ফ্যাশন

তরুণীদের পছন্দ কুর্তি

ঈদ মানেই ভিন্ন আয়োজন। তাই ফ্যাশন ডিজাইনাররাও ব্যস্ত থাকেন ঈদের পোশাকে একটু ভিন্নতার ছোঁয়া দিতে। এবারের ঈদে পশ্চিমা ফ্যাশনের সঙ্গে সমন্বয় করে ট্রেন্ডি লুকের কুর্তি তরুণীদের প্রথম পছন্দ।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা বিভাগের তৃতীয় বর্ষের ছাত্রী নিশাত বিনতে রায়ান বলেন, ‘তরুণ প্রজন্মের সবাই এখন ফ্যাশন সচেতন। বিশেষ করে মেয়েরা। তারা কাপড় কিনে নিজ ঢঙে পোশাক বানিয়ে নিতে বেশি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করে।’ তিনি মূলত এসেছেন চাঁদনি চকে। তিনি বলেন, ‘এবারের ঈদে থ্রি-পিস বা ফোর পিস না কিনে আমি কুর্তি বানাতে চাই। তবে ফিউশন স্টাইলে।’

বাজার ঘুরে দেখা গেল ট্রেন্ডি ফ্যাশনে বর্তমানে নারীদের সবচেয়ে বেশি পছন্দ কুর্তি। ঋতু বদলের সঙ্গে তাল মিলিয়ে পোশাক পরিচ্ছদেও আসছে পরিবর্তন। এই পরিবর্তনশীলতার মধ্যেই কিছু জিনিস হয়ে ওঠে সময়ের ট্রেন্ড। গত কয়েক বছরে এর জন্যই কুর্তির জনপ্রিয়তা কেবল বেড়েই চলেছে।

অন্যদিকে গরমের ফ্যাশনে পোশাক হিসেবে কিছুটা হলেও দখল করে নিয়েছে এই কুর্তি। তবে এই কুর্তিরও রয়েছে রকমফের। বর্তমান সময়ে বেশ চল দেখা যাচ্ছে হাতাকাঁটা কুর্তির। আরামের জন্য এমন কুর্তির এখন চল বেশি। ফ্যাশনের পরিক্রমায় জিন্সের সাথে কুর্তির চল বেশ মানানসই। তবে এ ক্ষেত্রে একটি বিষয় অবশ্যই খেয়াল রাখতে হবে যে, কুর্তি হতে হবে শারীরিক কাঠামোর সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

গরমে তরুণীর পছন্দের পোশাক তালিকার শীর্ষে উঠে এসেছে লং কামিজের মতো লম্বা কিংবা ফ্রক স্টাইলে একটু ছোট আকারের কুর্তি। পরতে আরাম আর জাঁকজমক কম। তবে রঙে আছে ভিন্নতা। সাদার পাশাপাশি গোলাপি, জলপাই সবুজ, আকাশি, হালকা হলুদ, ঘিয়ে, হালকা ম্যাজেন্টা, হালকা নীল, ফিরোজা, হালকা সবুজ, পেস্ট ধরনের উজ্জ্বল কিন্তু হালকা রংগুলো বেছে নিতে পারেন। সেই সঙ্গে পরুন রঙিন লেগিংস।

এসব কুর্তি তৈরিতে বেশির ভাগ ক্ষেত্রে কটন কাপড়ই প্রাধান্য পাচ্ছে। এ ছাড়া সুতি কাপড়ের ওপর ব্লক প্রিন্ট, অ্যামব্রয়ডারি, ফেব্রিক্স ও হালকা সুতার কাজ থাকছে।

কোথাও কোথাও লেস, বোতাম দিয়ে বাড়তি বৈচিত্র্য আনার চেষ্টা করা হয়। লং কামিজের মতো লম্বা আর ঢিলেঢালা কুর্তিও এখন অনেকের পছন্দ।

সুতি কিংবা লিনেন কাপড়ের হওয়ায় কুর্তিগুলো পরেও আরাম। এগুলোর সামনের দিকটায় থাকে এক রঙের কোনো কাপড় আর পেছনের দিকটায় জবরজং প্রিন্টের কাপড়। হাইনেক কলার ও ফুল স্লিভ কিংবা থ্রি-কোয়ার্টার হাতার কুর্তিগুলোর জমিনজুড়ে থাকে নানা মোটিফ। শর্ট ও স্লিভলেস কুর্তিরও বেশ চল রয়েছে।

এ ছাড়া আলাদা করে চোখে পড়ে বোতামের ব্যবহার। নিচের অংশের কাটও ব্যতিক্রমী। গোলাকার, নৌকা, ভি ইত্যাদি কাট ব্যবহৃত হয়েছে। আবার গোলাকার হলেও সামনের অংশের চেয়ে পেছনের অংশ খানিক নামানো কাটিংও আছে।

কিছু কিছু কুর্তির ঘেরে ব্যবহার করা হয়েছে লেস। এ ধরনের কুর্তিও পরা হচ্ছে লেগিংস দিয়ে। এই কুর্তির সঙ্গে পরতে পারেন এক রঙের কিংবা শেডের কোনো ওড়না। কুর্তির কাপড়ের রঙের সঙ্গে মিলিয়ে বাছাই করুন ওড়না।

এসব কুর্তি পাবেন দেশীয় ফ্যাশন অঞ্জন’স, আড়ং, কে-ক্রাফট, বাংলার মেলা, প্রবর্তনা, বিবিয়ানা, নগরদোলা, সাদাকালো, অন্যমেলা, দেশালের শোরুমগুলোতে। এ ছাড়া যমুনা ফিউচার পার্ক, ইনফিনিটি মেগা মল, বসুন্ধরা শপিং কমপ্লেক্স, গাউছিয়া, চাঁদনি চক বা আপনার বাড়ির পাশের কোনো বড় মার্কেটে খোঁজে নিতে পারেন। চাইলে আপনি গজ কাপড় কিনে টেইলার্সে গিয়ে নিজের মনের মতো করে বানিয়ে নিতে পারেন ঈদের ট্রেন্ডি কুর্তি।

এম ইউ

Back to top button