ক্রিকেট

বাংলাদেশের বোলিং নিয়ে যা বললেন দুই কোচ গিবসন ও হেরাথ

ক্রাইস্টচার্চ, ০৯ জানুয়ারি – মাউন্ট মঙ্গানুইয়েরপ্রথম টেস্টে ৮ উইকেটে জিতে ১-০’তে এগিয়ে বালাদেশ। সিরিজ ড্র রাখতে ক্রাইস্টচার্চের হ্যাগলি ওভালে শেষ টেস্টে জয় ছাড়া পথ নেই নিউজিল্যান্ডের। ওদিকে মেঘ ও বৃষ্টি চোখ রাঙ্গাচ্ছে। এই টেস্টের এক দু’দিন ভেসে যেতে পারে বৃষ্টিতে।

বিশেষ করে চতুর্থ দিন, মানে ১২ জানুয়ারী বৃষ্টির সম্ভাবনা প্রবল। আবহাওয়ার পূর্বাভাস এমনটাই জানিয়েছে। ম্যাচ জিততে মরিয়া ব্ল্যাক ক্যাপ্সরা বৃষ্টিতে এক দুই দিন ভেসে যাওয়ার কথা চিন্তা করেই হোক কিংবা নিজেদের সামর্থ্যের সেরাটা উজাড় করে দিয়েই হোক, প্রথম টেস্টে শুভ সূচনা করেছে।

মুমিনুলের দলকে খানিক আশাভঙ্গের বেদনায় নীল করে রোববার প্রথম দিনই প্রায় সাড়ে তিনশো (৩৪৯) রান করে ফেলেছে কিউইরা। অধিনায়ক টম ল্যাথাম দারুণ খেলে নটআউট রয়েছেন ১৮৬ রানে। আর কনওয়েও শতরানের দোরগোড়ায় ৯৯ রানে অপরাজিত। আরেক ওপেনায় উইল ইয়াং আউট হয়েছেন ৫৪ রানে।

প্রথম টেস্টে দারুণ বল করে জয় উপহার দেয়া এবাদত, তাসকিন ও শরিফুলের হঠাৎ কী হলো? ঘাসের উইকেটে কোথায় তারা জ্বলে উঠবেন! বল হাতে বারুদ ছড়াবেন! তা না, এবাদত ২১ ওভারে ১১৪ রান দিয়ে বসেছেন।

একমাত্র বোলার হিসেবে তাসকিন এক উইকেট পেলেও শরিফুল আর মেহেদি মিরাজও উইকেটশূন্য। হঠাৎ কী হলো যে, ঘাসের পিচেও বোলাররা অনুজ্জ্বল? নাকি টম ল্যাথামের দল একটু বেশি ভাল খেলেছে? প্রশ্ন প্রতিটি বাংলাদেশ ভক্তর।

টাইগারদের পেস ও স্পিন বোলিং কোচ ওটিস গিবসন আর রঙ্গনা হেরাথ মনে করছেন, দুটি মিলিয়ে প্রথমদিন শেষে ব্যাকফুটে বাংলাদেশ। ওয়েস্ট ইন্ডিয়ানদের ভাল ব্যাটিং ও এবাদত, তাসকিন, শরিফুল ও মেহেদি মিরাজের বাজে বোলিং- দুটো মিলেই দিন শেষে স্বাগতিকরা মজবুত অবস্থানে।

ওয়েস্ট ইন্ডিয়ান ফাস্টবোলিং কোচ ওটিস গিবসন বলেন, ‘আমার মনে হয়, দুটি মিলিয়েই (ভালো ব্যাটিং, বাজে বোলিং)। ওরা অবশ্যই খুব ভালো খেলেছে। দুর্ভাগ্যজনকভাবে, গত সপ্তাহে আমরা গোছানো বোলিংয়ের যে নজির দেখিয়েছিলাম এবার তা পারিনি। ল্যাথাম খুব ভালো খেলেছে। সকালে আমাদের অনেক ভালো বল সে ছেড়েছে এবং আমাদেরকে বাধ্য করেছে তার কাছাকাছি বল করতে। আর যেটা বললাম, গত সপ্তাহে যে চাপ সৃষ্টি করতে পেরেছিলাম, এবার তা করার মতো যথেষ্ট ভালো বল আমরা করতে পারিনি। আর কনওয়ে অবিশ্বাস্য ফর্মে আছে, তাই না? সে উইকেটে গিয়ে সবকিছুই সহজ করে তুলেছে।’

নিজ দলের বোলারদের পাশাপাশি উইকেটের আচরণ নিয়েও কথা বলেছেন গিবসন। তারও উপলব্ধি, এমনিতে সবুজ ঘাষে আচ্ছাদিত থাকলেও উইকেটে সেভাবে পেসারদের জন্য তেমন কিছু ছিল না।

উইকেট পেসারদের পক্ষে নেয়নি- এটাকে অজুহাত হিসেবে না নিলেও গিবসন বলেন, ‘আমার মনে হয়, উইকেটের সবুজ দেখলে যেমনটি মনে হয়, বল ততটা (সহায়তা) করেনি আজকে। যতটা প্রত্যাশা ছিল, ততটা করেছে বলে মনে হয় না আমাদের। তবে এটিকে অজুহাত হিসেবে দাঁড় করাতে চাই না। যতটা ভালো বোলিং করা উচিত ছিল, ততটা ভালোও আমরা করতে পারিনি।’

তবে স্পিন কোচ রঙ্গনা হেরাথ অবশ্য নিজ দলের বোলারদের কোন ভুল ধরেননি। বরং নিউজিল্যান্ড ব্যাটসম্যানদেরই কৃতিত্ব দিয়েছেন বেশি।

এ লঙ্কান বলেন, ‘সত্যি বলতে, দিনটি আমাদের জন্য ভালো ছিল না। তবে সবমিলিয়ে কৃতিত্ব দিতে হবে টম ল্যাথাম ও ডেভন কনওয়েকে। তারা খুব ভালো ব্যাট করেছে। ছেলেরা, বিশেষ করে ফাস্ট বোলাররা শতভাগ দিয়েছে, স্পিনাররাও। আমি নিশ্চিত, এই ছেলেরা কালকে ঘুরে দাঁড়াবে এবং তারা নিজেদের সেরাটা দেখাবে।’

সূত্র : জাগো নিউজ
এন এইচ, ০৯ জানুয়ারি

Back to top button