নাটক

তাহসান-মিথিলা-ফারিয়ার বিরুদ্ধে মামলা: দায় কার

ঢাকা, ২৭ ডিসেম্বর – বিজ্ঞাপন মানে কি শুধুই প্রচার? প্রশ্নটি পুরনো। তবে এ বছরের শেষ দিকে আরেকটি প্রশ্ন দর্শকদের ভাবিয়েছে। সেটি হলো- বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য প্রতিষ্ঠানগুলো তারকাদের বেছে নেয়। বিজ্ঞাপনে তারকারা পণ্যের গুণগান গেয়ে ভক্তের মনে কম-বেশি প্রভাব ফেলার চেষ্টা করেন। সেক্ষেত্রে ওই পণ্য কিনে কোনো ভক্ত যদি প্রতারিত হন তাহলে দায় কার?

চলতি বছর প্রতারণার অভিযোগে বিতর্কে জড়ায় ই-কমার্স প্ল্যাটফর্ম ইভ্যালি। এই প্রতিষ্ঠানের সঙ্গে যুক্ত হওয়ার কারণে মামলায় জড়ান জনপ্রিয় তিন তারকা- তাহসান খান, রাফিয়াথ রশীদ মিথিলা এবং শবনম ফারিয়া। গ্রাহকদের অর্থ আত্মসাতের ঘটনায় ইভ্যালির সঙ্গে সংশ্লিষ্টদের বিরুদ্ধে মামলা করেন এক গ্রাহক।

গত ৪ ডিসেম্বর, রাজধানীর ধানমন্ডি থানায় সাদ স্যাম রহমান নামে ইভ্যালির এক গ্রাহক এই মামলা দায়ের করেন। মামলার এজাহারে বলা হয়, প্রতারণামূলকভাবে গ্রাহকদের টাকা আত্মসাৎ করা হয়েছে। আত্মসাৎকৃত টাকার পরিমাণ ৩ লাখ ১৮ হাজার টাকা। যা উদ্ধার করা সম্ভব হয়নি।

সাদ স্যাম রহমানের যুক্তি ছিল ইভ্যালিতে গায়ক তাহসান খান শুভেচ্ছাদূত হিসেবে যুক্ত ছিলেন। রাফিয়াত রশিদ মিথিলা ‘ফেইস অব ইভ্যালি লাইফ স্টাইল’ হিসেবে যুক্ত ছিলেন। এ ছাড়াও প্রধান জনসংযোগ কর্মকর্তা হিসেবে কাজ করেছেন শবনম ফারিয়া।

উল্লিখিত তিনজনই ছোটপর্দার জনপ্রিয় শিল্পী। তাদের প্রত্যেকের ফেইস ভ্যালু রয়েছে। ইভ্যালি কর্মকর্তারা তাদের ফেইস ভ্যালু কাজে লাগাতে চেয়েছেন। ফলে গ্রাহক যখন টাকা ফেরত পাচ্ছিলেন না তখন তার দায় তাহসান খান, রাফিয়াথ রশীদ মিথিলা এবং শবনম ফারিয়া এড়িয়ে যেতে পারেন না।

এ প্রসঙ্গে গণমাধ্যমে সে সময় শবনম ফারিয়ে বলেছেন, ‘আমি কিন্তু ‘ফেস অব ইভ্যালি’ কিংবা ইভ্যালির অ্যাম্বাসেডর ছিলাম না। আমি কোথাও ইভ্যালিকে প্রচার করিনি। ওদের সঙ্গে আমার ডিলই ছিল, আমি দাপ্তরিক কাজ করব। যেহেতু আমি একজন প্রফেশনাল অ্যাক্ট্রেস ফলে আমি কোনো কিছু প্রমোট করতে হলে তার জন্য চুক্তি করতে হবে। এ জন্য ওদের প্রচারণা করি নাই কখনো।’

তাছাড়া ‘দেবী’খ্যাত এই অভিনেত্রী সে সময় দাবি করেন, বিপুল দেনায় ডুবতে বসা ইভ্যালির ব্যবস্থাপনা পরিচালক মোহাম্মদ রাসেল এবং তার স্ত্রী কোম্পানির চেয়ারম্যান মোছা. শামীমা নাসরিন গ্রেপ্তার হওয়ার আগেই তিনি ইভ্যালির চাকরি ছেড়ে দিয়েছেন।

মূলত রাসেল এবং শামীমা গ্রেপ্তার হওয়ার পর ইভ্যালির সঙ্গে তাহসান রহমান খান, রাফিয়াত রশীদ মিথিলা এবং শবনম ফারিয়ার সম্পর্ক নিয়ে সমালোচনা শুরু হয় ফেইসবুকে।

এ প্রসঙ্গে তাহসান রহমান খানও গণমাধ্যমে ‘অনেক আগেই ইভ্যালির চাকরি ছেড়ে দিয়েছি’ বলে জানান। অন্যদিকে মিথিলা বলেন, ‘আমি ইভ্যালির সঙ্গে মাত্র এক থেকে দুই মাস কাজ করেছি। চলতি বছরের জুলাইয়ে সাইন করি। একটা লাইভ করেছিলাম। এরপর চলে যাই কলকাতা। আর কোনো কার্যক্রমে ছিলাম না। আমি বুঝে ওঠার আগেই সব শেষ হয়ে যায়।’

এন এইচ, ২৭ ডিসেম্বর

Back to top button