বিচিত্রতা

পুলিশি ধরপাকড় থেকে বাঁচতে কলাপাতার মাস্ক!

ছড়াচ্ছে করোনাভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন। তা থেকে চারদিকে আবারও বাড়তে শুরু করেছে আক্রান্তের সংখ্যা। এ অবস্থায় প্রাণ বাঁচাতে ঘরের বাইরে অবশ্যই মাস্ক পরার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে কড়াকড়ি বাড়াচ্ছে বিভিন্ন দেশের সরকার। কিন্তু এত কিছুর পরেও সবাই আর সচেতন হচ্ছে কই! অন্তত কলাপাতার ‘মাস্ক’ পরা লোককে তো আর সচেতন বলা যায় না! সম্প্রতি এমন অদ্ভুত কাণ্ড ঘটানো মানুষের দেখা মিলেছে পাশের দেশ ভারতে।

ঘটনা পশ্চিমবঙ্গের দক্ষিণ ২৪ পরগনার। সেখানে জীবনতলা থানার মেহেরগড় এলাকার বাসিন্দা শেখ নাসিমকে কেন্দ্র করেই যত কাণ্ড।

ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের খবরে জানা যায়, বৃহস্পতিবার (২০ জানুয়ারি) সকালে সাইকেল নিয়ে বেরিয়েছিলেন নাসিম। বাজারে পৌঁছে দেখেন পুলিশ মাস্কবিহীন লোক পেলেই ধরপাকড় চালাচ্ছে। রাস্তায় রয়েছেন ওসি নিজেও।

এ অবস্থায় পুলিশের হাত থেকে বাঁচতে কলাপাতা ছিড়ে মুখ ঢাকেন শেখ নাসিম। তার মুখে ‘কলাপাতার মাস্ক’ দেখে রীতিমতো তাজ্জব বনে যান আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা।

কেন এমন করলেন জানতে চাইলে যুবক জানান, বাড়ি থেকে মাস্ক নিয়ে বের হতে ভুলে গেছেন। ভেবেছিলেন, রাস্তায় নাহলে কোনো দোকান থেকে মাস্ক কিনে পরে নেবেন। কিন্তু রাস্তায় একটিও মাস্কের দোকান খুঁজে পাননি বলে দাবি করেন নাসিম। সেজন্যই কলাপাতা দিয়ে মাস্ক বানাতে হয়েছে তাকে।

তবে ভারতীয় ওই যুবকের যুক্তি শুনে রেগে যান পুলিশ কর্মকর্তারা। শেষমেষ তাকে আটকই করা হয়।

পুলিশ জানিয়েছে, করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে মাস্ক ব্যবহারে উদ্বুদ্ধ করছেন তারা। এ কারণে পথেঘাটে, হাট-বাজারে গিয়ে মানুষকে সচেতন করার কাজ করছেন পুলিশ কর্মকর্তারা। জীবনতলাতেও একই ধরনের অভিযান চালানো হচ্ছে। তা সত্ত্বেও কিছু মানুষের এখনো মাস্ক পরায় চরম অনীহা। এ কারণে মাঝেমধ্যে কঠোর হতে হচ্ছে পুলিশকে।

এন এইচ, ২০ জানুয়ারি

Back to top button