ফ্যাশন

প্ল্যাটিনামের গয়নায় নিজের দ্যূতি ছড়িয়ে দিন …!

অলঙ্কার কথাটা শুনলেই ভেসে ওঠে এক অপরূপা নারীমূর্তি ও তাঁর সর্ব অঙ্গে গয়না। গয়নার রকমারি বাহারে নারীদেহ ফুটে ওঠে। মেটালের দিক থেকে বিচার করলে সোনার গয়নার বিকল্প নেই। যেমন দেখতে সুন্দর, তেমনই তার আভিজাত্য। কিন্তু হাল আমলে প্ল্যাটিনামের গয়নাও জাদু দেখাচ্ছে তার।

রুপোর সঙ্গে দারুণ মিল, সোনার চেয়েও মূল্যবান – এই ধাঁধার উত্তর একটাই, প্ল্যাটিনাম। ইদানিং এনগেজমেন্ট রিংয়ের ক্ষেত্রে সোনাকে চ্যালেঞ্জ জানিয়েছে প্ল্যাটিনাম। রুপোলি প্ল্যাটিনামে একফালি হিরে প্রেমিকাকে সারপ্রাইজ দিয়েছেন – রি-অ্যাকশানটা শুধু দেখবেন !

শাড়ি, সালোয়ার, জিন্স, টপ – যাই হোক না কেন, সবের সঙ্গে মিলিয়ে গয়না না পরলে সুন্দরীদের সাজ ইনকমপ্লিট। ঝলমলে গয়নায় স্মার্ট লুক সব সুন্দরীই চান ! প্ল্যাটিনামের গয়না হলে আর কথাই নেই। আর সে অ্যাপিলটাও যে অন্য। একেবারে ভিন্ন। সবের সঙ্গে কেমন যেন দিব্যি মানিয়ে যায়।

এই মেটালের গয়নায় ব্যক্তিত্বের ছোঁয়া অনেকটাই আত্মবিশ্বাসী করে তোলে। কোনও অনুষ্ঠানে, অফিস পার্টিতে ছিমছাম পোশাকের সঙ্গে পরতে পারেন প্ল্যাটিনামের লকেট ও কানের দুল। এতে যে আপনিই অনন্যা হবেন, গ্যারেন্টেড !

বিয়ে বাড়ির মতো খুব সাজগোজ করার অনুষ্ঠানে গলায় প্ল্যাটিনামের নেকলেস পরে নিন। না হলে ডিজাইনার ব্লাজের সঙ্গে কানে ঝুলিয়ে নিন মানানসই প্ল্যাটিনাম কানের দুল। হাতে পরুন প্ল্যাটিনামের চুড়ি। লোকে বউকে ছেড়ে আপনাকেই দেখবে।

পরিবার, পরিজনদের নিয়ে পিকনিকে গেলে বদলে ফেলুন স্টাইল। ক্যাজুয়াল পোশাকের সঙ্গে একটা ছোট প্ল্যাটিনাম কানের দুল পরে নিন। লুকটাই পালটে যাবে।

তবে হ্যাঁ, প্ল্যাটিনাম রেয়ার মেটাল, যত্রতত্র পাওয়া যায় না, যত্রতত্র পরা যায় না। নিরাপদ জায়গা বুঝে পরুন। একবার খোয়া গেলেই বিপদ। অতি মূল্যবান জিনিসটি হাতছাড়া হয়ে যাবে।

এম ইউ

Back to top button