শিক্ষা

৭৫ লাখ ৫৪ হাজারের বেশি শিক্ষার্থী টিকা পায়নি

ঢাকা, ১০ জানুয়ারি – সারাদেশে ১২ বছরের উপরে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ১ কোটি ১৬ লাখ। এরমধ্যে এক ডোজ টিকা নিয়েছেন এমন শিক্ষার্থীর সংখ্যা মাত্র ৪০ লাখ। আর এখনো টিকা কার্যক্রমের বাইরে রয়েছে প্রায় ৭৬ লাখ শিক্ষার্থী। অর্থাৎ টিকার আওতায় আসেনি ৬৫ শতাংশের বেশি স্কুল কলেজের শিক্ষার্থীরা।

সোমবার শিক্ষামন্ত্রণালয়ে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলন থেকে এমন তথ্যই জানা গেছে। তবে এ বিষয়ে দ্রুত টিকা কার্যক্রম সম্পন্ন করতে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি।

এ বিষয়ে তিনি জানান, এখন পর্যন্ত ৪৮ লাখ ১৯ হাজার ৫৫৪ জন টিকা পেয়েছে। তার মধ্যে প্রথম ডোজ পেয়েছে ৪৪ লাখ আর দ্বিতীয় ডোজ পেয়েছে ৪ লাখ ১৯ হাজার ৫৫৪ জন। এখনো একটি ডোজও পায়নি ৭৫ লাখ ৫৪ হাজার ৬০৬ জন শিক্ষর্থী।

সকল জেলায় সমানভাবে শিক্ষার্থীদের টিকা দেয়া সম্ভব হয়নি জানিয়ে তিনি বলেন, কোথাও বেশি আবার কোথাও কম টিকা দেয়ার ঘটনা ঘটেছে। তার মধ্যেও দুটি জেলায় ৯০ শতাংশ, ৪টি জেলায় ৮০ থেকে ৯০ শতাংশ, ছয়টি জেলায় ৭০ থেকে ৮০ শতাংশ, ৭টিতে ৬০ থেকে ৭০ শতাংশ, ৪টিতে ৫০ থেকে ৬০ শতাংশ, ৪টিতে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ, ১০টিতে ৩০ থেকে ৪০ শতাংশ, ১১টিতে ২০ থেকে ৩০ শতাংশ, ১২টিতে ১০ থেকে ২০ শতাংশ শিক্ষার্থীকে টিকার আওতায় আনা হয়েছে।

আইডি কার্ড দেখালেই শিক্ষার্থীদের টিকা

ওমিক্রন ভাইরাস প্রতিরোধ ও টিকা কার্যক্রমকে ত্বরান্বিত করতে এ বিষয়ে কার্যকরি উদ্যোগ হাতে নিয়েছে শিক্ষামন্ত্রণালয়। মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা অনুযায়ী শিক্ষার্থীরা আইডি কার্ড নিয়ে টিকা কেন্দ্রে গেলেই টিকা পাবে। কারো আইডি কার্ড না থাকলে সেক্ষেত্রে রেজিস্ট্রেশন কার্ড দেখালে টিকা দেয়া হবে।

এ বিষয়ে শিক্ষামন্ত্রী বলেন, আপাতত আমরা শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ করছি না। আমরা এ মাসের মধ্যেই সব শিক্ষার্থীর টিকার প্রথম ডোজ সম্পন্ন করবো। এবং এটি কিভাবে করা যায় সেটি নিয়ে আগামীকাল আবার বৈঠক করবো। এবং সার্বিক পরিস্থিতি নিয়ে পরামর্শক কমিটির সঙ্গে আগামী সপ্তাহে আবার বৈঠক করবো। স্বাস্থ্যবিধি মেনে সীমিত আকারে শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাসে পাঠদান চলছস। এবং এটি ধারাবাহিকভাবে চলবে।

তিনি বলেন, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলা রেখে শিক্ষার্থীদের ভ্যাকসিনেশনের প্রতি জোর দেয়া হবে। যারা টিকা নিয়েছে তারা সশরীরে ক্লাসে উপস্থিত হবে। যারা এখনো টিকা নিতে পারেনি এবং অসুস্থ আছেন তারা বাসায় বসে অনলাইনে ক্লাসে যুক্ত হবে।

শিক্ষার্থীদের টিকাদান: তিন বিশ্ববিদ্যালয়ের সাথে বৈঠক কাল

এদিকে তিন বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের কত দ্রুত টিকার আওতায় নিয়ে আসা যায় সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আগামীকাল বৈঠকে বসছে শিক্ষা মন্ত্রণালয়।

এ বিষয়ে মন্ত্রী বলেন, পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়, জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ে মোট শিক্ষার্থীর সংখ্যা ৪৪ লাখ ৩৪ হাজার ৪৫১ জন। এর মধ্যে ১ম ডোজ টিকা দেওয়া হয়েছে ২৩ লাখ ২৮ হাজার ৪৬৮ জনকে। দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিয়েছেন ১৭ লাখ ১৩ হাজার ৩০২ জন। মোট নিবন্ধন করেছেন ২৭ লাখ ৩১ হাজার ২৮৭ জন। পাবলিক এবং বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ৯৫ ভাগের বেশি শিক্ষার্থীর টিকা প্রদান সম্পন্ন হয়েছে। তাই জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, উন্মুক্ত বিশ্ববিদ্যালয় এবং ইসলামি আরবি বিশ্ববিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের টিকাদান দ্রুত সম্পন্ন কিভাবে করা যায় সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে আগামীকাল বৈঠকে বসব।

তিনি আরও বলেন, জানুয়ারির মধ্যে শিক্ষার্থীদের টিকাদান কার্যক্রম শেষ করার চেষ্টা চলছে। এর মধ্যে ৩৯৭ উপজেলায় ১৫ জানুয়ারির মধ্যে, ৩ উপজেলায় ১৭ জানুয়ারি, ৫৬ উপজেলায় ২০ জানুয়ারি, ১৫ উপজেলায় ২২ জানুয়ারি, ৩৫ উপজেলায় ২৫ জানুয়ারি এবং ১১ উপজেলায় ৩১ জানুয়ারির মধ্যে টিকাদান সম্পন্ন করতে হবে বলেও জানান মন্ত্রী।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/১০ জানুয়ারি ২০২২

Back to top button