বিচিত্রতা

বসকে থাপ্পড় মারা যখন চাকরি

তথ্য প্রযুক্তির এই যুগে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের ব্যবহার খুবই স্বাভাবিক ঘটনা। তরুণ প্রজন্মের ক্ষেত্রে এটিকে আসক্তিও বলেন কেউ কেউ। মনের অজান্তেই যেন মুঠোফোনে মুখ গুঁজে বসে থাকেন সবাই।

তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের এই আসক্তি দূর করতে একটি অভিনব কায়দা বের করেন ইন্দো-আমেরিকান যুবক মনীশ শেঠি। তিনি একজন কর্মী নিয়োগ করেন যিনি ফেসবুকে ঢোকা মাত্রই তাকে থাপ্পড় মারবেন। শুধু তাই নয়, অদ্ভুত এই চাকরির জন্য কর্মী খুঁজতে রীতিমতো বিজ্ঞাপনও দেন মনীশ। তাতে লেখেন, ‘আমি সময় নষ্ট করলেই আমার ওপর চিৎকার করবে। প্রয়োজনে চড়-থাপ্পড় মারতেই হবে।’

বিজ্ঞাপনটিতে ব্যাপক সাড়াও পান তিনি। এরপর একজন নারীকে এই কাজে নিয়োগ করেন এবং এজন্য প্রতি ঘণ্টায় ৮ মার্কিন ডলার পারিশ্রমিকও দেন। ইউটিউবে একটি ভিডিও প্রকাশ করে সত্যতা নিশ্চিতও করেন তিনি।

পাভলোক নামের একটি ওয়্যারেবল ডিভাইসের ব্র্যান্ডের প্রতিষ্ঠাতা ও সিইও মনীশ পরবর্তী সময়ে জানান, এই কাজের ফলও পেয়েছেন তিনি। তার প্রোডাক্টিভিটি অনেক বেড়ে যায়। আগে যেখানে তার প্রোডাক্টিভিটি ৩৫ থেকে ৪০ শতাংশ ছিল পরে তা বেড়ে ৯৮ শতাংশ হয়।

মজার বিষয় হলো, এই ঘটনাটি ২০১২ সালের। সম্প্রতি ‘টেসলা’-এর প্রতিষ্ঠাতা ইলন মাস্কের একটি টুইটের পর এই ঘটনা নতুন করে আলোচনায় এসেছে। এই ঘটনা নিয়ে একটি পোস্ট রিটুইট করেছেন ইলন। পাশাপাশি আগুনের গোলার ইমোজি দিয়েছেন। বলার অপেক্ষা রাখেনা আইডিয়াটি ভীষণ পছন্দ হয়েছে তার।

এন এইচ, ১৩ নভেম্বর

Back to top button