জাতীয়

পঞ্চম ধাপের ইউপি নির্বাচনে জয় পেলেন যারা

ঢাকা, ০৬ জানুয়ারি – পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়েছে। এই দফায়ও অনিয়ম, সহিংসতার খবর পাওয়া গেছে। প্রতিনিধিদের দেওয়া তথ্যমতে, চট্টগ্রাম, ভোলা, ফেনী, মানিকগঞ্জসহ বেশ কয়েকটি জেলায় নির্বাচনী অনিয়ম, সংঘর্ষ, ধাওয়া-পাল্টাধাওয়ার ঘটনা ঘটেছে। এতে ভোটগ্রহণ বন্ধ করাসহ দায়িত্বরত কর্মকর্তাদের প্রত্যাহার করে নেওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। এ পর্যন্ত নির্বাচনি সহিংসতায় ৯ জন নিহত হয়েছেন। বুধবার (৫ জানুয়ারি) সকাল ৮ থেকে শুরু হয়ে বিরতিহীনভাবে বিকেল ৪টা পর্যন্ত ভোটগ্রহণ চলে।

এদিকে ভোট গণনা শেষে রাতে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কর্মকর্তারা। প্রতিনিধিদের পাঠানো খবর-

কুষ্টিয়া

পঞ্চম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে কুষ্টিয়া সদর উপজেলায় ১১ ইউনিয়নের মধ্যে আওয়ামী লীগ মাত্র ১টিতে বিজয়ী হয়েছে। বাকি ১০টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। বিজয়ী স্বতন্ত্র ১০ জনের মধ্যে ৮ জন প্রার্থী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী হয়ে স্বতন্ত্র প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেয়। বুধবার (৫ জানুয়ারি) উৎসব মুখর পরিবেশে ভোট গ্রহন ও গণনা শেষে নির্বাচনী কর্মকর্তারা বেসরকারীভাবে এই ফলাফল ঘোষণা করেন।

কুষ্টিয়া সদর উপজেলার ১১ ইউনিয়নের মধ্যে বেসরকারিভাবে যারা নির্বাচিত হয়েছেন তারা হলেন, গোস্বামী দুর্গাপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে লাল্টু রহমান, উজানগ্রাম ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকে সানোয়ার হোসেন মোল্লা, মনোহরদিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে জহুরুল ইসলাম জহুর, হরিনারায়ণপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মটরসাইকেল প্রতীকে মেহেদী হাসান সম্রাট, আইলচারা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনারস প্রতীকে সিদ্দিকুর রহমান, হাটশ হরিপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মটরসাইকেল প্রতীকে এম মোস্তাক হোসেন মাসুদ, ঝাউদিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী চসমা প্রতীকে মেহেদী হাসান, আলামপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী চসমা প্রতীকে আক্তারুজ্জামান বিশ্বাস, বটতৈল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে মিজানুর রহমান মিন্টু ফকির, আব্দালপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মটরসাইকেল প্রতীকে আলী হায়দার স্বপন ও পাটিকাবাড়ি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী ঘোড়া প্রতীকে রোকনুজ্জামান কানু বেসরকারীভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

নির্বাচন সুষ্ঠু করতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী কঠোর অবস্থানে ছিলো। কুষ্টিয়া সদর উপজেলা নির্বাচন কর্মকর্তা সহিদুর রহমান বলেন, একটা উৎসব মুখর পরিবেশে সুষ্ঠু ভোট অনুষ্ঠিত হয়েছে।

ব্রাহ্মণবাড়িয়া

পঞ্চম ধাপে বুধবার (৫ জানুয়ারি) অনুষ্ঠিত ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ও আশুগঞ্জ উপজেলার ১৮টি ইউনিয়নের মধ্যে ছয়টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত চেয়ারম্যান প্রার্থী এবং ১২টিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ জিল্লুর রহমান এ ফলাফল নিশ্চিত করেন।

ফলাফল অনুযায়ী, ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর উপজেলার মজলিশপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. কামরুল হাসান, সুহিলপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী আব্দুর রশীদ ভূঁইয়া, বুধলে স্বতন্ত্র প্রার্থী আতিকুর রহমান, তালশহর পূর্বে স্বতন্ত্র প্রার্থী মনিরুল ইসলাম, নাটাই উত্তরে স্বতন্ত্র আবু ছায়েদ, সাদেকপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. নাছির উদ্দিন এবং রামরাইল ইউনিয়নে স্বতন্ত্র মো. মশিউর রহমান সেলিম বিজয়ী হয়েছেন।

