ক্রিকেট

টেইলরকে দ্বিতীয় শিকার বানালেন শরিফুল

ওয়েলিংটন, ০১ জানুয়ারি – শুরুতে টম লাথামকে ফিরিয়ে বাংলাদেশকে দারুণ সূচনা এনে দিয়েছেন শরিফুল ইসলাম। এরপর বিশাল প্রতিরোধী জুটি গড়েন উইল ইয়ং ও ডেভন কনওয়ে। এই জুটি ভাঙলে মাথা ছাড়া দিয়ে উঠেন রস টেইলর। বাংলাদেশের বিপক্ষে সিরিজের পরই নিউজিল্যান্ডের এই ব্যাটার টেস্ট ক্রিকেটকে বিদায় জানাবেন। তাইতো ক্যারিয়ারের শেষ টেস্টে নামা টেইলরকেও থিতু হওয়ার আগেই সাজঘরে ফেরান শরিফুল। তবে একপাশ আগলে রেখে বছরের শুরুতেই সেঞ্চুরি তুলে নেন কনওয়ে। এই প্রতিবেদন লিখার সময় নিউজিল্যান্ড ১৯৭/৩ (৭১ ওভার)।

আজ শনিবার বাংলাদেশ সময় রাত ৪টায় নিউজিল্যান্ডের মাটিতে প্রথম টেস্টের টস জিতে ফিল্ডিংয়ের সিদ্ধান্ত নেন বাংলাদেশের অধিনায়ক মুমিনুল হক। তিন পেসার ও এক স্পিনারকে নিয়ে নিজের একাদশ সাজান টাইগার অধিনায়ক। অন্যদিকে চার পেসার ও এক স্পিনার নিয়ে একাদশ সাজায় স্বাগতিকরা।

নতুন বলে শুরুটা দুর্দান্ত হয় বাংলাদেশের। এক পাশে তাসকিন আহমেদ ও অন্যপাশে শরিফুলকে দিয়ে আক্রমণ শুরু করে বাংলাদেশ। ইনিংসের চতুর্থ ওভারের তৃতীয় বলেই সাফল্য পান শরিফুল। বাঁহাতি পেসারের একটু ভেতরে ঢোকানো বলে আলগা শট খেলেছিলেন কিউই অধিনায়ক লাথাম। ব্যাট-প্যাডের ছোঁয়া পেয়ে বল যায় উইকেটের পেছনে। বামদিকে ঝাপিয়ে একহাতে দৃষ্টিনন্দন ক্যাচ নিয়ে বাংলাদেশকে সাফল্যে ভাসান লিটন। মাত্র ১ রানে উইকেট হারায় স্বাগতিকরা।

শুরুতে চাপ সৃষ্টি করলেও সেটা স্থায়ী করতে পারেনি টাইগার বোলাররা। নতুন ব্যাটার কনওয়েকে নিয়ে দলের প্রতিরোধ গড়েন আরেক ওপেনার ইয়ং। এই দুই ব্যাটারের সতর্কীয় ব্যাটিংয়ে ২৭ ওভারে ৬৬ রান তুলে মধ্যাহ্ন বিরতিতে যায় কিউইরা। বিরতি থেকে ফিরে ঝড়ো ব্যাটে ব্যক্তিগত অর্ধশতক তুলে নেন কনওয়ে।১০১ বলে পাঁচটি চার ও একটি ছয়ে পঞ্চম ছুঁয়েছেন তিনি। ইয়ংয়ের ফিফটির পর ১৩৮ রানের এই জুটি ভাঙেন নাজমুল হোসেন শান্ত। ৫২ করা ইয়ংকে রান আউটের ফাঁদে ফেলেন তিনি।

নতুন ব্যাটসম্যান রস টেইলরকে নিয়ে আবারও জুটি গড়েন কনওয়ে। নিজে সেঞ্চুরিও পার করেন এই ব্যাটার। ১৮৬ বলে সেঞ্চুরির দেখা পান তিনি। টেইলরের সঙ্গে গড়া তার ৫০ রানের জুটি ভাঙেন শরিফুল। এই পেসারের দ্বিতীয় শিকার হয়ে সাজঘরে ফেরেন টেইলর। ৬৪ বলে ৩১ রান করে ফেরেন তিনি।

সূত্র : আমাদের সময়
এম এস, ০১ জানুয়ারি

Back to top button