পশ্চিমবঙ্গ

মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজ নিয়ে মামলা, কলকাতা হাইকোর্টে গেল বিজেপি

কলকাতা, ২৮ ফেব্রুয়ারি – মুকুল রায় বিজেপির টিকিটে বিধায়ক নির্বাচিত হয়েই যোগ দিয়েছিলেন তৃণমূলে। তারপরই তাঁর বিধায়ক পদ খারিজের জন্য আবেদন জানিয়ে যুদ্ধ ঘোষণা করেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। বিধানসভা থেকে হাইকোর্ট, হাইকোর্ট থেকে সুপ্রিম কোর্ট গিয়ে ফের সেই মামলা হাইকোর্টে ফিরে এল। এবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হল বিজেপি।

মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজের দাবি
মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে দলত্যাগ আইন প্রয়োগ করার দন্য কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হল বিজেপি। বিজেপির সেই এক দাবি, মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজ করতে হবে। ইতিমধ্যেই বিধানসভার স্পিকার সেই দাবি খারিজ করে দিয়েছেন। তারপর বিজেপি সুপ্রিমে কোর্টে গিয়েছিল। কিন্তু সু্প্রিম কোর্ট সেই আবেদন গ্রহণ করেনি, বিজেপিকে হাইকোর্টে আবেদন করার পরামর্শ দেয়।

মুকুল রায় এখনও বিজেপির বিধায়ক
বিধানসভার স্পিকার বিমান বন্দ্যোপাধ্যায় জানিয়েছিলেন মুকুল রায়ের বিধায়ক পদ খারিজের ব্যাপারে তেমন কোনও সুস্পষ্ট প্রমাণ নেই। মুকুল রায় এখনও বিজেপিতেই আছেন। তাই তাঁর পদ খারিজের কোনও প্রশ্ন নেই। মুকুল রায় এখনও বিজেপির বিধায়ক। ফলে শুভেন্দুব অধিকারীর আবেদন খারিজ হয়ে যায়।

স্পিকারের রায়কে চ্যালেঞ্জ করে হাইকোর্টে
বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়ের সেই রায়কে চ্যালেঞ্জ করে এবার হাইকোর্টের দ্বারস্থ হল বিজেপি। সোমবার কলকাতা হাইকোর্টের প্রধান বিচারপতি প্রকাশ শ্রীবাস্তব ও বিচারপতি রাজর্ষি ভরদ্বাজের ডিভিশন বেঞ্চে মামলাটি করা হয়। প্রধান বিচারপতির ডিভিশ বেঞ্চ মামলাটি গ্রহণ করেছে। এই সপ্তাহেই তার শুনানি হতে পারে বলে মনে করা হচ্ছে।

সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ মেনে বিজেপি হাইকোর্টে
মুকুল রায়ের বিরুদ্ধে দলত্যাগ বিরোধী আইন প্রয়োগের মামলাটি এর আগে সুপ্রিম কোর্টে করেছিল বিজেপি। মুকুল রায় বিজেপিতেই আছেন জানিয়ে বিধানসভার স্পিকার যে রায় দিয়েছিলেন, তাকে চ্যালেঞ্জ করেই শুভেন্দু অধিকারী সুপ্রিম কোর্ট মামলা করেছিলেন। তারপর সুপ্রিম কোর্টের পরামর্শ মেনে বিজেপি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হল। হাইকোর্টে এই মামলার শুনানির অপেক্ষায় বিজেপি।

মুকুল-শুভ্রাংশু যোগ দেন তৃণমূল কংগ্রেসে
মুকুল রায় একুশের নির্বাচনে বিজেপির টিকিটে কৃষ্ণনগর উত্তর কেন্দ্র থেকে জয়ী হন। তারপর ১১ জুন বিজেপি ছেড়ে তিনি যোগ দেন তৃণমূল কংগ্রেসে। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের উপস্থিতিতে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় তাঁকে তৃণমূল কংগ্রেসে বরণ করে নেন। মুকুল রায়ের সঙ্গে তাঁর পুত্র শুভ্রাংশু রায়ও যোগ দেন তৃণমূলে।

মুকুল মামলা এবার সুপ্রিম কোর্ট থেকে হাইকোর্টে
তারপর মুকুল রায়কে বিজেপি বিধায়ক হিসেবে দেখিয়ে পাবলিক অ্যাকাউন্টস কমিটির চেয়ারম্যানও করা হয়। বিধায়ক ও পিএসির চেয়ারম্যান পদ থেকে অপসারিত করার জন্যই কোমর বেঁধে নামেন বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারী। সেই মামলাই গড়িয়েছে হাইকোর্ট ও সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত।

সূত্র: ওয়ান ইন্ডিয়া
এম ইউ/২৮ ফেব্রুয়ারি ২০২২

Back to top button