সুলতানপুরে আওয়ামী লীগের প্রার্থী শেখ ওমর ফারুক ও মাছিহাতায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী আল আমিনুল হক এবং বাসুদেবে স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হাকিম মোল্লা চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন।

আশুগঞ্জ সদর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী শফিকুল ইসলাম, চরচারতলায় স্বতন্ত্র প্রার্থী ফাইজুর রহমান, তালশহর পশ্চিমে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সোলাইমান মিয়া, আড়াইসিধায় স্বতন্ত্র প্রার্থী আবু সায়েম, দুর্গাপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী রাসেল মিয়া, তারুয়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী বাদল সাদির, শরীফপুরে স্বতন্ত্র প্রার্থী সাইফ উদ্দিন এবং লালপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোরশেদ মিয়া বিজয়ী হয়েছেন।

ভোলা

ভোলায় ১২ ইউপি নির্বাচনে ৯টিতে আওয়ামী লীগ প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। অপর তিনটিতে দলের বিদ্রোহী প্রার্থীরা এগিয়ে রয়েছেন বলে রাত সাড়ে ৮টায় বেসরকারিভাবে বিভিন্ন কেন্দ্র থেকে প্রাপ্ত তথ্যে জানা গেছে।

বিজয়ীরা হলেন, শিবপুর ইউনিয়নে মো. জসিম উদ্দিন (আওয়ামী লীগ), ঘুইংগারহাট ইউনিয়নে লিয়াকত হোসেন মনছুর (আওয়ামী লীগ), দক্ষিণ দিঘলদী ইউনিয়নে ইফতেখার হাসান স্বপন (আওয়ামী লীগ), আলীনগর ইউনিয়নে বশির আহম্মেদ (আওয়ামী লীগ), চরসামাইয়া ইউনিয়নে মহিউদ্দিন মাতাব্বর (আওয়ামী লীগ), ভেলুমিয়া ইউনিয়নে আব্দুস সালাম মাস্টার (আওয়ামী লীগ), পশ্চিম ইলিশা ইউনিয়নে মো. জহিরুল ইসলাম জহির ( আওয়ামী লীগ) , বাপ্তা ইউনিয়নে ইয়ানুর রহমান বিপ্লব (আওয়ামী লীগ), ধনিয়া ইউনিয়নে এমদাত হোসেন কবির ( আওয়ামী লীগ)।

অপরদিকে ইলিশা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আনোয়ার হোসেন, ভেদুরিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মোস্তফা কামাল ও রাজাপুরে রেজাউল হক মিঠু চৌধুরী এগিয়ে আছেন বলে জানা গেছে।

ফরিদপুর

ফরিদপুরের মধুখালী উপজেলার ৪টি ও সদরপুর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। নির্বাচনের ফলাফলে ৫টিতে আওয়ামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী ও ৮টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

এদের মধ্যে মধুখালী উপজেলার কামারখালী ইউনিয়নে বিএনপি নেতা মো. রাকির হোসেন চৌধুরী (চশমা), রায়পুরে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জাকির হোসেন মিয়া (আনারস), বাগাটে মো. মতিয়ার রহমান খান (নৌকা) ও জাহাপুরে মো. শামসুল ইসলাম বাচ্চু (নৌকা) বিজয়ী হয়েছেন।

অন্যদিকে সদরপুর উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে বিজয়ীরা হলেন- ভাষানচর ইউনিয়নে শেখ আবদুল মান্নান (মোটরসাইকেল), কৃষ্ণপুরে আক্তারুজ্জামান তিতাস (নৌকা), ঢেউখালীতে মো. মিজানুর রহমান (নৌকা), সদরপুরে কাজী জাফর (মোটরসাইকেল), চরবিষ্ণুপুরে শেখ আব্দুল আলীম (চশমা), আকোটেরচরে মো. আসলাম ব্যাপারী (নৌকা), চরমানাইতে মোহাম্মদ রফিকুল ইসলাম (চশমা), চরনাসিরপুরে মো. রোকনুদ্দীন (আনারস) ও নারকেলবাড়িয়ায় মো. নাসিরুদ্দিন (চশমা)।

