জাতীয়

খালেদা জিয়ার বিদেশে চিকিৎসার আইনগত সুযোগ নেই

ঢাকা, ২৮ ডিসেম্বর – বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে চিকিৎসার জন্য বিদেশ পাঠানোর কোনো সুযোগ নেই বলে জানিয়েছেন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল। মঙ্গলবার সচিবালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে এই কথা জানান তিনি।

খালেদা জিয়াকে বিদেশ পাঠানোর ব্যাপারে আইনমন্ত্রীর আইনি মতামত তুলে ধরে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামাল জানিয়েছেন, আইনমন্ত্রী যেভাবে লিখেছেন, যেভাবে জানিয়েছেন, আইনগতভাবে এটার কোনো সুযোগ নেই; কোনো সুযোগই নেই। কাজেই আমাদের অবস্থানটা নিশ্চয় আপনারা বুঝতে পারছেন। আমরা এটা নিয়ে আবারও বসবো এবং আলোচনার মাধ্যমে পরবর্তী ব্যবস্থা নেব।

খালেদা জিয়াকে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসা করাতে তার পরিবারের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে আবেদন করেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। সে আবেদনের প্রক্ষিতে আইনমন্ত্রী আনিসুল হক সোমবার তার মতামাত জানান এবং স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়কেও অবহিত করেন।

এ ব্যাপারে আইনমন্ত্রীর ভাষ্য ছিলো, বেগম খালেদা জিয়ার চিকিৎসার জন্য তার ভাই শামীম ইস্কান্দার যে আবেদন করেছেন সে আবেদনের ব্যাপারে আমাদের আইনি মতামত দিয়ে আমরা এটি স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ে পাঠাবো।

স্বরাষ্ট্র মন্ত্রনালয়ে সেই মতামত যাবার পর এবার স্বরাষ্ট্রমন্ত্রীও খালেদা জিয়াকে বিদেশে পাঠানো সম্ভব না বলে জানিয়ে দিলেন। সংবাদ মাধ্যমে সামনে তিনি বলেন, খালেদা জিয়ার ছোট ভাই শামীম ইস্কান্দার সাহেব একটি চিঠি দিয়েছিলেন। আমরা আইনসম্মত হয় কি না এটা জানিয়েছি। আইনমন্ত্রী আমাদের একটি মতামত দিয়েছেন। সেটি আমরা পর্যবেক্ষণ করছি। পরে যদি প্রয়োজন মনে করি, আবার আমরা পরামর্শ নেব। আমাদের এটা নিয়ে আরও কথাবার্তা বলতে হবে।

মানবিক দিক বিবেচনা করে বিদেশে নিয়ে চিকিৎসার সুযোগ দেওয়া যায় কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, মানবিক দিক বিবেচনা করেই কিন্তু সরকার খালেদা জিয়ার দণ্ড স্থগিত করে মুক্তি দিয়েছে। তিনি একজন দণ্ডপ্রাপ্ত আসামি, তার দণ্ড কার্যকর করা হচ্ছিলো। অসুস্থ হবার পর তাকে সর্বোচ্চ চিকিৎসাসেবাও দেয়া হচ্ছিলো। তবুও তার পরিবারের পক্ষ থেকে আবেদন করায় মানবিক কারণে তার চিকিৎসা যেনো আরও সুন্দরভাবে হয়, তাই প্রধানমন্ত্রী তার দণ্ডাদেশ স্থগিত করে বাসায় থেকে চিকিৎসার ব্যবস্থা করে দিয়েছিলেন।

উল্লেখ্য, শারীরিক অসুস্থতার জন্য গত ১৩ নভেম্বর বিকেলে খালেদা জিয়াকে গুলশানের বাসভবন থেকে এভারকেয়ার হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। বর্রতমানে তিনি সিসিইউতে চিকিৎসাধীন আছেন। অসুস্থতার দরুন তাকে বিদেশে নিয়ে উন্নত চিকিৎসার দাবি জানিয়ে সরকারের কাছে আবেদন করেন তার ভাই। তবে সরকারের পক্ষ থেকে বরাবরই বলা হচ্ছে, প্রচলিত আইনে কোনো দণ্ডপ্রাপ্ত আসামিকে বিদেশে পাঠানোর সুযোগ নেই।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/২৮ ডিসেম্বর ২০২১

Back to top button