জাতীয়

ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি হেফাজতে ইসলামের

ঢাকা, ৩০ অক্টোবর- ফ্রান্সে ইসলামের শেষ নবী হজরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লামের ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শনের ঘটনায় প্রতিবাদ অব্যাহত রয়েছে। প্রতিবাদ কর্মসূচির অংশ হিসেবে ফ্রান্সের পণ্য বর্জন এবং বাংলাদেশে অবস্থিত ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধের দাবিতে আগামী সোমবার (২ নভেম্বর) দূতাবাস ঘেরাওয়ের কর্মসূচি ঘোষণা দেওয়া হয়েছে হেফাজতে ইসলাম বাংলাদেশ ঢাকা মহানগরের ব্যানারে।

শুক্রবার (৩০ অক্টোবর) বাদ জুমা বাংতুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের উত্তর গেটে সমমনা ইসলামি দলসমূহের ব্যানারে আয়োজিত গণমিছিল পূর্ব সমাবেশে সভাপতির বক্তব্যে হেফাজতে ইসলাম ঢাকা মহানগর সভাপতি আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী এ কর্মসূচি ঘোষণা করে বলেন, ‘ফ্রান্সের পণ্য বর্জন করতে হবে। বাংলাদেশে ফ্রান্সের দূতাবাস বন্ধ করতে হবে। আমাদের দাবি পূরণ না হলে আগামী সোমবার বেলা ১১টায় বায়তুল মোকাররম থেকে ফ্রান্স দূতাবাস ঘেরাও কর্মসূচি পালন করা হবে।’

এ সময় জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের মহাসচিব আল্লামা নূর হোসাইন কাসেমী আরও বলেন, বাংলাদেশের তাওহিদী জনতার ঈমানের দাবির সঙ্গে একাত্মতা প্রদর্শন করে সংসদে নিন্দা প্রস্তাব পাস করতে হবে। অবিলম্বে ফ্রান্সের রাষ্ট্রদূতকে ডেকে সরকারিভাবে রাসূলের অবমাননার প্রতিবাদ জানাতে হবে। ফ্রান্সের পণ্য ঐক্যবদ্ধভাবে বর্জন করতে হবে। ব্যবসায়ীদের ফ্রান্সের কোনো পণ্য আমদানি না করারও আহ্বান জানান আল্লামা কাসেমী।

জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের প্রচার সম্পাদক মাওলানা জয়নুল আবেদীন ও বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের সহ-প্রচার সম্পাদক মাওলানা ফয়সল আহমদের যৌথ পরিচালনায় অনুষ্ঠিত গণমিছিল পূর্ব বিক্ষোভ সমাবেশে বক্তব্য রাখেন- জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের সহ-সভাপতি আল্লামা আব্দুর রব ইউসূফী, খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আব্দুল কাদের, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের আমির মাওলানা ড. মোহাম্মদ ঈসা শাহেদী, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব আল্লামা মামুনুল হক, মুসলিম লীগের মহাসচিব কাজী আবুল খায়ের, বাংলাদেশ ফরায়েজি আন্দোলনের আমির মাওলানা আব্দুল্লাহ হাসান (পীর সাহেব বাহাদুরপুর), জমিয়তে উলামায়ে ইসলাম বাংলাদেশের যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা মঞ্জুরুল ইসলাম আফেন্দী, মুফতি মুনির হোছাইন কাসেমী, বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা জালাল উদ্দিন আহমদ, মাওলানা আতাউল্লাহ আমিন, সহকারী প্রচার সম্পাদক মাওলানা ফয়সাল আহমদ, খেলাফত মজলিসের যুগ্ম-মহাসচিব মাওলানা শফিক উদ্দীন, মাওলানা আহমদ আলী কাসেমী, ইসলামী ঐক্য আন্দোলনের মাওলানা শওকত হোসেন ও মুসলিম লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক খান আসাদ প্রমুখ।

জমিয়ত সহ-সভাপতি আল্লামা আবদুর রব ইউসূফী বলেন, ফ্রান্স মহানবী (সা.)-এর অবমাননা করেছে আর আমাদের সরকার এ ব্যাপারে নিশ্চুপ। এটা কাম্য নয়।

খেলাফত মজলিসের মহাসচিব ড. আহমদ আব্দুল কাদের বলেন, মুসলমানরা জেগে উঠেছে, রক্ত থাকতে মুসলমানরা নবীর অবমাননা সহ্য করতে পারে না। তিনি ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টেক ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানান।

বাংলাদেশ খেলাফত মজলিসের ভারপ্রাপ্ত মহাসচিব মাওলানা মামুনুল হক বলেন, বিশ্ব আজ দুই ভাগে বিভক্ত। এক পক্ষ নবীর ইজ্জত রক্ষায়, আরেক পক্ষ এর বিরুদ্ধে।

আরও পড়ুন : ৬ মণ কয়েন নিয়ে বিপাকে পড়া সবজি বিক্রেতা এখন লাখপতি!

তিনি আরও বলেন, মসজিদের নগরীতে ফ্রান্সের দূতাবাস থাকতে পারে না।

সমাবেশ শেষে গণমিছিল বের হয়ে রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে নাইটেঙ্গেল মোড়ে গিয়ে শেষ হয়।

সূত্র: বার্তা২৪.কম

আর/০৮:১৪/৩০ অক্টোবর

Back to top button