পিরোজপুর

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ার ৪টি ও ভান্ডারিয়া ১ ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণ ভাবে ভোটগ্রহণ সম্পন্ন হয়েছে। নির্বাচনে বেসরকারিভাবে বিজয়ীরা হলেন উপজেলার ২ নং ধানীসাফা ইউনিয়নে হারুন অর রশিদ তালুকদার (নৌকা), ৪ নং দাউদখালী ইউনিয়নে ফজলুল হক খান রাহাত (নৌকা), ৬নং টিকিকাটা ইউনিয়নে রফিকুল ইসলাম রিপন জমাদ্দার (নৌকা) ও ১১ নং বড়মাছুয়া ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী নাসির হোসেন হাওলাদার (চশমা)।

অন্যদিকে ভান্ডারিয়ার ইকড়ি ইউনিয়নে চশমা প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল হাই হাওলাদার বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন।

হবিগঞ্জ

হবিগঞ্জের ২১টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবি হয়েছে। এর মাঝে চুনারুঘাটের ১০টি ইউনিয়নের মাত্র ৪টিতে নৌকা প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন। আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী জয়ী হয়েছেন ৩টিতে। বিএনপি ২টি এবং জামায়াত ১টিতে জয়ী হন।

তারা হচ্ছেন গাজীপুর ইউনিয়নে বিএনপি মক্কার জেদ্দা নগর সাধারণ সম্পাদক মোহাম্মদ আলী, আহম্মদাবাদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী জাকির হোসেন পলাশ, দেওরগাছে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী মো. মহিতুর রহমান সুমন ফরাজি, পাইকপাড়ায় আওয়ামী লীগ দলীয় মো. ওয়াহেদ আলী মাস্টার, শানখলায় জামায়াত সমর্থিত অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম, চুনারুঘাট সদর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী মাহবুবুর রহমান চৌধুরী, উবহাটায় বিএনপি নেতা এজাজ ঠাকুর চৌধুরী, সাটিয়াজুরী আওয়ামী লীগ দলীয় আবদালুর রহমান, রাণীগাও আওয়ামী লীগ দলীয় মোস্তাফিজুর রহমান রিপন, মিরাশি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগ দলীয় মানিক সরকার।

জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোহাম্মদ সাদিকুল ইসলাম জানান, নির্বাচন সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ হয়েছে। কোথাও তেমন কোন অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি। বাঘাসুরা ইউনিয়নের একটি কেন্দ্রে ফলাফল ঘোষণার কেন্দ্রের বাইরে কিছু লোক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির চেষ্টা করেছিল। তবে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারি বাহিনী তাৎক্ষণিক নিয়ন্ত্রণ করে। সব কেন্দ্রের ফলাফলই এখন উপজেলায় পৌঁছে গেছে।

মানিকগঞ্জ

মানিকগঞ্জের হরিরামপুর ও দৌলতপুর উপজেলার ২১টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ১৩টিতে নৌকার প্রার্থীরা জয়লাভ করেছেন।বাকি ইউনিয়নগুলোর মধ্যে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা ৩টিতে, বিএনপি সমর্থিত ৩টি এবং দুটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীরা জয়ী হয়েছেন।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) রাতে মানিকগঞ্জ জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা শেখ মোহাম্মদ হাবিবুর রহমান এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

হরিরামপুর উপজেলার নির্বাচিতরা হলেন- বাল্লা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে বাচ্চু মিয়া, চালা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আব্দুল মজিদ, কাঞ্চনপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে গাজী বনি ইসলাম, হারুকান্দিতে নৌকা প্রতীকে মোশারফ হোসেন, বলড়া ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মোসলেম উদ্দিন কুন্নু, আজিমপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে বিল্লাল হোসেন, সুলতালড়ী ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আব্দুল সালাম, লেছড়াগঞ্জ ইউনিয়নে মোয়াজ্জেম হোসেন, ধুলশুরা ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে জায়েদ খান, রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কামাল হোসেন, বয়ড়ায় স্বতন্ত্র প্রার্থী ফরিদুল ইসলাম, গোপীনাথপুর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী আব্দুল মতিন মোল্লা, গালা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র (বিএনপি সমর্থিত) শফিক বিশ্বাস।

