পশ্চিমবঙ্গ

হাওড়া স্টেশন যেন রণক্ষেত্র!

কলকাতা, ১ নভেম্বর- শুক্রবারের রেশ কাটতে না কাটতেই ফের ধন্ধুমার কাণ্ড। শনিবারেও হাওড়া স্টেশনে যাত্রী বিক্ষোভ ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল। স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে উঠতে না দেওয়ায় এদিনও ক্ষোভে ফেটে পড়ে যাত্রীরা।

এদিনও স্টেশনে ঢোকার মুখেই আটকে দেওয়া হয় যাত্রীদের। বন্ধ করে দেওয়া হয় স্টেশনে ঢোকার গেট। ব্যারিকেড করে যাত্রীদের আটকানোর চেষ্টা করে রেল পুলিশও। এরপরই পুলিশের ব্যারিকেড টপকে জোর করে স্টেশনে ঢুকতে গেলে জিআরপি ও আরপিএফ কর্মীদের সঙ্গে বচসা বাধে যাত্রীদের।

ধাক্কাধাক্কি শুরু হয়। মুহূর্তের মধ্যে রণক্ষেত্রের চেহারা নেয় হাওড়া স্টেশন চত্বর। এরপরই পুলিশ তাদের লাঠিচার্জ করে বলে অভিযোগ করেন যাত্রীরা।

করোনা পরিস্থিতির মধ্যে দীর্ঘদিন বন্ধ রয়েছে লোকাল ট্রেন চলাচল। ফলে লোকাল ট্রেনের উপর ভরসা করে যে সমস্ত যাত্রীরা শহরে কাজে আসেন তারা চরম সমস্যায় পড়েছেন এই ঘটনায়। এই সমস্ত যাত্রীরাই স্টাফ ট্রেনে জোর করে উঠে পড়ছেন বলে অভিযোগ রেল আধিকারিকদের। এই সমস্ত যাত্রীদের স্টাফ স্পেশাল ট্রেনে উঠতে না দিলেই হচ্ছে যাত্রী বিক্ষোভ।

রেল পুলিশের তরফে দেওয়া এক আধিকারিক জানিয়েছেন, তাঁদের কাছে স্পষ্ট নির্দেশ রয়েছে যে স্টাফ ট্রেনে কাউকে উঠতে দেওয়া যাবে না। অন্যদিকে বিক্ষোভকারীদের দাবি, স্পেশাল ট্রেন যাত্রীদের জন্য চালানো হোক। রেল কর্তৃপক্ষের দাবি স্টাফ স্পেশাল ট্রেন শুধুমাত্র রেলকর্মীদের জন্যই চালানো হচ্ছে। সেখানে সাধারণ যাত্রীদের ওঠার অনুমতি নেই।

উল্লেখ্য, এর আগে শুক্রবার সন্ধ্যাতেও হাওড়া স্টেশনে স্টাফ স্পেশাল পেট্রোলিং ট্রেন ধরতে এলে বাধা দেয় আরপিএফ। হাওড়া স্টেশনের ক্যাব রোডের মুখেই যাত্রীদের আটকে দেওয়া হয়। প্ল্যাটফর্মে ঢুকতে না পেরে স্টেশন চত্বরে বিক্ষোভ শুরু করেন যাত্রীরা। যাত্রী বিক্ষোভের জেরে উত্তেজনা ছড়ালে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে আরপিএফ মৃদু লাঠিচার্জ করে যাত্রীদের সেখান থেকে সরিয়ে দেয়।

সূত্র: কলকাতা২৪x৭

আর/০৮:১৪/১ নভেম্বর

Back to top button