দক্ষিণ এশিয়া

প্রাপ্তবয়স্ক মুসলিম মেয়েরা পছন্দের ব্যক্তিকে বিয়ে করতে স্বাধীন: হাইকোর্ট

নয়াদিল্লী, ২৭ ডিসেম্বর – ভারতের মুসলিম প্রাপ্তবয়স্ক মেয়েরা তার পছন্দের যে কোনও ধর্মের ব্যক্তিকে বিয়ে করতে পারে। সেক্ষেত্রে অভিবাবকরা তাকে কোনওভাবেই বাধা দিতে পারেন না। শুধুমাত্র অভিভাবকদের ইচ্ছের বিরুদ্ধে বিয়ে করার জন্য সাংবিধানিক অধিকার থেকে তাদের বঞ্চিত করা যাবে না। এমনই পর্যবেক্ষণ পাঞ্জাব এবং হরিয়ানা হাইকোর্টের।

মামলার বয়ান অনুযায়ী, পরিবারের ইচ্ছার বিরুদ্ধে গিয়ে পাঞ্জাবের ১৭ বছর বয়সের এক তরুণী বিয়ে করেছিলেন হিন্দু ধর্মের ৩৩ বছর বয়সের এক যুবককে। তা কোনওভাবেই মেনে নিতে পারেনি তরুণীর পরিবার। বিয়ে ভাঙার জন্য তারা উঠে পড়ে লাগেন। শেষে বাড়ির চাপ সইতে না পেরে হাইকোর্টের দ্বারস্থ হন ওই তরুণী। সেই মামলার পরিপ্রেক্ষিতে এই পর্যবেক্ষণ পঞ্জাব এবং হরিয়ানা হাইকোর্টের।

‘মুসলিম পার্সোনাল ল’-এর ১৯৫ অনুচ্ছেদ উল্লেখ করে ওই তরুণীকে প্রাপ্তবয়স্ক বলে পর্যবেক্ষণ করেছেন হাইকোর্টের বিচারপতি হারনারেশ সিং গিল। তরুণীর আইনজীবী এই অনুচ্ছেদের কথা উল্লেখ করে আদালতে জানান, প্রাপ্ত বয়স্ক মুসলিম মহিলারা নিজের পছন্দের কাউকে বিয়ে করতেই পারে। সেক্ষেত্রে পরিবারের কারও হস্তক্ষেপ করার অধিকার নেই। আইনজীবীর সেই যুক্তিতেই কার্যত সম্মতি জানায় পঞ্জাব এবং হরিয়ানা হাইকোর্ট।

বিচারপতির পর্যবেক্ষণ, একজন মুসলিম মহিলা পরিবারের ইচ্ছের বিরুদ্ধে গিয়ে নিজের পছন্দের ব্যক্তিকে বিয়ে করার অধিকার রয়েছে। সেক্ষেত্রে শুধুমাত্র পরিবারের বিরুদ্ধে গিয়ে বিয়ে করেছে বলে তার সাংবিধানিক অধিকার থেকে তাকে বঞ্চিত করা যায় না। হাইকোর্ট মামলাটি গ্রহণ করার পাশাপাশি ওই দম্পতিকে নিরাপত্তা দেওয়ার জন্য পুলিশকে নির্দেশ দিয়েছে।

সূত্র : বিডি২৪লাইভ
এম এস, ২৭ ডিসেম্বর

Back to top button