ক্রিকেট

হতশ্রী ব্যাটিংয়ের জন্য ‘পিচ’কে দুষলেন প্রিন্স

ক্রাইস্টচার্চ, ১০ জানুয়ারি – হরহামেশাই হতাশ হয়ে দর্শকরা বলে থাকেন বাংলাদেশ ব্যাটিং করলে পিচ হয়ে যায় বোলিং, আর বোলিং করলে পিচ হয়ে যায় ব্যাটিং! আসলে কি তাই সম্ভব? না মোটেও না, তবে সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পিচের আচরণগত খানিকটা পরিবর্তন তো আসে। কিন্তু তার মানে এই নয় যে একটা দলের ব্যাটিং লাইনআপ বিপরীত দলের উল্টো হয়ে ধসে পড়বে। তবুও দ্বিতীয় দিন শেষ উইকেটের আচরণ বদলে যাওয়াকেই দুষলেন টাইগারদের ব্যাটিং কোচ অ্যাশলে প্রিন্স।

ক্রাইস্টচার্চের সবুজ উইকেটে পেস বোলাররা সুবিধা পাবে, এমন সমীকরণের সামনে দাঁড়িয়ে আগে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। কিন্তু ব্যাট করতে এসে ভাবনাই বদলে দিলো নিউজিল্যান্ড। প্রথমদিনে এক উইকেট হারিয়ে তোলে ৩৪৯ রান। যদিও দ্বিতীয় দিনের শুরুটা বেশ ভালো হয় বাংলাদেশের। কিন্তু সব মিলিয়ে পাঁচ উইকেট নিতে পেরেছিল দেড় সেশনে। পরে নিজ থেকে ইনিংস ঘোষণা করে নিউজিল্যান্ড। ততক্ষণে স্কোর বোর্ডে রান সংখ্যা ৫২১।

কিউইদের বিশাল লিডের বিপরীতে ব্যাট করতে এসে পেস অ্যাটাকের সম্মুখীন হয় টাইগার ব্যাটাররা। এক প্রান্ত থেকে ট্রেন্ট বোল্ট ও অন্যপ্রান্ত থেকে টিম সাউদির আক্রমণে দিশেহারা হয়ে উঠেন সাদমান-শান্তরা। প্রথম ১১ ওভার চার উইকেট হারানোর পর ৪১ ওভার দুই বলে ১২৬ রান তুলতেই গুটিয়ে যায় টাইগাররা।

সবুজ পিচে নিউজিল্যান্ড দুর্দান্ত ব্যাট করলেও ব্যর্থ হয়েছে বাংলাদেশ। দলের হয়ে নুরুল হাসান সোহান ও ইয়াসির আলী রাব্বি ছাড়া কেউই দুই অঙ্ক ছুঁতে পারেনি। শুধু তাই নয়, অভিষিক্ত নাঈম শেখসহ তিনজনই ফিরেছেন শূন্য রানে। দলের এমন ব্যাটিং পারফরম্যান্সের পর উইকেটের প্রিন্স বলেন, ‘আমাদের ব্যাটিং লাইন আপটা বেশ কঠিন দিন পার করেছে আজকে। অবশ্যই নিউজিল্যান্ড শুরুটা বেশ ভালো করেছে। উইকেট নিয়ে বেশ সন্দেহ ছিল। গতকাল পিচটা কিছুটা নরম ছিল। কিন্তু আজ অনেক দ্রুত হয়ে উঠেছে।’

তিনি বলেন, ‘গতকালের নরম ভাবটার (পিচের) কারণে আজ কিছু বিভাজন ছিল উইকেটে। যখন পিচ একটু শক্ত এবং দ্রুত হয়ে যায়, এবং বল পিচে আঘাত করে, তখন এটা সত্যিই কঠিন হয়ে পড়ে। কিউইদের বলে সুইংও ছিল। তারা আজ বাস্তবিক পক্ষেই দুর্দান্ত বোলিং করেছে।’

ব্যাটসম্যানদের পাশে দাঁড়িয়ে এই কোচ বলেন, ‘অবশ্যই আমরা হতাশ। গত সপ্তাহে আমরা দুর্দান্ত ইফোর্ট দিয়েছিলাম। আমরা কোয়ালিটি বোলিং আক্রমণের বিরুদ্ধে ১৭৩ ওভার খেলেছিলাম। আমার মনে হয় এটা স্বীকার করে নেওয়ার ঠিক হবে যে আমরা আশাই করছিলাম নিউজিল্যান্ড খেলায় ফিরতে মরিয়া হওয়ায় সর্বশক্তি নিয়ে মাঠে নামবে। আপনি যদি দুটি ম্যাচের তুলনা করেন তবে আপনি দেখতে পাবেন যে, আপনি এক নম্বর দল হলেও আপনার ফিরে আসার পথে লড়াই করা সত্যিই কঠিন। এই ম্যাচে, তাদের শুরুটা হয়েছিল দুর্দান্ত। বল টু বল তারা খেলেছে। তারা আমাদের জন্য ম্যাচটা কঠিন করে তুলেছে। আমাদের আরও একটা দিন লড়তে হবে।’

সূত্র : আমাদের সময়
এন এইচ, ১০ জানুয়ারি

Back to top button