দৌলতপুর উপজেলায় নির্বাচিতরা হলেন- কলিয়ায় নৌকা প্রতীকে একেএম সিদ্দিকুর রহমান, বাচামারায় নৌকা প্রতীকে আব্দুর রশিদ সরকার, ধামশ্বর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে মো. ইদ্রিস আলী, জিয়নপুর ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে বেলায়েত হোসেন, চকমীরপুর ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী শফিকুল ইসলাম, চরকাটারী ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী আইয়ুব আলী মন্ডল, খলশী ইউনিয়নে স্বতন্ত্র (বিএনপি সমর্তিত) জিয়াউর রহমান, বাঘুটিয়া ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী (বিএনপি সমর্থিত) এসএম আমজাদ হোসেন।

কুমিল্লা (উত্তর)

কুমিল্লার চান্দিনায় ১২ ইউপির নির্বাচনে ৩ টিতে আওয়ামী লীগ, ৩ টিতে বিএনপি এবং ৬ ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থীরা জয়লাভ করেছেন। বুধবার ওই নির্বাচনে নৌকার মনোনীত প্রার্থীরা সুবিধা করতে পারেনি। উপজেলার ৯ টি ইউপিতেই আওয়ামী লীগের মনোনীত নৌকার প্রার্থীদের ভরাডুবি হয়েছে।

উপজেলার ৩টি ইউপিতে স্বতন্ত্র হিসেবে বিএনপির প্রার্থীরা জয়লাভ করেছে।

মুন্সিগঞ্জ

মুন্সিগঞ্জের গজারিয়া উপজেলায় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৭টি ইউনিয়নে চেয়ারম্যান পদে ৩টিতে আওয়াামী লীগের প্রার্থী এবং চারটিতে স্বতন্ত্র প্রার্থীর বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন।

নির্বাচিতরা হলেন- উপজেলার গুয়াগাছিয়া ইউনিয়নে আওয়াামী লীগ মনোনীত নৌকা প্রতীকের প্রার্থী আবুল খায়ের মোহাম্মদ আলী, ইমামপুরে হাফিজুজ্জামান খাঁন জিতু, গজারিয়া সদরে শফিউল্লাহ শফি, ভবেরচর ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকের স্বতন্ত্র প্রার্থী ইঞ্জিনিয়ার সাহিদ মো. লিটন, টেঙ্গারচরে ঘোড়া প্রতীকের কামরুল ইসলাম ফরাজী, বালুয়াকান্দিতে মোটরসাইকেল প্রতীকের শহিদুজ্জামান জুয়েল সরকার ও হোসেন্দী ইউনিয়নে মোটরসাইকেল প্রতীকের হাজ্বী মোহাম্মদ আক্তার হোসেন।

সিরাজগঞ্জ

সিরাজগঞ্জের তাড়াশের ৪ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগ ও স্বতন্ত্র প্রার্থীরা দুটি করে ইউনিয়নে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) রাত সোয়া ১০টার দিকে এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন তাড়াশ উপজেলা নির্বাচন অফিসার উজ্জল কুমার রায়।

তিনি জানান, উপজেলার তালম ইউনিয়নে নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগ প্রার্থী মো. আব্দুল খালেক ৮ হাজার ১৬০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়নাল আবেদীন খান (আনারস) পেয়েছেন ৪ হাজার ৫৫০ ভোট।

মাগুড়া বিনোদী ইউনিয়নে আ.লীগ প্রার্থী মেহেদী হাসান (নৌকা) ১১ হাজার ৯৪৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম স্বতন্ত্র প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বী শফিকুল ইসলাম (ঘোড়া) পেয়েছেন ১ হাজার ৬৯৯ ভোট।

দেশীগ্রাম ইউনিয়নে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জ্ঞানেন্দ্রনাথ বসাক আনারস প্রতিকে ৮ হাজার ১২৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বর্তমান চেয়ারম্যান আব্দুল কুদ্দুস নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ৪ হাজার ৮৯ ভোট।

সগুনা ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. জুলফিকার আলী ভুট্টো আনারস প্রতিকে ৫ হাজার ১৮০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আ.লীগ প্রার্থী মো. নজরুল ইসলাম চৌধুরী (নৌকা) পেয়েছেন ৪ হাজার ১৭৬ ভোট।

