কিশোরগঞ্জ

বহিষ্কারের প্রতিক্রিয়ায় যা বললেন মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান

কিশোরগঞ্জ, ২০ ফেব্রুয়ারি – দল থেকে বহিষ্কারের পর কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি ও বিএনপির সাবেক সংসদ সদস্য মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান রঞ্জন বলেছেন, ‘আমি বিএনপিতে ছিলাম, আছি এবং থাকবো।

বহিষ্কারের পর এক প্রতিক্রিয়ায় এ কথা বলেন তিনি। এ বিষয়ে মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান বলেন, ‘বিএনপির একজন সাবেক সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী টেলিফোন করে বলেছেন, আমাকে বিএনপি থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে। আমি এতে ভীত নই। আমি এখন আমার গ্রামে সবজির চারা রোপণ করছি। তাই পত্রিকা পড়ে ঘটনাটি জানতে পারিনি।’

তিনি বলেন, ‘খবরটা শুনে প্রথম প্রতিক্রিয়ায় হাসি পেয়েছে। পরে ভেবে ভালোই লাগছে বহিষ্কারের আগ পর্যন্ত বিএনপিতে গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি ছিলাম।’

তিনি বলেন, ‘এ ঘটনায় কষ্টও আছে তবে তা এখন বলবো না। কষ্ট কেন পেলাম তা আর কারও সঙ্গে শেয়ার করতে ইচ্ছা করলাম না।’

এর আগে বিএনপির কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-দপ্তর সম্পাদক বেলাল আহমেদ স্বাক্ষরিত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে মেজর (অব.) আখতারুজ্জামানকে দল থেকে বহিষ্কারের তথ্য জানানো হয়। জেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক মো. মাজহারুল ইসলাম বহিষ্কারের সত্যতা নিশ্চিত করেছেন।

বেলাল আহমেদ স্বাক্ষরিত বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজে লিপ্ত থাকার অভিযোগের প্রেক্ষিতে কিশোরগঞ্জ জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি মেজর (অব.) আক্তারুজ্জামান রঞ্জনকে বিএনপির প্রাথমিক সদস্য পদসহ সকল পর্যায়ের পদ থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে।

জানা গেছে, মেজর (অব.) আখতারুজ্জামান বিএনপির নির্বাচনে যাওয়া নিয়ে বিরুপ মন্তব্য করেন। একটি বেসরকারি টিভি চ্যানেলের টক শো’তে গিয়ে তারেক রহমানকে ইঙ্গিত করে বলেন, ‘লন্ডন থেকে ওহি আসবে এই সরকারের অধীনে নির্বাচনে যাবে বিএনপি’। এমন বক্তব্য দেওয়ার কয়েক দিন পরই তাকে বহিষ্কার করা হয়েছে বলে দলের জেলার একাধিক নেতা জানান।

তবে, সাবেক সংসদ সদস্য মেজর অব. আখতারুজ্জামানকে বহিষ্কারের ঘটনায় বিএনপির নেতাকর্মীদের মধ্যে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা গেছে। কেউ কেউ বলেন, মেজর আখতার দলের বিরুদ্ধে উল্টাপাল্টা কথা বলতেন। আবার অনেকই বলছেন তিনি দলের জন্য সঠিক কথাই বলতেন।

সূত্র : সমকাল
এন এইচ, ২০ ফেব্রুয়ারি

Back to top button