সিলেট

ধর্ষণ ও নারীর প্রতি সহিংসতার প্রতিবাদে সিলেটে মানববন্ধন

সিলেট, ০৯ অক্টোবর- সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ন্যাক্কারজনক ধর্ষণের পর নিন্দা ও প্রতিবাদের ঝড় ওঠে সারাদেশে।এরপরও প্রায় প্রতিদিন সংবাদ মাধ্যমে শিরোনাম হচ্ছে ধর্ষণের খবর।গত কয়েকদিনে সিলেটে বিভাগের বিভিন্ন জায়গায় ১৫টি ধর্ষণের ঘটনা ঘটেছে। এসব ঘটনার বিচারের দাবিতে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে ও জেলার বিভিন্ন জায়গায় প্রতিদিনই নানা কর্মসূচি পালিত হচ্ছে। বৃহস্পতিবার দিনভর রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের নেতাকর্মীরা স্লোগানে-স্লোগানে প্রকম্পিত করে তুলে সিলেটের শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ।

জানা গেছে, গত ২৫ সেপ্টেম্বর সন্ধ্যা রাতে সিলেটের এমসি কলেজ ছাত্রাবাসে ছাত্রলীগ কর্মীদের কাছে ভয়াবহ ধর্ষণের শিকার হন এক নববধূ। আসামিদের গ্রেফতার ও দ্রুত বিচারের দাবিতে ঘটনার পরদিন থেকেই সিলেটে শুরু হয় নানা কর্মসূচি। এরই মধ্যে নোয়াখালীর বেগমগঞ্জে এক নারীর উপর নারকীয় কায়দায় নির্যাতনের ঘটনা ভাইরাল হয়। এসব ঘটনায় সিলেটের মানুষ ফুঁসে উঠেছে। গত ১৩ দিন থেকে সিলেটে থেমে নেই কর্মসূচি।ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারসহ জেলার বিভিন্ন স্থানে মানববন্ধন, মশাল মিছিল, চোখে কালো কাপড় বেঁধে ধর্ষকদের প্রতিকী ফাঁসি, বিক্ষোভসহ বিভিন্ন ধরণের কর্মসূচি পালিত হচ্ছে।

বৃহস্পতিবার সকাল ১১টা থেকে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে শুরু হয় নানা কর্মসূচী। একের পর এক সংগঠন স্ব-স্ব ব্যানার নিয়ে তারা বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। সকাল ১১টায় সিলেটের বিভিন্ন ক্যাম্পাসের শিক্ষার্থীদের উদ্যোগে মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিল অনুষ্ঠিত হয়।

মিছিলটি নগরীর চৌহাট্ট থেকে শুরু করে আম্বরখানা পয়েন্টের সামনে এসে সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়। আশরাফুল ইসলাম রাহির সভাপতিত্বে ও সোহাগ আহমদ খানের পরিচালনায় মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, তানজিনা বেগম, ফামিয়া সালাম ফাম্মি, যমুনা চক্রবর্তী, রাহিমা ইসলাম, মোজ্জামেল রাহি, সোহান আহমদ প্রমুখ।

আরও পড়ুন: সিলেটের কানাইঘাটে শিশুকে যৌন নিপীড়ন, ইমাম গ্রেফতার

এরপর বিএনপির কেন্দ্রীয় কর্মসুচীর অংশ হিসেবে দেশব্যাপী নারী-শিশুদের উপর অব্যাহত অমানবিক নির্যাতনের প্রতিবাদে জেলা ও মহানগর বিএনপি এক মানববন্ধন কর্মসুচী পালন করে।

মহানগর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আব্দুল কাইয়ুম জালালী পংকী’র সভাপতিত্বে ও জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আব্দুল আহাদ খান জামালের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত মানববন্ধন কর্মসুচীতে বক্তব্য রাখেন ও উপস্থিত ছিলেন, মহানগর বিএনপির সহ-সভাপতি হুমায়ুন কবির শাহীন, এডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব, সহ-সভাপতি সিটি কাউন্সিলার রেজাউল হাসান কয়েস লোদী, আব্দুর রহিম, জিয়াউল হক জিয়া, নিহার রঞ্জন দে, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য অধ্যাপিকা সামিয়া বেগম চৌধুরী, মহানগর সহ-সভাপতি সুদীপ সেন বাপ্পু, সহ-সভাপতি আমির হোসেন ও ফাত্তাহ বকশী, মহানগর যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট আতিকুর রহমান সাবু, হুমায়ুন আহমদ মাসুক, সাংগঠনিক সম্পাদক মিফতাহ সিদ্দিকী, কাউন্সিলার সৈয়দ তৌফিকুল ইসলাম হাদী ও মুর্শেদ আহমদ মুকুল, জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কমিটির সদস্য আবুল কাশেম, মহানগর সাংগঠনিক সম্পাদক মাহবুব চৌধুরী, সদর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক এ কে এম তারেক কালাম ও ১নং সদস্য শহীদ আহমদ চেয়ারম্যান, জেলা মহিলা দলের সভাপতি সালেহা কবির শেপি, মহানগর শ্রমিক দলের সভাপতি ইউনুস মিয়া, মহানগর বিএনপির স্বাস্থ্য সম্পাদক ডা: আশরাফ আলী, স্বেচ্ছাসেবক সম্পাদক হাবিব আহমদ চৌধুরী শিলু, পরিবার কল্যান সম্পাদক লল্লিক আহমদ চৌধুরী, মহানগগর মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা নিগার সুলতানা ডেইজি, জেলা মহিলা দলের সাধারণ সম্পাদিকা আমেনা বেগম রুমি প্রমুখ। মানববন্ধনের শুরুতে পবিত্র কুরআন থেকে তেলাওয়াত করেন জেলা বিএনপির সাবেক সহ-দফতর সম্পাদক আব্দুল মালেক।

দিনভর কর্মসূচির পর বৃহস্পতিবার সন্ধায় সিলেটের শহীদ মিনারের সামনে গিয়ে দেখা যায় লোকে লোকারণ্য। ধর্ষকদের বিচারের দাবিতে বিভিন্ন কলেজের শিক্ষার্থী ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের কর্মীরা প্ল্যা-কার্ড হাতে নিয়ে কবিতা আবৃতি, প্রতিবাদী বক্তব্য দিতে দেখা গেছে। ফাঁসি, ফাঁসি- ফাঁসি চাই, ধর্ষকদের ফাঁসি চাই এমন স্লোগানে মুখরিত ছিলো শহীদ মিনার প্রাঙ্গণ। নিপীড়ন যেখানে, লড়াই হবে সেখানে, বোন তোমার ভয় নাই, ভাই তোমার মরে নাই, ছাত্র সমাজ রুখে দাঁড়াও, ধর্ষকদের তাড়িয়ে দাও, আমি আমার বোনকে বাঁচাবো বলে যুদ্ধ করি এমন লেখা সম্বলিত প্ল্যা- কার্ড ছিলো আন্দোলনকারীদের হাতে হাতে।

উপস্থিত সবার একটাই বক্তব্য আর যাতে দেশে কোন নারী তাঁর ইজ্জত না হারান। ধর্ষকদের বিচার না হওয়া পর্যন্ত তারা আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

সূত্র : সিলেটভিউ
এন এইচ, ০৯ অক্টোবর

Back to top button