পাবনা

পাবনার বেড়া উপজেলার ৯টি ও ফরিদপুর উপজেলার ৬টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে বেড়ার ২টিতে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় আগেই নৌকা প্রতীকের দুইজন চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

ফলে চেয়ারম্যান পদে ভোটগ্রহণ করা ১৩টি ইউনিয়নের ৮টি স্বতন্ত্র প্রার্থী ও ৫টি নৌকার প্রতীকের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে বেড়া উপজেলার ৭টির মধ্যে ৬টিতেই ক্ষমতাসীন দলের প্রার্থীদের ভরাডুবি হয়েছে।

বুধবার (৫ জানুয়ারি) রাতে স্ব স্ব কার্যালয়ে বেসরকারিভাবে ফলাফল ঘোষণা করেন নির্বাচন কর্মকর্তারা।

বিজয়ীরা হলেন- বেড়া উপজেলার হাটুরিয়া-নাকালিয়া ইউনিয়নে আনারস প্রতীকের আব্দুল হামিদ, কৈটোলাতে ঘোড়া প্রতীকের মহসিন উদ্দিন, চাকলায় ঘোড়া প্রতীকের মো. ইদ্রিস আলী, নতুন ভারেঙ্গায় আনারস প্রতীকের আবু দাউদ, জাতসাকিনীতে আনারস প্রতীকের আবুল কালাম আজাদ মানিক , রূপপুরে আনারস প্রতীকের মো. মহন এবং ঢালারচর ইউনিয়নে নৌকার প্রতীকের কোরবান আলী।

এই উপজেলার নৌকা প্রতীকের পুরান ভারেঙ্গায় রফিক উল্লাহ এবং মাসুমদিয়ায় শহীদুল হক বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় লাভ করেছেন।

ফরিদপুর উপজেলার ফরিদপুর ইউনিয়নে নৌকার সরোয়ার হোসেন, হাদলে নৌকার সেলিম রেজা, বৃলাহিড়ীবাড়ীতে নৌকার জাহিদুল ইসলাম রিপন, পংগলীতে নৌকার সাজেদুল ইসলাম সুমন, ডেমরায় স্বতন্ত্র প্রার্থী জুয়েল রানা এবং বনওয়ারী নগর ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী জিয়াউর রহমান বিজয়ী হয়েছেন।

সাতক্ষীরা

সাতক্ষীরার আশাশুনি, কলারোয়া ও শ্যামনগর উপজেলার ১৬টি ইউনিয়নে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এর মধ্যে ৯টি ইউনিয়নে আওয়ামী লীগের প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। বুধবার (৫ জানুয়ারি) রাতে বেসরকারিভাবে নির্বাচনের ফলাফল ঘোষণা করেন সংশ্লিষ্ট রিটার্নিং কর্মকর্তা।

বিজয়ীরা হলেন- আশাশুনি উপজেলার শোভনালী ইউনিয়নে মাওলানা আবু বকর সিদ্দিক (জামায়াত), বুধহাটায় মো. মাহবুবুল হক ডাবলু (আ.লীগ), কুল্যায় ওমর সাকী ফেরদৌস পলাশ (আ.লীগের বিদ্রোহী), দরগাহপুরে শেখ মিয়ারাজ আলী (আ.লীগ), আশাশুনি সদর এস এম হোসেনুজ্জামান (আ.লীগ), শ্রীউলায় দীপংকর বাছাড় দিপু (আ.লীগের বিদ্রোহী), খাজরায় এসএম শাহনেওয়াজ ডালিম (আ.লীগ), আনুলিয়ায় রুহুল কুদ্দুস (বিএনপি), প্রতাপনগরে হাজী মো. দাউদ আলী (জামায়াত) ও কাদাকাটি দীপঙ্কর কুমার সরকার দীপ (আ.লীগ)। এই উপজেলায় বড়দল ইউনিয়নের সাত নম্বর ওয়ার্ডের ফলাফল প্রকাশে বিলম্ব হওয়ায় সেখানকার ফলাফল জানা সম্ভব হয়নি। তবে আ.লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী জগদীশ চন্দ্র সানা ও বিএনপি সমর্থিত প্রার্থী আজহারুল ইসলাম মন্টুর মধ্যে প্রতিদ্বন্দ্বিতা হচ্ছে বলে জানা গেছে।

