ঠাকুরগাঁও

ইউপি নির্বাচনে জিতেই হুমকি, এলাকা ছাড়ছেন লোকজন!

ঠাকুরগাঁও, ২৯ ডিসেম্বর – নির্বাচনে জিতেই বিরোধী প্রার্থী ও সমর্থকদের ওপর হামলা ও হুমকির অভিযোগ উঠেছে নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য সইদুল ইসলামের বিরুদ্ধে। এতে অনেকেই আতঙ্কিত হয়ে এলাকাও ছাড়ছেন বলে জানা গেছে।

মঙ্গলবার (২৮ ডিসেম্বর) ঠাকুরগাঁও সদর থানায় এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগ করেছেন উসমান আলী নামে এক ভুক্তভোগী।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, গত ২৬ ডিসেম্বর ঠাকুরগাঁও সদর উপজেলার রহিমানপুর ইউনিয়নের ৮ নম্বর ওয়ার্ডে মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন পাঁচ প্রার্থী। ওই নির্বাচনে টিউবওয়েল প্রতীক নিয়ে জয়ী হন কৃষ্ণপুর গ্রামের সইদুল ইসলাম। আর মোরগ প্রতীক নিয়ে তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হন হারুন-অর-রশীদ। কিন্তু নির্বাচনে যারা টিউবওয়েলের বিরোধিতা করেছেন তারা এখন সাইদুলের শত্রুতে পরিণত হয়েছেন।

নির্বাচনের পরদিন সইদুলের সঙ্গে দেখা হয় মোরগ প্রতীকের কর্মী উসমান আলীর। সে সময় উসমানকে মেরে ফেলার হুমকি দেন তিনি। এতে ভীত হয়ে পুলিশের সহায়তা চান উসমান।

ভুক্তভোগী উসমান আলী বলেন, সইদুল জয়ী হয়ে আমাকে ও মোরগ প্রতীকের বাকি কর্মীদের বিভিন্নভাবে হুমকি দিচ্ছে। অনেকে ভয়ে এলাকা ছেড়ে চলে যাচ্ছে। সে কারণে থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছি।

কশিমউদ্দীন নামে মোরগ প্রতীকের আরেক কর্মী বলেন, নির্বাচনে পক্ষে-বিপক্ষে মত থাকতেই পারে। সইদুল আমার পায়ের রগ কেটে ফেলার হুমকি দিয়েছে। আমাদের আর এক কর্মী রাজীবকে পিটিয়েছে। ভয়ে রাজীব এলাকা ছেড়ে চলে গেছে।

৮ নম্বর ওয়ার্ডের বাসিন্দা জীবন হক জানান, সাইদুল বিরোধী প্রার্থী ও তাদের সমর্থকদের জনসম্মুখে হুমকি দিচ্ছে। ফাঁকা জায়গায় একা পেলে হামলা করছে। এলাকার অনেকেই তার কাছে মার খেয়েছে।

অভিযোগ স্বীকার করে নবনির্বাচিত ইউপি সদস্য সইদুল ইসলাম বলেন, ভুলবশত কিছু কথা বলে ফেলেছি। প্রকৃতপক্ষে কারও প্রতি আমার কোনও রাগ নেই।

ঠাকুরগাঁও সদর থানার এসআই হাশেম বলেন, হুমকির বিষয়ে উসমান আলী সদর থানায় লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন। তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সূত্র : রাইজিংবিডি
এন এইচ, ২৯ ডিসেম্বর

Back to top button