ভেনেজুয়েলার কাছে ধরনা দিচ্ছে যুক্তরাষ্ট্র। ইতোমধ্যে ইরানের প্রতি নিজেদের সুর নরম করে এনেছেন জো বাইডেন প্রশাসনের কর্মকর্তারা। তেলের ব্যবস্থা করতে ভেনেজুয়েলা পর্যন্ত ছুটে গিয়েছেন তারা। শনিবার দেশটির প্রেসিডেন্ট নিকোলা মাদুরোর সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন কয়েকজন শীর্ষস্থানীয় কর্মকর্তা। ইউক্রেনে হামলাকে কেন্দ্র করে রাশিয়ার তেল সর্বোপরি রাশিয়ার সঙ্গে বাণিজ্যে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করায় বিশ্বজুড়ে রুশ তেলের সরবরাহ বিঘ্নিত হচ্ছে। ফলে বিশ্বে অপরিশোধিত তেলের দাম অতীতের যে কোনো সময়ের চেয়ে সর্বোচ্চ মূল্যে বিক্রি হচ্ছে। খবর দ্য নিউইয়র্ক টাইমস, বিবিসি ও রয়টার্সের

নিকট ইতিহাসে ইরানের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রের সম্পর্কের ভালো নজির খুব একটা পাওয়া যায় না। সর্বশেষ বিশ্ব শক্তির সঙ্গে ইরানের ২০১৫ সালের পরমাণু চুক্তি থেকে নিজেদের প্রত্যাহার করে নেয় যুক্তরাষ্ট্র। ফলে দুই দেশের সম্পর্ক একটি তিক্ত পরিস্থিতির মধ্যে পড়ে। সে সময় ইরানের ওপর অর্থনৈতিক নিষেধাজ্ঞা পর্যন্ত আরোপ করে ওয়াশিংটন। ইউক্রেন যুদ্ধের সূত্র ধরে রাশিয়ার ওপর নিষেধাজ্ঞা থাকায় ইরান থেকে তেল আনতে তেহরানের সামনে পরমাণু চুক্তি পুনরুজ্জীবিত করার ‘মুলা’ ঝুলিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র। দেশটির পররাষ্ট্রমন্ত্রী অ্যান্থনি ব্লিংকেন বলেছেন, রাশিয়ার ওপর আরোপিত নিষেধাজ্ঞার সঙ্গে ইরানের সঙ্গে সম্ভাব্য পারমাণবিক চুক্তির কোনো সম্পর্ক নেই।

এদিকে রাশিয়া থেকে তেল আমদানি কমাতে বিকল্প উৎসের খোঁজে ভেনেজুয়েলা সফরে গেছেন মার্কিন কর্মকর্তারা। অথচ বছর কয়েক আগে প্রেসিডেন্ট মাদুরোকে ক্ষমতাচ্যুত করতে দেশটির বিরুদ্ধে বেশকিছু কঠোর নিষেধাজ্ঞা দিয়েছিল যুক্তরাষ্ট্র। ইউক্রেন হামলার ঘটনায় রাশিয়াকে একঘরে করতে সেই ভেনেজুয়েলাকেই পাশে চায় যুক্তরাষ্ট্র।

সূত্র: সমকাল
এম ইউ/০৮ মার্চ ২০২২

Back to top button