শ্যামনগর উপজেলার ভুরুলিয়া ইউনিয়নে জাফরুল আলম বাবু (আ.লীগ), শ্যামনগর সদর ইউনিয়নে অ্যাডভোকেট জহুরুল হায়দার বাবু (আ.লীগ) ও ইশ্বরীপুর ইউনিয়নে অ্যাডভোকেট জিএম শোকর আলী (আ.লীগ) নির্বাচিত হয়েছেন।

কলারোয়া উপজেলার কেরালকাতা ইউনিয়নে স.ম গোলাম মোর্শেদ (আ.লীগ) ও কুশোডাঙ্গা ইউনিয়নে গাজী সাঈদ আলী (আ.লীগের বিদ্রোহী) জয়ী হয়েছেন।

বান্দরবান

বান্দরবানে সদর উপজেলার ৩টি ইউনিয়নে শান্তিপূর্ণ ভাবে নির্বাচন সম্পন্ন হয়েছে। এদিকে ৩টি ইউনিয়নে ১টিতে আওয়ামী লীগ ও ২টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী জয় হয়েছে।

পঞ্চগড়

পঞ্চগড় ইউপি নির্বাচনে দেবীগঞ্জ উপজেলায় আটটি ইউনিয়নে নবনির্বাচিত চেয়ারম্যানরা হলেন, চিলাহাটি- হারুন অর রশিদ (বিএনপি), শালডাংগা- ফরিদুল ইসলাম ফরিদ (বিএনপি), পামুলী-বাবু মণি ভূষণ রায় (আ.লীগ), সুন্দরদীঘি- আব্দুল হালিম (জামায়াত), সোনাহার মল্লিকাদহ- মশিউর রহমান (জামায়াত), টেপ্রীগঞ্জ- গোলাম রহমান সরকার (আ.লীগ), দন্ডপাল-আজগর আলী (আ. লীগ), চেংঠী হাজরাডাঙ্গা -আমিনুর রহমান (আ.লীগ)

সাভার

সাভার উপজেলার ১১টি ইউনিয়ন পরিষদের মধ্যে ৯টিতে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে। দুটি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে। বনগাঁও ইউনিয়ন- সাইফুল ইসলাম (নৌকা) পাথালিয়া ইউনিয়ন- পারভেজ দেওয়ান (নৌকা), ইয়ারপুর ইউনিয়ন- সৈয়দ আহমেদ ভূঁইয়া (নৌকা), সাভার সদর ইউনিয়ন- সোহেল রানা (নৌকা), আমিনবাজার ইউনিয়ন- রকিব আহমেদ (নৌকা), বিরুলিয়া ইউনিয়ন- সেলিম মন্ডল (স্বতন্ত্র আনারস ), আশুলিয়া ইউনিয়ন- শাহাবুদ্দিন মাদবর (নৌকা), তেঁতুলঝোড়া ইউনিয়ন- ফখরুল আলম সমর( নৌকা- বিনা প্রতিদ্বন্দিতায়), ভাকুর্তা ইউনিয়ন- হাজী লিয়াকত হোসেন (নৌকা), শিমুলিয়া ইউনিয়ন- এ বি এম আজহারুল ইসলাম সুরুজ (নৌকা), কাউন্দিয়া ইউনিয়ন- সাইফুল আলম খান (স্বতন্ত্র ঘোড়া) প্রতীককে বিজয়ী হয়েছেন।

রাজশাহী

রাজশাহীর তিন উপজেলার ১৯টি ইউনিয়নে ভোটগ্রহন ভোটগ্রহণ শেষে বাগমারার ১৬ ইউনিয়নে নৌকার ৫ জন, আওয়ামী লীগের স্বতন্ত্র ৬ জন ও বিএনপির ৫ জন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। দুর্গাপুরে ১টি ইউনিয়নে নৌকার প্রার্থী বিজয়ী হয়েছে। আর পুঠিয়ার ২টি ইউনিয়নে ২ জন স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন।

চাঁদপুর

চাঁদপুরের কচুয়া, ফরিদগঞ্জ এবং হাইমচরের ২৯ ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ৯টিতে নির্বাচিত হয়েছে আওয়ামী লীগের নৌকা, ১৩টিতে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী এবং ৭টি স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এর মধ্যে নৌকার একজন প্রার্থী বিনাপ্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হন আগেই।

