পুষ্টি

শীতকালীন সবজি শিমের নানা গুণ

শিমের আদি বাড়ি কোথায় কিংবা কবে থেকে কেমন করে এল, তা না জানা থাকলেও এটি সবার পরিচিত। বাংলাদেশের প্রায় সব এলাকাতেই চাষ হয় শিমের। নানাভাবে খাওয়া যায় এই সবজি। মাছের ঝোলে শিম যেমন মানিয়ে যায়। ভর্তা হিসেবেও অনন্য। শিম শুধু রসনাবিলাসই করে না, তার নানা গুণও আছে।

শিম প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন, ফাইবার, ভিটামিন আর মিনারেলে-সমৃদ্ধ। যাঁরা সরাসরি প্রোটিন খান না অর্থাৎ মাছ, মাংস খাওয়া হয় না, তাঁদের জন্য শিমের বিচি শরীরে প্রয়োজনীয় প্রোটিনের চাহিদা মেটাতে পারে।এই শীতে নিয়মিত শিম খেলে ত্বকও ভালো থাকবে।

শিমের নানা গুণ

শিমে ক্যালরির পরিমাণ কম থাকে। আছে প্রচুর পরিমাণ প্রোটিন, ফাইবার, ভিটামিন সি, জিংক আর মিনারেল। এগুলো শরীরের জন্য অত্যাবশ্যকীয়।

শিমের ভিন্ন ধরনের পুষ্টিগুণ ও শিমের মধ্যে থাকা খনিজ চুল পড়া রোধে কাজ করে। শুধু চুল পড়া রোধেই না, বরং চুলের স্বাস্থ্য সুরক্ষায়ও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা রাখে।

এই সবজিটিতে পাচক আঁশ (ডায়েটরি ফাইবার) থাকায়, কোষ্ঠকাঠিন্যে আক্রান্ত রোগীদের জন্য উপকারী। এ ছাড়া কোলন ক্যানসার প্রতিরোধেও এটি কার্যকর।

শীতে ত্বক হয়ে ওঠে শুষ্ক আর প্রাণহীন। একটু যত্নআত্তির ঘাটতি হলেই শীতে ফেটে যায় ত্বক। নিয়মিত শিম খেলে ভালো থাকবে ত্বক। ত্বকের রোগবালাইও দূরে থাকবে।

এক গবেষণায় দেখা গেছে, শিমের পুষ্টিগুণ শরীরের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা শুধু বাড়িয়েই দেয় না, রোগকে শরীর থেকে দূরে রাখে। তাই যত দিন শিম পাওয়া যাচ্ছে বাজারে, এটি হোক খাদ্যসঙ্গী।

যাঁদের আমিষ খাওয়ায় সীমাবদ্ধতা আছে, তাঁরা অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে খাবেন।

আডি/ ৩১ অক্টোবর

Back to top button