পশ্চিমবঙ্গ

মমতা দিদিকেই বরং রাজ্যপাল করে দেওয়া হোক!

কলকাতা, ২৭ ডিসেম্বর – রাজ্যের শিক্ষাব্যবস্থা ভয়াবহ। উপাচার্য নিয়োগে রাজ্যের ভূমিকা নিয়ে প্রশ্ন তুলে বিস্ফোরক টুইট করেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়। তাঁকে পাল্টা আক্রমণ শানিয়েছেন রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী ব্রাত্য বসু। স্পষ্টই বলেছিলেন, মুখ্য়মন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে (Mamata Banerjee) বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য করার চিন্তাভাবনা শুরু করা হয়েছে। রবিবার সকালে দার্জিলিং যাওয়ার পথে বাগডোগরা বিমানবন্দরে শিক্ষামন্ত্রীর বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগড়ে দিলেন ধনখড় (Jagdeep Dhankhar)।

রাজ্যপাল এদিন বলেন, “শিক্ষামন্ত্রী বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রীকে বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য করবেন। উনি ওঁকে রাজ্যপালই করে দিন না! অসুবিধা কোথায়! দিদিকেই বরং রাজ্যপাল করে দেওয়া হোক!”

সম্প্রতি রাজ্যের পরিচালবন ব্যবস্থা নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন রাজ্যপাল। শুক্রবার সকালে একটি টুইট করে রাজ্যপাল অভিযোগ করে লেখেন, ‘মমতা সরকারের আমলে শিক্ষাব্যবস্থায় চিত্রটা ভয়াবহ। রাজ্যের বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের কোনও আচার্য এবং উপাচার্য রাজ্যপালের সঙ্গে বৈঠকে এলেন না। রাজ্যে শিক্ষাব্যবস্থায় সংগঠন বিস্তারের চেষ্টা চলছে।’

রাজ্যপালের এই মন্তব্যের পাল্টা তোপ দাগেন ব্রাত্য বসু। শিক্ষামন্ত্রীর কথায়, “ওঁ সহযোগিতা করেন না। ফাইল আটকে রাখেন। ওঁ শিশ দেন, ট্যুইট করেন, বিবৃতি দেন।” তাঁর আরও সংযোজন, “চ্যান্সেলর পদে মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে আসা যায় কিনা, সেটা দেখা হবে। এরকম করলে আমরা ভাববো, কিছু দিনের জন্য ওঁর বদলে মুখ্যমন্ত্রীকে চ্যান্সেলর করা যায় কি না!”

সাংবাদিক বৈঠকে ব্রাত্য বলেছিলেন, “তিনি দিনের পর দিন এ ভাবে ফাইল ফেলে রাখেন। তিনি বিন্দুমাত্র সহযোগিতার মনোভাব যদি না দেখান, তা হলে কেরলের রাজ্যপাল যেমন বলেছেন, প্রাদেশিক স্তরে আমরাও তা করতে বাধ্য হব। সংবিধান খতিয়ে দেখব, দরকারে আইনজ্ঞদের পরামর্শ নেব। আমরা আইনজীবীদের কাছে জানতে চাইব, অন্তবর্তীকালীন সময়ের জন্য রাজ্যের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোর আচার্য পদে আমরা মাননীয় মুখ্যমন্ত্রীকে নিয়ে আসতে পারি কি না।”

সমস্যার সূত্রপাত একটি বৈঠক নিয়ে। চলতি মাসের ২০ তারিখ রাজ্যপাল বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের ১১ জন উপাচার্য ও আচার্যকে ডাকেন একটি বৈঠকে যোগদানের জন্য। শিক্ষার মানোন্নয়ন বিষয়ক আলোচনার জন্য ডেকেছিলেন তিনি। উপাচার্য ও আচার্যরা সম্মিলিতভাবে একটি চিঠি করেন রাজ্যপালকে।

তাঁরা জানিয়েছিলেন, ওমিক্রনের কারণে তাঁরা এই মুহূর্তে রাজভবনে যেতে পারছেন না। রাজ্যপাল তাঁর প্রত্যুত্তরে বলেন. কোভিডের কথা মাথায় রেখে রাজভবনে যথাযথ স্বাস্থ্যবিধি মানা হচ্ছে। তাতে বৈঠকে যোগদানের বিষয়ে কোনও অসুবিধা হওয়ার কথা নয়। ২৩ তারিখ আসার কথা বলেন।

কেন আচার্য ও উপাচার্যরা আসছেন না, তা ক্ষোভ উগরে একটি চিঠি লেখেন রাজ্যপাল। সেটিও টুইট করেন তিনি। গত বৃহস্পতিবারই সাড়ে তিনটের সময়ে রাজভবনে যাওয়ার কথা ছিল উপাচার্য ও আচার্যদের। কিন্তু দেখা যায়, তাঁরা কেউই রাজভবনে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করতে যাননি।

রাজভবনে ফাঁকা আসনের ছবি তুলে ধরে পাল্টা টুইট করেন রাজ্যপাল। তিনি টুইটে লেখেন, এর আগে সরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্যদের তিনি ডেকেছিলেন, তাঁরাও কেউ আসেননি। উপাচার্য নিয়োগে আচার্যকে অবহেলা করা হচ্ছে।

এরপর ফের রাজ্য-রাজ্যপাল সংঘাত নতুন আকার নেয়। যদিও রাজভবন-নবান্নের বিরোধ নয়। মুখ্যমন্ত্রীকে আচার্য পদে আনা যায় কি না সে প্রসঙ্গ উত্থাপন করতে গিয়ে রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী সিপিএম শাসিত কেরলের সাম্প্রতিক রাজ্যপালের প্রসঙ্গও তুলে আনেন। কেরলেও রাজ্যপালের সঙ্গে বাম সরকারের বিরোধ রয়েছে। তাতে, কেরলের রাজ্যপাল আরিফ মহম্মদ খান বলেছিলেন, ওই রাজ্যে সমস্ত বিশ্ববিদ্যালয়ের আচার্য পদে যেন মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়নকে আনা হয়। বঙ্গ শিক্ষামন্ত্রীর সেই মন্তব্যের পরেই এ বার সরাসরি রাজ্যের বিরুদ্ধে তোপ দাগলেন ধনখড়।

এম এস, ২৭ ডিসেম্বর

Back to top button