ঢালিউড

নায়িকা শিমুকে যে কারণে হত্যা

ঢাকা, ১৮ জানুয়ারি – চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুকে পারিবারিক ও দাম্পত্য কলহের জেরে তার স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল হত্যা করেছে। প্রাথমিকভাবে এই হত্যার দায় স্বীকার করেছেন তিনি।

মঙ্গলবার ঢাকা জেলা পুলিশ সুপার কার্যালয়ে এসব কথা বলেন ঢাকা জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) মারুফ হোসেন সরদার।

এসপি মারুফ বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেপ্তার শিমুর স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল মডেল শিমুকে হত্যার বিষয়টি স্বীকার করেছেন।

এর আগে অভিনেত্রী রাইমা ইসলাম শিমুর মরদেহ উদ্ধারের ঘটনায় তার স্বামী সাখাওয়াত আলী নোবেল এবং বন্ধু ফরহাদকে গ্রেপ্তার করা হয়। সোমবার দিবাগত রাতে র‌্যাব তাদের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে আটক করে। পরে শিমুর স্বামী সাখাওয়াত জিজ্ঞাসাবাদে হত্যার কথা স্বীকার করেন বলে দাবি করেছে পুলিশ। আটকের সময় তাদের কাছ থেকে একটি ‘রক্তমাখা প্রাইভেটকার’ উদ্ধার করা হয়েছে। গাড়িটিতে রক্তের চিহ্ন আছে।

এর আগে সোমবার সকাল ১০ টায় কেরানীগঞ্জ থেকে চিত্রনায়িকা রাইমা ইসলাম শিমুর মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে তার মরদেহ উদ্ধার করে ঢাকায় স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ (মিটফোর্ড) হাসপাতালে মর্গে রাখা হয়।

পরিবারসূত্রে জানা যায়, গত রোববার (১৬ জানুয়ারি) কলাবাগানের বাসা থেকে নিখোঁজ হন শিমু। এই ঘটনায় কলাবাগান থানায় একটি সাধারণ ডায়েরি (জিডি) করা হয়। পরদিন শিমুর বস্তাবন্দি লাশ উদ্ধার করে পুলিশ।

এ বিষয়ে নিহত শিমুর ভাই শহিদুল ইসলাম খোকন রাতে সাংবাদিকদের জানায়, তার বোন জামাই নোবেল প্রায়ই শিমুকে মারধর করতেন। সে মাদকাসক্ত। র‌্যাব ও পুলিশের কাছে তারা হত্যার কথা স্বীকার করেছে।

এম ইউ/১৮ জানুয়ারি ২০২২

Back to top button