ক্রিকেট

বাংলাদেশ সিরিজে প্রোটিয়াদের মাথা ব্যথা আইপিএল

কেপ টাউন, ০৭ মার্চ – ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) শুধু দক্ষিণ আফ্রিকার নয়, অনেক ক্রিকেট খেলুড়ে দেশের মাথা ব্যথার কারণ। আইপিএল এলে জাতীয় দল ছেড়ে ক্রিকেটাররা যোগ দেন ভারতের এই লিগে।

আসন্ন আইপিএলের সময়ও বড় সমস্যায় পড়তে যাচ্ছে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ড। সূচি অনুযায়ী আগামী ২৬ মার্চ থেকে শুরু হবে আইপিএল ২০২২। তার আগে ১৭ মার্চ থেকে ঘরের মাঠে বাংলাদেশের বিপক্ষে ওয়ানডে ও টেস্ট সিরিজ খেলতে নামবে প্রোটিয়ারা।

এবারের আইপিএলে দক্ষিণ আফ্রিকা দলের ১১ জন ক্রিকেটার দল পেয়েছেন নিলামে। তাই স্বাভাবিক ভাবেই বাংলাদেশ সিরিজে বিপদে পড়তে যাচ্ছে দলটি।

তবে আইপিএলে সুযোগ পাওয়া প্রোটিয়া ক্রিকেটারদের আইপিএলে খেলতে বাধা দেবে না বলেও জানিয়ে দিয়েছে প্রোটিয়া ক্রিকেট। তবে আইপিএল নাকি দেশের হয়ে খেলা, এমন একটা পরীক্ষাও দিয়ে দিয়েছে ক্রিকেট বোর্ড।

শেষ পর্যন্ত দেশ প্রেমের পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হতে পারবে কী না ক্রিকেটাররা সেটা দেখার বিষয়। তার আগে দলটির অধিনায়ক ডিন এলগার সর্বোচ্চ চেষ্টা করে যাচ্ছেন, দেশের হয়ে খেলতে সতীর্থদের উৎসাহিত করতে।

এলগারের ভাষ্য মতে, ‘ক্রিকেটারদের জন্য এটা খুবই কঠিন। যদিও এর মাধ্যমে বোঝা যাবে একজন ক্রিকেটার দেশের প্রতি কতটা আনুগত্য। যারা দেশের খেলা বাদ দিয়ে আইপিএলে খেলতে যাবে বলে সিদ্ধান্ত নিয়েছে তাদের বোঝা উচিত, দেশের হয়ে খেলেই তারা আজ আইপিএলে সুযোগ পেয়েছে। তাদের বোঝা উচিত, আইপিএল তাদের জাতীয় দলে সুযোগ করে দেয়নি।’

যদিও এলগার আইপিএলকে গুরুত্বহীন মনে করেন না। তিনি মনে করেন, আইপিএলে সুযোগ পাওয়া অনেক বড় ব্যপার তবে, দেশের খেলা শেষ করে আইপিএল খেলতে তো বাধা নেই।

‘আইপিএলকে আমি কোনোভাবেই ছোট করছি না। আমি এটাও চাই না, কেউ আইপিএল মিস করুক। কিন্তু আমার কাছে দেশের খেলাটাই সবকিছুর আগে। যারা আইপিএলে সুযোগ পেয়েছে তাদের মনে রাখা উচিত, দেশের দায়িত্ব অনেক বড় আইপিএলের চেয়ে।’

এলগারের ভয় দেশের মাটিতে পূর্ণ শক্তির দল পাওয়া নিয়ে। বিশেষ করে বাংলাদেশের বিপক্ষে দুই ম্যাচের টেস্ট সিরিজে পূর্ণ শক্তির দল ছাড়া নামতে চান না প্রোটিয়া অধিনায়ক।

‘আমি যদি আমার দলের কাউকেই না পাই তাহলে খেলাটা খুব কঠিন হয়ে যাবে। প্রতিপক্ষ যে-ই হোক আমি সেরা দল ছাড়া মাঠে নামতে পারি না। যদি দলের সেরা খেলোয়াড়দের না পাওয়া যায় তাহলে বোর্ডের ভাবা উচিত ব্যাপারটি নিয়ে।’

সূত্র : আরটিভি
এম এস, ০৭ মার্চ

Back to top button