ফ্যাশন

জেনে নিন টাই সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস

অনেক ফ্যাশন এক্সপার্ট আছেন, যারা খুব সাধারণ স্টাইলে টাই পরতে বলেন। এমনভাবে পরলে আপনার হয়তো কখনও ভুল হবে না টাই পরতে। তবে একই টাই বারবার না পরে আপনি নিজে পছন্দ করে পরতে পারেন। এক্ষেত্রে হয়তো আগে অথবা পরে আপনি কিছু ভুল করেই বসবেন। এজন্য চলুন জেনে নেওয়া যাক টাই সম্পর্কে গুরুত্বপূর্ণ কিছু টিপস।

১। টাইয়ের নটটি শক্ত করে বাঁধুন। আপনার মাথা নড়াচড়ার ফলে টাইটি নির্দিষ্ট স্থান থেকে সরে যেতে পারে। এতে করে টাইটি বারবার সঠিক স্থানে বসিয়ে নেওয়া লাগতে পারে। কিন্তু এই কাজ করলে আপনার টাইয়ের কাপড়ের ক্ষতি হতে পারে। তাই ভালভাবে নট দিন।

২। টাইয়ের নটটি দৃশ্যমান রাখুন এবং ঠিক শার্টের উপরের বোতামের ওপর রাখুন।

৩। টাইয়ের টেইলটি (টাইয়ের সরু অংশ) সবসময় ব্লেডের (টাইয়ের চওড়া অংশ) চেয়ে ছোট রাখুন।

৪। কলারের আকৃতি অনুযায়ী নট বাঁধুন। কলার যতটুকু অংশ ছেড়ে দিচ্ছে, ঠিক ততটুকু অংশ টাইয়ের নট দিয়ে পুরণ করুন। কলার যদি ছোট হয় তাহলে ছোট করে নট বাঁধুন। আর কলার যদি বড় হয় তাহলে বড় করে নট বাঁধুন।

৫। এটা টাই, ফাঁস নয়। নিশ্চিত করুন যেন আপনার টাই শার্টের উপরের বোতামকে ঢেকে রাখে। আর টাইকে লম্বালম্বি রাখতে অসুবিধা হলে জোড় সংখ্যক নট দিন। যেমন: কেলভিন নট।

৬। ক্যাজুয়াল শার্টের সাথে টাই পরার সমর কলারের নিচের বোতাম না লাগানোই ভাল। এতে করে তা আরও ক্যাজুয়াল দেখায়। আর ক্যাজুয়াল লুকের জন্যই আপনি যদি টাই পরতেই চান, তাহলে ক্যাজুয়াল শার্টের সাথে টাই না পরে একটি ক্যাজুয়াল টাই-ই বেছে নিন।

৭। টাইয়ের দৈর্ঘ্য বেল্টের ঠিক ওপর পর্যন্ত রাখুন।

৮। টাইয়ের সাথে ট্রাউজার পরার সময় ট্রাউজারের উচ্চতা যেন ঠিক জুতা পর্যন্ত থাকে। জুতা থেকে বেশি উপরে না, আবার বেশি দূর ঝুলেও থাকবে না। আর ব্যাগি ট্রাউজারের সাথে টাই না পরাই ভাল।

৯। টাইয়ের কালার যেন আপনার শার্টের কালারকে হাইলাইট করে, সেদিকে লক্ষ্য রাখুন।

১০। যদি স্যুট পরেন তবে স্যুটের নিচের বোতাম সবসময় খোলা রাখুন। যদি আপনার স্যুটে একটার বেশি বোতাম থাকে, তাহলেই বোতাম খোলা রাখবেন।

১১। স্যুটের হাতা বেশি লম্বা হবে না। স্যুট থেকে আপনার শার্টের হাতা যেন আধা ইঞ্চি বের হয়ে থাকে।

১২। টাইক্লিপ ব্যবহার করতে চাইলে এটা তুলনামুলক উপরে রাখুন। তবে একেবারে উপরে না রাখা ভালো।

১৩। ফরমাল স্যুটের সাথে টাই পরলে স্পোর্টস-ওয়াচ না পরাই ভাল।

এম ইউ

Back to top button