জাতীয়

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন: প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রী, আওয়ামী লীগ নেতাদের বিরুদ্ধে কটূক্তির অভিযোগেই ৪০ শতাংশ মামলা, বলছে আর্টিকেল নাইনটিন

ঢাকা, ২৮ ডিসেম্বর – তথ্য ও মত প্রকাশের অধিকার নিয়ে কাজ করা সংগঠন আর্টিক্যাল নাইনটিন বলছে, ২০২১ সালে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে বাংলাদেশে যত মামলা হয়েছে, তার মধ্যে ৪০ শতাংশ মামলাই হয়েছে প্রধানমন্ত্রী, মন্ত্রীসহ সরকারি দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতাকর্মীদের নামে কটূক্তির কারণে।

সরকারি দলের এসব নেতাদের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী কিংবা মন্ত্রীরা ছাড়াও আওয়ামী লীগের সহযোগী সংগঠন যুবলীগ, ছাত্রলীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগের মতো সংগঠনের নেতারাও রয়েছেন, যাদের নিয়ে কটূক্তির অভিযোগে ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্টে মামলা হয়েছে।

তবে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় আইন বিষয়ক সম্পাদক নজিবুল্লাহ হিরু বলছেন, মামলার উপাদান ছিলো বলেই এসব মামলা হয়েছে।

বিবিসি বাংলাকে তিনি বলেন, ‘কাউকে কটূক্তি করলে বা কুৎসা রটনা করলে তো সংক্ষুব্ধ ব্যক্তি বা তার পক্ষে কেউ আইনের সুরক্ষা চাইতেই পারে।’

আর্টিকেল নাইনটিন বলছে, ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে নভেম্বর পর্যন্ত ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে দায়ের হওয়া ২২৫টি মামলায় বিভিন্ন শ্রেণী-পেশার ৪১৭ ব্যক্তি অভিযুক্ত হয়েছেন, যার মধ্যে ৬৮ জন সাংবাদিকও আছেন। এ সময় ১৫ জন সাংবাদিক এই আইনের আওতায় গ্রেপ্তার হয়েছেন।

আর মামলাগুলো দায়েরের পরপরই বিভিন্ন মামলায় অভিযুক্ত হিসেবে ১৬৬জনকে আটক করা হয়েছে।

আর্টিকেল নাইনটিন, দক্ষিণ এশিয়া বিভাগের আঞ্চলিক পরিচালক ফারুখ ফয়সল বিবিসি বাংলাকে বলেন, ‘ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলার বিষয়গুলো আমরা বিশেষভাবে পর্যবেক্ষণ করি। এ বছর যা দেখছি, ৯০টির মতো মামলা হয়েছে শুধু ক্ষমতাশালীদের কটূক্তির অভিযোগে। এটি প্রমাণ করে যে সরকার ও ক্ষমতাসীন দল ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের অপব্যবহার করছে।’

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে শুরু থেকেই প্রতিবাদ বিক্ষোভ হয়েছে।

ফয়সল বলেন, ‘দল নয় বরং আইন হতে হবে মানুষকে সুরক্ষা দেয়ার জন্য। কিন্তু ডিজিটাল সিকিউরিটি অ্যাক্ট সেটি করতে পারছে না। সে কারণে আইনের সংশোধনীর কিছু প্রস্তাব তারা সরকারকে দিয়েছেন।’

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/২৮ ডিসেম্বর ২০২১

Back to top button