দক্ষিণ এশিয়া

ওমিক্রনে আক্রান্ত ৯১ শতাংশ ভারতীয়ই টিকার পূর্ণ ডোজ নিয়েছেন

নয়াদিল্লি, ২৪ ডিসেম্বর – ভারতে ওমিক্রন আক্রান্ত রোগীদের ওপর চালানো এক জরিপে দেখা গেছে, সেখানে যারা ওমিক্রনে আক্রান্ত হয়েছেন তাদের ৯১ শতাংশই করোনা টিকার পূর্ণ ডোজ বা দুটি ডোজ নিয়েছেন।

ভারত সরকারের এক জরিপের বরাত দিয়ে টাইমস অব ইন্ডিয়া শুক্রবার এ খবর জানায়।

জরিপে দেখা গেছে, যারা ওমিক্রন আক্রান্ত হয়েছেন তাদের মধ্যে ৭০ শতাংশ রোগীর ক্ষেত্রে কোনো লক্ষণই দৃশ্যমান নয়। অন্তত তিন শতাংশ রোগী টিকার বুস্টার ডোজ নিয়েও ওমিক্রন আক্রান্ত হয়েছেন।

বর্তমানে ভারতে ৩৬০ জনের দেহে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। এর মধ্যে মহারাষ্ট্রে ৮৮ জনের দেহে করোনার এ নতুন ধরনটি শনাক্ত হয়। দিল্লিতে ৬৭ জনের দেহে ওমিক্রন পাওয়া গেছে।

ভারতের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের দেয়া তথ্য থেকে জানা যায়, দেশটিতে সব মিলিয়ে শুক্রবার ৬ হাজার ৬৫০ জনের দেহে নতুন করে করোনা শনাক্ত হয়েছে। গত ২৪ ঘণ্টায় করোনায় প্রাণ গেছে ৩৭৪ জনের।

ভারত সরকারের পক্ষ থেকে সতর্ক করে বলা হয়েছে, করোনার চতুর্থ ঢেউ মোকাবেলা করছে বিশ্ব।

গত মাসের শুরুর দিকে দক্ষিণ আফ্রিকায় প্রথম শনাক্ত হয় করোনা ভাইরাসের নতুন ধরন ওমিক্রন। মাসের শেষ দিকে আনুষ্ঠানিকভাবে দেশটি ওমিক্রন শনাক্ত হওয়ার ঘোষণা দেয়।

দ্রুতই করোনার এ নতুন ধরন বিশ্বের নানা দেশে ছড়িয়ে পড়ে। সর্বশেষ থাইল্যান্ডের উত্তর-পূর্বাঞ্চলের কালাসিন প্রদেশে ২১ জনের দেহে ওমিক্রন শনাক্ত হয়েছে। বেলজিয়াম থেকে আসা এক দম্পতির মাধ্যমে এ ওমিক্রন ছড়ায়।

শুক্রবার আল জাজিরার খবরে বলা হয়, এ মাসের শুরুর দিকে বেলজিয়াম থেকে ওই দম্পতি থাইল্যান্ডে আসেন।

ওমিক্রনকে করোনার সবচেয়ে প্রাণঘাতি ধরন ডেল্টার চেয়ে কম ভয়ঙ্কর মনে করা হচ্ছে। বলা হচ্ছে, ওমিক্রন আক্রান্ত হলে হাসপাতালে ভর্তিও হারও অনেকটা কম। তবে এটি অতিসংক্রামক ধরণ বলে গবেষকরা স্বীকার করেছেন।

ইতোমধ্যে ইউরোপের দেশগুলোতে ব্যাপকভাবে ছড়িয়েছে ওমিক্রন। এ প্রেক্ষাপটে গ্রিস, ইতালিসহ ইউরোপের অনেক দেশে ঘরের বাইরে ও ভেতরে মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হয়েছে।

করোনার এ নতুন ধরনের জেরে ফ্রান্স ও যুক্তরাজ্যে শনাক্তের নতুন রেকর্ড দেখা গেছে। এ দুই দেশে নজিরবিহীনভাবে বাড়ছে দৈনিক সংক্রমণ।

সূত্র: বাংলাদেশ জার্নাল
এম ইউ/২৪ ডিসেম্বর ২০২১

Back to top button