জাতীয়

যুব সমাজ আমাদের মূল শক্তি: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা, ২১ ডিসেম্বর – প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বঙ্গবন্ধু তরুণদের সব ক্ষেত্রে গুরুত্ব দিয়েছিলেন। আওয়ামী লীগ সব সময় তরুণদের গুরুত্ব দেয়। কারণ তারাই পারে পরিবর্তন আনতে।

সোমবার (২০ ডিসেম্বর) বিকেলে সাভারের শেখ হাসিনা জাতীয় যুব উন্নয়ন ইনস্টিটিউটে দেশ ও মানুষের কল্যাণে কাজ করা তরুণ উদ্যোক্তা ও সংগঠনকে ‘জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড’ অনুষ্ঠানের আগে ধারণ করা বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শেখ হাসিনা বলেন, যুব সমাজ আমাদের মূল শক্তি। আজ তরুণরা নিজেদের প্রস্তুত করবে আগামী দিনের জন্য, যাতে তারা এ দেশকে এগিয়ে নিয়ে যেতে পারে। আর প্রজন্মের পর প্রজন্মে এ ধারা অব্যাহত থাকতে হবে। একটা কথা মনে রাখতে হবে, আমাদের স্বাধীনতা অর্জনের পেছনে তরুণদের শক্তি, উদ্যোগ, উদ্যাম কাজ করেছে।

তরুণরাই পরিবর্তন এনে দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাবে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন বিজ্ঞানের যুগ, প্রতিনিয়ত পরিবর্তন আসছে। প্রযুক্তির সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে হবে, এগিয়ে যেতে হবে। যদি এ পরিবর্তনশীল বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে না পারি, তাহলে পিছিয়ে যাব। জ্ঞান ও মেধা দিয়ে তরুণরাই সেই পরিবর্তন আনতে পারে।

দেশ ও মানুষের কল্যাণে যেসব তরুণ উদ্যোক্তা ও সংগঠন কাজ করে যাচ্ছে, তাদের পুরস্কৃত করার উদ্যোগের প্রশংসা করেন শেখ হাসিনা।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর তথ্যপ্রযুক্তি উপদেষ্টা ও সিআরআই’র চেয়ারম্যান সজীব ওয়াজেদ জয়ের ধারণ করা বক্তব্যে বলেন, ৫০ বছর আগে জাতির পিতা আমাদের স্বাধীনতা দিয়ে গেছেন। এ দীর্ঘ সময়ে অনেক পথ পার হয়ে আসতে হয়েছে। তবে এখন ৫০ বছর পর খুব গর্ব করে বলতে পারি, বঙ্গবন্ধুর সেই স্বপ্নের সোনার বাংলা বাস্তবায়ন হচ্ছে তার কন্যা শেখ হাসিনার নেতৃত্বে।

তিনি বলেন, যারা নিজেদের পরিশ্রম দিয়ে নিজেদের উদ্যোগে দেশের মানুষের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন, তারা সোনার বাংলার উদাহরণ। সোনার বাংলা হচ্ছে আমাদের দেশের মানুষের উন্নয়নের স্বপ্ন। আমার দেশের উন্নয়নের স্বপ্ন। দেশের প্রতিটি মানুষ যাতে সুস্থ থাকে, শান্তিতে থাকে, অভাব না থাকে, সেটাই হচ্ছে সোনার বাংলার স্বপ্ন। সেই স্বপ্ন পূরণ করার জন্য আমাদের আওয়ামী লীগ সরকার পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

প্রধানমন্ত্রীর এ উপদেষ্টা বলেন, আমরা নিজের পায়ে দাঁড়িয়েছি। লড়াই করে রক্ত দিয়ে স্বাধীনতা অর্জন করেছি। কেউ আমাদের স্বাধীনতা হাতে তুলে দেয়নি। তেমনি সোনার বাংলাও আমরা গড়ছি নিজেদের পরিশ্রম, নিজেদের মেধা দিয়ে। আমরা কারও ওপর নির্ভরশীল না। তাই আমি অত্যন্ত গর্বিত যে আমাদের দেশে ইয়াং বাংলার পার্টিসিপেন্ট এর মতো উদ্যোগ আছে, মেধাবী-তরুণ ছেলে-মেয়ে আছে, যারা দেশের জন্য পরিশ্রম করে যাচ্ছে।

অনুষ্ঠানে পুরস্কার তুলে দেন বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান সেন্টার ফর রিসার্চ অ্যান্ড ইনফরমেশন (সিআরআই) এর ট্রাস্টি রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক। চূড়ান্ত যাচাই-বাছাই শেষে ৩১ সংগঠন ও ব্যক্তির হাতে এ পুরস্কার তুলে দেওয়া হয়।

পুরস্কার তুলে দেওয়ার আগে বঙ্গবন্ধুর দৌহিত্র ও সিআরআই’র ট্রাস্টি রাদওয়ান মুজিব সিদ্দিক সমাজের জন্য কাজ করা তরুণ উদ্যোক্তা ও ব্যক্তির প্রশংসা করে বলেন, আপনারা যেভাবে কাজ করছেন এভাবে কাজ করে যাবেন। আমরা আপনাদের কাছ থেকে অনেক উৎসাহ ও সাহস পাই। আপনারাই হচ্ছেন আমাদের ভবিষ্যত।

দেশের সব সেক্টরে আরও বেশি তরুণদের হাতে দায়িত্ব দেওয়ার সময় এসেছে মন্তব্য করে তিনি বলেন, তরুণদের সামনে নিয়ে আসতে হবে, তাদের সাপোর্ট আসতে হবে। তিনি ইয়াং বাংলা ও সিআরআই’র পক্ষ থেকে তরুণদের পাশে থাকার প্রত্যয় ব্যক্ত করেন।

দেশের উন্নয়নমূলক কর্মকাণ্ডে তরুণ প্রজন্মকে সরাসরি অন্তর্ভুক্ত করার উদ্দেশে তাদের নতুন ধারণা ও উদ্ভাবনগুলোকে তুলে আনার জন্যই ২০১৪ সালের ১৫ নভেম্বর আত্মপ্রকাশ করে ইয়াং বাংলা প্ল্যাটফর্ম। সিআরআই’র অঙ্গপ্রতিষ্ঠান ইয়াং বাংলা প্ল্যাটফর্ম। ৫০ হাজারের বেশি স্বেচ্ছাসেবী এবং ৩১৫টির বেশি সংগঠনকে সঙ্গে নিয়ে চলা এ সংগঠনের সদস্য সংখ্যা বর্তমানে প্রায় তিন লাখ।

এ প্ল্যাটফর্ম থেকে তরুণদের ক্ষমতায়ন ও দেশ গঠনে তাদের অবদান তুলে ধরার জন্য বিভিন্ন উদ্যোগ নেওয়া ও তরুণদের কাজের স্বীকৃতির জন্য জয় বাংলা ইয়ুথ অ্যাওয়ার্ড দেওয়া হচ্ছে।

সূত্র : বাংলানিউজ
এন এইচ, ২১ ডিসেম্বর

Back to top button