প্রাপ্ত ফলাফল অনুযায়ী, কচুয়ার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ৫টিতে নৌকা এবং ৭টি ইউনিয়নে স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন। এ উপজেলায় নির্বাচিতদের মধ্যে সকলেই আওয়ামী লীগের রাজনীতির সাথে জড়িত।

ফরিদগঞ্জের ১৩টি ইউনিয়নের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে বিএনপি নেতা ৬ জন, আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী ৪ জন এবং নৌকার প্রার্থী ৩ জন নির্বাচিত হয়েছেন।

হাইমচরের ৪টি ইউনিয়নের মধ্যে ১টিতে নৌকা এবং ২টিতে আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী এবং ১টি ইউনিয়নে বিএনপি তথা স্বতন্ত্র প্রার্থী নির্বাচিত হয়েছেন।

সুনামগঞ্জ

পঞ্চম ধাপে ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে সুনামগঞ্জের ১৮ ইউনিয়নের মধ্যে চেয়ারম্যান পদে ৭টিতে আওয়ামী লীগ, ৬টিতে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী, ৪টিতে বিএনপি স্বতন্ত্র এবং ১টিতে স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

নরসিংদী

পঞ্চম ধাপের ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নরসিংদীর বেলাব উপজেলার ৮ ইউনিয়নের মধ্যে ৫টিতে নৌকা ও ৩টি স্বতন্ত্র এবং শিবপুর উপজেলায় ৭ ইউনিয়নের মধ্যে ৪টি স্বতন্ত্র ও ৩টি নৌকা বিজয় হয়েছে।

ঝিনাইদহ

ঝিনাইদহের শৈলকুপা উপজেলার ১২টি ও হরিণাকুন্ড উপজেলার ৮টি ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে ১২টিতে নৌকা প্রতীক ও ৮ টিতে স্বতন্ত্র চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

এরমধ্যে শৈলকুপার ১২টি ইউনিয়নের মধ্যে ১০টিতে নৌকা ও ২টিতে স্বতন্ত্র এবং হরিণাকুন্ডুর ৮ ইউনিয়নের মধ্যে ৬টিতে স্বতন্ত্র ও ২টিতে নৌকা প্রতীকের চেয়ারম্যান প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন।

বিজয়ী চেয়ারম্যানরা হলেন- শৈলকুপা উপজেলার ত্রিবেনী ইউনিয়নে সেকেন্দার আলী মোল্লা (নৌকা), মির্জাপুরে ফিরোজ আহমেদ (নৌকা), দিগনগরে জিল্লুর রহমান তপন (নৌকা), কাচেরকোলে অ্যাডভোকেট মামুন জোয়ারর্দ্দার (নৌকা), সারুটিয়ায় মাহমুদুল হাসান মামুন (নৌকা), উমেদপুরে সাব্দার হোসেন মোল্লা (নৌকা), দুধসরে সাহাবুদ্দিন সাবু (নৌকা), হাকিমপুরে ওহেদুজ্জামান জিকু (নৌকা), বগুড়ায় শফিকুল ইসলাম শিমুল (নৌকা), ধলহরাচন্দ্রে মতিয়ার রহমান (নৌকা), আবাইপুরে হোলাল বিশ্বাস (সতন্ত্র) ও ফুলহরিতে ইউনিয়নে আওলাদ হোসেন (সতন্ত্র)।

অন্যদিকে হরিণাকুন্ডু উপজেলার চাঁদপুর ইউনিয়নে কামাল হোসেন (সতন্ত্র), কাপাশহাটিয়ায় শরাফত দৌলা ঝন্টু (সতন্ত্র), রঘুনাথপুরে বসির উদ্দিন (সতন্ত্র), ফলসিতে মো. বজলুর রহমান (সতন্ত্র), দৌলতপুরে আবুল কালাম আজাদ (সতন্ত্র), তাহেরহুদায় মঞ্জুর রাশেদ (সতন্ত্র), ভায়নায় নাজমুল হুদা তুষার (নৌকা) ও জোড়াদাহ ইউনিয়নে জাহিদুল ইসলাম বাবু (নৌকা)।

নির্বাচন অবাধ সুষ্ঠু শান্তিপূর্ণ করতে বিপুল পুলিশ, র‌্যাব, আনসার , বিজিবি, নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট, স্টাইকিং ফোর্স মোতায়েন করা হয়।

সূত্র : আরটিভি
এম এস, ০৬ জানুয়ারি

Back to top button