ক্রিকেট

জমে উঠেছে বিসিএল ফাইনাল, শেষ দিনে মধ্যাঞ্চলের চাই ১৯২ রান

ঢাকা, ০৫ জানুয়ারি – জমে উঠেছে বিসিএল ফাইনাল। শেষ দিনে রোমাঞ্চের অপেক্ষায় ওয়াল্টন মধ্যাঞ্চল আর বিসিবি দক্ষিণাঞ্চলের ৫ দিনের ফাইনাল। কাল বৃহস্পতিবার শেষ দিনেই হয়ত ফল নিষ্পত্তি হবে। জিততে হলে শেষ দিন মধ্যাঞ্চলের প্রয়োজন ১৯২ রান। আর দক্ষিণাঞ্চলের প্রয়োজন ৭ উইকেট।

২১৮ রানের টার্গেটের পিছু ধাওয়া করে আজ মঙ্গলবার পড়ন্ত বিকেলে ব্যাট করতে নেমে ২০ রানে ৩ উইকেট খুইয়ে বসে মধ্যাঞ্চল। পরে সৌম্য সরকার (৮) আর সালমান (৫) ২৬ রানে দিন শেষ করে ফেরেন সাজঘরে।

প্রথম ইনিংসে ৫১ রানে এগিয়ে ছিল শুভাগত হোমের মধ্যাঞ্চল। দক্ষিণাঞ্চলের প্রথম ইনিংসে সব উইকেট হারিয়ে করা ৩৮৭ রানের জবাবে ইনিংস ওপেন করতে নামা মোহাম্মদ মিঠুনের ডাবল সেঞ্চুরি (২০৬) আর অধিনায়ক শুভাগত হোমের (১১৬) সঙ্গে উইকেটরক্ষক জাকের আলীর ফিফটি যোগ হলে ৪৩৪-এ গিয়ে থামে মধ্যাঞ্চল।

মঙ্গলবার তৃতীয় দিন শেষ ঘণ্টায় ব্যাট করতে নেমে এক উইকেটে ৪৩ রান তোলে দক্ষিণাঞ্চল। ৮ রানে পিছিয়ে আজ বুধবার সকালে ব্যাটিং শুরু করে ফরহাদ রেজার দল গিয়ে থামে ২৬৮ রানে। লেগস্পিনার রিশাদ হোসেন শেষ দিকে হাত খুলে ৯৯ রানের দারুণ এক ইনিংস না খেললে এই রানটাও হয়তো হতো না।

টপ ও মিডল অর্ডারে কেউ রান পাননি। আগের দিনের দুই অপরাজিত ব্যাটার ওপেনার পিনাক ঘোষ ২৭ এবং অমিত হাসান ৪১ রানে আউট হয়ে যান সকালেই। এরপর মড়ক লাগে। মড়ক লাগান বাঁ-হাতি পেসার আবু হায়দার রনি। ৭৮ রানে তুলে নেন ৫ উইকেট।

এক পর্যায়ে আবু হায়দার রনি পরপর তিন ওভারে ফিরে যান দক্ষিনাঞ্চলের তিন নির্ভরযোগ্য ও ইনফর্ম মিডল অর্ডার তৌহিদ হৃদয় (১) , জাকির হাসান (০) ও মেহদি হাসান (২৪)। ১১৯ রানে ৭ উইকেট পতনের পর দুই স্পিনার বাঁ-হাতি নাসুম আহমেদ এবং লেগি রিশাদ হোসেন হাল ধরেন।

তারা বিপর্যয় কাটিয়েও দিয়েছিলেন; কিন্তু জুটিতে ৫৪ রান যোগ হওয়ার পর নাসুম রান (৭৩ বলে ৪১) আউট হলে সব দায়-দায়িত্ব কাঁধে তুলে নেন তরুণ লেগস্পিনার রিশাদ।

উইকেটের সামনে ও দু’দিকে মেরে খেলেন তিনি। শতরানের একদম হাত মেলানো দুরত্বে পৌঁছে গিয়েছিলেন রিশাদ; কিন্তু মাত্র ১ রানের জন্য পারেননি। ১৩৬ বলে ১০ বাউন্ডারি আর ৪ ছক্কায় ৯৯ রানে ফিরে যান বাঁ-হাতি তাইবুর রহমানের বলে।

এরপর ব্যাটিংয়ে নেমে শুরুতেই বিপর্যয়ে পড়ে মধ্যাঞ্চল। দক্ষিণাঞ্চল অধিনায়ক ফরহাদ রেজার তৃতীয় আর ইনিংসের পঞ্চম বলেই বোল্ড হয়ে ফেরেন প্রথম ইনিংসের ডাবল সেঞ্চুরিয়ান মোহাম্মদ মিঠুন। তাতেই ব্যাকফুটে চলে যায় শুভগত হোমের দল। অপর ওপেনার মজিদ (৫) ও নাইওয়াচম্যান হাসান মুরাদকে (১) দ্রুত ফিরিয়ে দেন বাঁ-হাতি স্পিনার নাসুম আহমেদ।

এখন দেখার বিষয়, কাল শেষ দিন কী হয়? ওয়ান ডাউনে নামা সৌম্য সরকার আর আর মিডল অর্ডারে নামা সালমানের পর আছেন অধিনায়ক শুভাগত হোম। তারা কী করেন, তার ওপরই নির্ভর করবে ওয়াল্টন মধ্যাঞ্চলের ভাগ্য।

সূত্র : জাগো নিউজ
এন এইচ, ০৫ জানুয়ারি

Back to top button