ঢালিউড

চেয়ার নিয়ে কাড়াকাড়ি, যা বললেন আলমগীর

ঢাকা, ০৯ ফেব্রুয়ারি – চলচ্চিত্রের উন্নয়নের স্বার্থে নতুন করে একজোট হয়েছে চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট সংগঠনগুলো। যার নেতৃত্ব দেবেন নায়ক-প্রযোজক-পরিচালক আলমগীর।

মঙ্গলবার (৮ ফেব্রুয়ারি) বিকালে এক বৈঠকে মিলিত হয়েছিল চলচ্চিত্রের ১৮ সংগঠনের নেতা-সদস্যরা। যেখানে সিদ্ধান্ত হয়, এই মোর্চার প্রধান বা মুখপাত্র হিসেবে এখন থেকে নেতৃত্ব দেবেন আলমগীর।

এ সময় শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে চলমান দ্বন্দ্ব প্রসঙ্গে জানতে চাইলে নায়ক আলমগীর বলেন, ‘শিল্পী সমিতির নির্বাচন নিয়ে আমার কোনো মাথাব্যথা নেই। কাজ নেই বলেই তো বিভক্তিটা হচ্ছে। কাজ না থাকলে মানুষ কি করে-খই ভাজে। কাজ নাই, তাই খই ভাজছে আরকি।’

চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্ট ১৮ সংগঠনের প্রধান হিসেবে নতুন দায়িত্ব প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘চলচ্চিত্রের হারানোর গৌরব কিভাবে ফিরিয়ে আনা যায় সেটা নিয়ে আমরা কাজ করবো। একটা সময় যেখানে ১৪০০-১৫০০ হল ছিল, ১৪-১৫ জোড়া নায়ক-নায়িকা ছিলেন। আজ এ অবস্থা কেন? এটা কী করে উন্নয়ন করা যায়, হল বাড়ানো যায়, নায়ক-নায়িকা বাড়ানো যায়, এগুলো নিয়ে কাজ করবো।’

গত ২৮ জানুয়ারি চলচ্চিত্র শিল্পী সমিতির নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনের শুরু থেকে উত্তপ্ত ছিল চলচ্চিত্র পাড়া। নির্বাচনে জায়েদ খানের কাছে হেরে গিয়ে ভোট পুনর্গণনার জন্য আপিল করেন নিপুণ। এরপরে ভোট কেনার অভিযোগ এনে জায়েদ খানের বিরুদ্ধে আপিল করেন নিপুণ। এতে আপিল বোর্ড জায়েদ খানের প্রার্থীতা বাতিল করে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নিপুণকে সাধারণ সম্পাদক ঘোষণা করেন। এরপরই আদালতের শরণাপন্ন হন জায়েদ খান। সর্বশেষ নিপুণের সাধারণ সম্পাদক পদ স্থগিত করেছেন হাইকোর্ট। একইসঙ্গে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত কেন অবৈধ হবে না, জানতে চেয়ে এক সপ্তাহের রুল জারি করেছেন আদালত।

এদিকে জায়েদ খানের প্রার্থিতা বাতিলের সিদ্ধান্ত স্থগিত করে হাইকোর্টে আপিল করেন নিপুণ। চলমান এই বিষয় নিয়ে উৎকন্ঠায় চলচ্চিত্র সংশ্লিষ্টরা।

এন এইচ, ০৯ ফেব্রুয়ারি

Back to top button