ক্রিকেট

এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ জিতলো পাকিস্তান

করাচি, ১৫ ডিসেম্বর – আগের ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে রীতিমতো উড়িয়ে দিয়েছিল স্বাগতিক পাকিস্তান। তবে সিরিজের দ্বিতীয় ম্যাচে জয়ের স্বপ্ন দেখতে দেখতে হেরে গেলো নিকোলাস পুরানের দল। শাহিন শাহ আফ্রিদির বোলিং ঝড় আর সাদাব খানের নিয়ন্ত্রিত বোলিংয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ হারে ৯ রানের ব্যবধানে। ফলে তিন ম্যাচের টি টোয়েন্টি সিরিজে এক ম্যাচ হাতে রেখেই সিরিজ নিজদের করে নিল বাবর আজমের দল।

করাচির জাতীয় স্টেডিয়ামে টস জিতে ব্যাট করতে নেমে ৮ উইকেট হারিয়ে ১৭২ রান সংগ্রহ করে পাকিস্তান। ১৭৩ রানের লক্ষ্যে ব্যাট করতে নেমে শেষ মুহূর্তের লড়াইয়ে খেই হারিয়ে মাত্র ৯ রানের ব্যবধানে হেরেছে ক্যারিবীয়রা।

ম্যাচের শুরুতেই ব্যাট করতে নেমে বাবর আজম এদিনও ব্যর্থ হন। প্রথম ম্যাচে শূন্য রানে ফেরা পাকিস্তান অধিনায়ক এবার করেছেন ৭ রান। ব্যর্থ ফখর জামানও আগের ম্যাচের মতো আজও করেছেন ঠিক ১০ রান। প্রথম ম্যাচে ৭০ ছাড়ানো মোহাম্মদ রিজওয়ান আজ থেমেছেন ৩০ বলে ৩৮ রান করে। আগের ম্যাচে ঝড় তোলা হায়দার আলী ৩১ রান করতে খেলেছেন ৩৪ বল। তবে পাঁচ নম্বরে নামা মোহাম্মদ ইফতিখারের ১৯ বলে ৩২ রানের পর আটে আসা শাদাব খানের ১২ বলে অপরাজিত ২৮ রানের ঝোড়ো ইনিংসে ১৭০ ছাড়ায় পাকিস্তান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের পক্ষে ওডেন স্মিথ সর্বোচ্চ ২টি উইকেট নেন। এছাড়া আখিল হোসেন, ওসানা থমাস, রোমারিও শেফার্ড ও হেইডেন ওয়ালস একটি করে উইকেট পান।

জবাবে ব্যাট করতে নেমে দলীয় ৩১ রানের মাথায় আউট হন সামরাহ ব্রুকস। ১০ রান করে আউট হন তিনি। এরপর নিকোলাস পুরান করেন ২৬ রান। রোভমান পাওয়েল করেন ৪ রান। ওডেন স্মিথ করেন ১২ রান। ওপেনার ব্র্যান্ডন কিং পঞ্চম ব্যাটার হিসেবে আউট হন ৬৭ রান করে। ৪৩ বলে ৬টি বাউন্ডারি এবং ৩টি ছক্কার মার মারেন তিনি।

রোমারিও শেফার্ড ১৯ বলে করেন ৩৫ রান। তিনি থেকে যান অপরাজিত। কিন্তু বাকি ব্যাটররা একের পর এক উইকেট বিলাতে থাকেন। শেষ বলে গিয়ে ওয়েস্ট ইন্ডিজ ১৬৩ রানে অলআউট হয়ে যায়।

শাহিন শাহ আফ্রিদি ৩ উইকেট নেন ২৬ রান দিয়ে। এরপর মোহাম্মদ নওয়াজ, মোহাম্মদ ওয়াসিম এবং হারিস রউফ নেন ২টি করে উইকেট। ম্যাচ সেরা নির্বাচিত হয়েছেন অলরাউন্ডার সাদাব খান।

সূত্র : বাংলাদেশ জার্নাল
এন এইচ, ১৫ ডিসেম্বর

Back to top button